‘জাতিকে কিছু দিতে পারেনি আ.লীগের কাউন্সিল’

আওয়ামী লীগ কাউন্সিল থেকে কিছু দিতে পারেনি বলে মন্তব্য করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আপনারা কাউন্সিল করেছেন, খুব ভালো কথা। গোটা জাতি অপেক্ষা করছিল, এ কাউন্সিল থেকে আপনারা একটি রাজনৈতিক পথনির্দেশ দেখাবেন। এ কাউন্সিল থেকে আপনারা কিছু দিতে পারেননি জাতিকে।’

জিয়া সাইবার ফোর্স নামের একটি সংগঠন এর আয়োজনে বুধবার বিকেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে ‘সুন্দরবন বাঁচাও, রামপাল কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র ঠেকাও’ শীর্ষক এক সেমিনারে মির্জা ফখরুল ইসলাম এ কথা বলেন।

সেমিনারে ‘রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ভুল তথ্য বনাম বাস্তবতা’ শীর্ষক একটি লিখিত প্রবন্ধ ও পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন বিএনপির জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক সম্পাদক এ কে এম ওয়াহিদুজ্জামান।

ফখরুল বলেন, ‘আজকে নির্বাচন নেই, একটা অনির্বাচিত সরকার ক্ষমতা দখল করে আছে। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো আজকে ধ্বংস করা হচ্ছে। সেখানে গণতন্ত্রে ফিরে আসার জন্য, নির্বাচনটাকে সুষ্ঠু করার জন্য, জনগণের প্রতিনিধিত্ব প্রতিষ্ঠিত করার জন্য কীভাবে আপনারা পথনির্দেশ দেবেন, সেটা সবাই আশা করছিল।’

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া সংলাপের আহ্বানের উল্লেখ করে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘এরা আলোচনায় যেতে চায় না। কারণ তারা জানে, যদি নিরপেক্ষ, অবাধ নির্বাচন হয়, সেখানে তাদের ভরাডুবি হবে। সে কারণে তারা নির্বাচনে যেতে চায় না, গণতন্ত্রে ফিরে আসতে চায় না।’

রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে সরকারের সমালোচনা করেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, অনৈতিক সরকার নির্বাচনের নাটক করে ক্ষমতা দখল করে বসে আছে। তাই তারা জোর করে সুন্দরবন ধ্বংসকারী এই বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে বদ্ধপরিকর এবং কাজ শুরু করেছে।

রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কারণে আর্থিক ও পরিবেশগত ক্ষতির উল্লেখ করে বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘বিশ্বব্যাংক জলবায়ু নিয়ন্ত্রণের জন্য আমাদের দুই বিলিয়ন ডলার দিয়েছে। সেখানে এখন আমরা নিজেরাই জলবায়ু, পরিবেশকে ক্ষতিগ্রস্ত করছি।’ তিনি বলেন, এদের কোথাও কোনো জবাবদিহি নেই। পার্লামেন্টে ইস্যুটা আসেনি, কারণ ওখানে কেউ নেই। যাঁরা আছেন, তাঁরা নাটকের নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে এসেছেন।

ফখরুল বর্তমান সংকট থেকে উত্তরণে এবং আধিকার আদায়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘নিজেরা যদি ঐক্যবদ্ধ হতে না পারি, অন্য কেউ এসে আমাদের সেটা করে দিয়ে যাবে না।’

জিয়া সাইবার ফোর্সের সভাপতি শেখ ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন, আবদুস সালাম, উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রমুখ।


ইলিয়াস কাঞ্চন নানা অনিয়ম করেন,
সাবেক নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান বলেছেন- সড়কের নিরাপত্তা নিশ্চিত
বিস্তারিত
অতিথি পাখিদের স্থান হবে না
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
বিস্তারিত
বিজয় দিবসে বিএনপির টানা ৫
আসন্ন বিজয় দিবস ও শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে টানা পাঁচ
বিস্তারিত
‘খালেদা জিয়াকে বেঁচে থাকার সুযোগ
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে জামিন না দিলে এদেশের মানুষের কাছে
বিস্তারিত
সম্মেলনের আগেই সাধারণ সম্পাদক দাবি,
দে‌শের সব‌চে‌য়ে প্রাচীন রাজ‌নৈতিক দল বাংলা‌দেশ আওয়ামী লীগ। আগামী ২১
বিস্তারিত
অঙ্গ-সহযোগী সংগঠন নিয়ে যৌথসভা ডেকেছে
কারাবন্দি দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি ও
বিস্তারিত