স্লিম থাকার উপায়

স্লিম থাকার জন্য মানুষ কত কিছুই তো করছেন। কেউ নিয়মিত শরীর চর্চায় মেতেছেন, কেউবা নিয়ম করে দৌঁড়াচ্ছেন আবার কেউ ডায়েট করছেন। তবে এতসব করেও যখন স্থূলতা কমছে না তখন নিশ্চয়ই চিন্তার বিষয়। স্লিম হওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তা দূর করতে সহায়ক কয়েকটি উপায় নিয়ে আলোচনা করা হলো:
এক. ওজন নিয়ন্ত্রণে ডায়েটিং জরুরি। কিন্তু খাবার খাওয়ার মধ্যে বেশি সময় গ্যাপ রাখা যাবে না। আবার ডায়েট করতে গিয়ে না খেয়ে থাকারও কোনো প্রশ্নই ওঠে না। দিনে অন্তত চার থেকে পাঁচ বার খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।
দুই. দিনে অন্তত ২০ মিনিট ব্যায়াম করুন। তাতে শরীর ভালো থাকবে। কখনো হাঁটতে পারেন, আবার কখনও বারান্দায় দাঁড়িয়ে সেরে নিতে পারেন জগিং। এতেও ব্যায়াম হবে।
তিন. রাতের খাবার খাওয়ার পর খানিকক্ষণ হালকা শরীরচর্চা করা ভালো। আবার খাওয়ার ২ ঘণ্টা পর একটু হেঁটে নিতে পারেন। এতে শরীর ঝরঝরে থাকবে।
চার. মেয়েদের দৈনিক ক্যালোরি গ্রহনের পরিমান দিনে ১০০০-১৫০০ বেশি না হওয়াই ভালো। তবে পুরুষের শারীরিক চাহিদা একটু বেশি বিধায় তাদের জন্য ২০০০ ক্যালোরি বরাদ্দ। এর বেশি হলেই ভুঁড়ি জমতে শুরু করবে।
পাঁচ. এলোপাথাড়ি ব্যায়াম না করে নিজের শরীরের সাথে মানানসই ব্যায়াম করুন। সেই সাথে বাজার থেকে সস কিনে খাওয়া বাদ দিন, এতে প্রচুর চিনি থাকে।
ছয়. প্রত্যেক সপ্তাহে একই দিনে ও একই সময়ে ওজন মাপুন। এটা ওজন নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্র আপনাকে সতর্ক করে তুলবে।
সাত. সঠিক সময়ে খাওয়াদাওয়া করুন। কারণ হজম ক্ষমতা গতিশীল রাখতে এটা খুব জরুরি।
আট. প্রতিদিন ব্রেকফাস্ট খাওয়া প্রয়োজন। পেট দীর্ঘক্ষণ খালি রাখবেন না। এতে মেটাবলিজম কমে যাবে ও ওজন বাড়বে।
নয়. ভাজা-পোড়া খাবেন সপ্তাহে একদিন।
দশ. নির্দিষ্ট বেলার খাবারের মাঝের সময়ে যদি খিদে পায়, তাহলে প্রচুর পরিমানে পানি খান। আবার ফলও খেতে পারেন।
এগার. মিষ্টি, কোমল পানীয়, কেক ইত্যাদি খাবার সপ্তাহে একদিন খেতে পারেন। বিস্কুট খেতে চাইলে ডায়েট বিস্কিট কিনুন।
বার. প্রাণীজ ফ্যাট, বিশেষত লাল মাংস ও ডালডা খাবারের তালিকা থেকে বাদ দিন। মাংস খেলে চামড়া ও চর্বি বাদ দিয়ে খান।
তের. অতিরিক্ত দুধ জাতীয় খাবার যেমন মাখন বা চিজ বেশি খাবেন না।
চৌদ্দ. দিনে দুইকাপ গ্রিন টি পানের অভ্যাস গড়ে তুলুন।
পনের. মাদকজাতীয় দ্রব্যের নেশা ছেড়ে দিন।
ষোল. পর্যাপ্ত পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার যেমন – আলু, ভাত, রুটি খান। তবে লাল চালের ভাত ও লাল আটার রুটি খাওয়া সবচাইতে ভালো।
সতের. দুপুরে ও রাতে অবশ্যই এক কাপ করে সালাদ বা কম মশলায় রান্না সবজি খাওয়া ভালো।
আঠার. খাবারের প্লেটের আকার ছোট করুন এবং একবারের বেশি দুবার নিয়ে খাওয়ার প্রবণতা ত্যাগ করুন। খাবার একবারেই প্লেটে তুলে নেবেন।
ঊনিশ. চেষ্টা করুন সকালে ভারী ব্রেকফাস্ট করার। সামান্য ভারি লাঞ্চ এবং হালকা ডিনার করার। নাস্তা হিসাবে খান বাদাম, মুড়ি, ফল, ডায়েট বিস্কুট।
বিশ. চিনি দুই চামচের বেশি খাবেন না। অনেকেই স্লিম থাকার প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে দিনে একবেলা খাওয়া থেকে বিরত থাকেন। আসলেই স্লিম থাকতে চাইলে এমনটি করা থেকে বিরত থাকতে হবে। একবেলা না খেয়ে থাকার চেয়ে বরং একটু পরপর অল্প অল্প করে খান। তবে অবশ্যই অতিরিক্ত খাবেন না। এভাবেই দিনে দিনে আপনি স্লিম হয়ে উঠবেন।

 


যেভাবে শুরু ভালোবাসা দিবসের
ইতালির রোম নগরীতে ২৬৯ সালে সেন্ট ভ্যালেইটাইন’স নামে একজন খৃষ্টান
বিস্তারিত
‘দি হিডেন পার্ল’র যাত্রা শুরু
ফেসবুকের জনপ্রিয় পেজ ‘দি হিডেন পার্ল’। এই পেজের মাধ্যমে থেকেই
বিস্তারিত
নওশিন ও শিন্নসুকের কিকস্টারটার প্লাটফর্মে
বাংলাদেশ ও জাপানের সহযোগিতায় তৈরি চামড়া শিল্পকর্ম ‘জিলানীয়ে এ
বিস্তারিত
লিভারের শক্তি বাড়ায় লাউ
স্বাস্থ্যকর সবজি লাউ লিভারের কার্যক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এটি জন্ডিসের
বিস্তারিত
হলুদ ফুলে কৃষক লাল
কৃষকের বিস্তৃর্ণ মাঠজুড়ে হলুদ সরিষা ফুল। মৌ মৌ গন্ধ ছড়িয়ে
বিস্তারিত
বিএডিসি’র গোলআলুতে ঘোর সংসারের চাকা
শেরপুরের নকলা উপজেলার চরাঞ্চলসহ বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা বীজ উৎপাদনের জন্য
বিস্তারিত