বন্যার্তদের হাহাকার নতুন এলাকা প্লাবিত

দেশের উত্তরাঞ্চলে বন্য পরিস্থিতি অপরিবর্তিত থাকলেও মধ্যাঞ্চলে অবনতি হয়েছে। মাদারীপুর, জামালপুর, ফরিদপুর ও মানিকগঞ্জ জেলায় নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। লালমনির হাটে বন্যার পানিতে ডুবে দুইজন ও ফরিদপুরে এক শিশুর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। পদ্মা, যমুনা, ধলেশ্বরী, ব্রহ্মপুত্র, ঘাঘট, কীর্তনখোলাসহ বিভিন্ন নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত ও ভাঙনের মুখে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন দেশের কয়েক কোটি মানুষ। সেখানে চলছে খাদ্য ও পানীয়জলের তীব্র সংকট। ত্রাণের জন্য হাহাকার করছে দুর্গত এলাকার মানুষ। এ পরিস্থিতিতে নিজ নিজ এলাকায় গিয়ে বন্যার্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে মন্ত্রী-এমপিদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিভিন্ন জেলা থেকে আলোকিত বাংলাদেশের স্থানীয় সংবাদদাতা ও ব্যুরোর পাঠানো খবরÑ 
শিবচর সংবাদদাতা জানান, মাদারীপুরের শিবচরে পদ্মা নদীর পানি বিপদসীমার ৭৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় বন্যার ব্যাপকতা আরও বেড়েছে। দুর্গত এলাকায় ঘরে ঘরে স্থানীয় সংসদ সদস্য নুর-ই আলম চৌধুরীর উদ্যোগে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা ত্রাণের চাল পৌঁছে দেয়া শুরু করেছেন। তবে এসব এলাকায় দুর্গতদের জন্য দ্রুত অর্থ, টিন, শুকনো খাবারের ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছেন জনপ্রতিনিধিরা। সরেজমিন গিয়ে জানা যায়, গেল ২৪ ঘণ্টায় পানি বৃদ্ধি অপরিবর্তিত থাকায় পদ্মার পানি শিবচরে ৭৮ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে চরাঞ্চলসহ একের পর এক এলাকা বন্যাকবলিত হয়ে পড়ছে। পদ্মা ও আড়িয়াল খাঁ নদের করাল গ্রাসে ২৪ ঘণ্টায় ২০টিসহ এ পর্যন্ত সাড়ে  ৩ শতাধিক ঘরবাড়ি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এ পর্যন্ত প্লাবিত হয়েছে সহস্রাধিক হেক্টর ফসলের মাঠ। জামালপুর সংবাদদাতা জানান, যমুনার পানি ৩ দিন ধরে কিছুটা কমতে শুরু করেছে। তবে জামালপুরের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি এখনও অপরিবর্তিত। বন্যার পানিতে দাঁতভাঙা বেইলি ব্রিজের অ্যাপ্রোচ ভেঙে গর্ত হয়ে যাওয়ায় জামালপুর-মাদারগঞ্জ সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। মানিকগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, ২৪ ঘণ্টায় পদ্মা, যমুনা ও ধলেশ্বরী নদীর পানি বাড়ায় (৩ সেন্টিমিটার) মানিকগঞ্জের দৌলতপুর হরিরামপুর, শিবালয়, ঘিওর, সদর, সাটুরিয়া উপজেলার নদী তীরবর্তী ২৫ ইউনিয়ন বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। গাইবান্ধা সংবাদদাতা জানান, বন্যার পানির তোড়ে ফুলছড়ির কালীরবাজার সড়কের পশ্চিম ছালুয়া গ্রামসংলগ্ন ব্রিজটি ভেঙে গেছে। কুড়িগ্রাম সংবাদদাতা জানান, জেলার ৯ উপজেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। তবে বানভাসি সাড়ে ৬ লাখ মানুষের দুর্ভোগ কমেনি। ত্রাণের তীব্র সংকটে দুর্ভোগে রয়েছেন তারা। বরিশাল ব্যুরো জানায়, বরিশালের কীর্তনখোলা নদীর পানি ক্রমেই বাড়ছে। এক সপ্তাহে ১৫ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বরিশাল নগরীসহ আশপাশ উপজেলাগুলোর নিম্নাঞ্চলের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।


বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রকাশিত
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রকাশিত
বিস্তারিত
কৃষকের হাসি
দীর্ঘদিন ধরে মাচায় পটোল চাষ হচ্ছে। এতে ফলন হয় ভালো।
বিস্তারিত
জাতিসংঘের সঙ্গে জন্মগত সম্পর্ক বাংলাদেশের
জাতিসংঘের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক জন্মগত। অর্থাৎ বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর
বিস্তারিত
বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির কাছে অনুসন্ধান কমিটির
রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের কাছে সোমবার বঙ্গভবনে সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের
বিস্তারিত
বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে অংশ
বঙ্গভবনে দরবার হলে রোববার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে
বিস্তারিত
প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কার্যালয়ে বুধবার জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত
বিস্তারিত