তরুণদের ছায়া জাতিসংঘ কর্মশালা

ড্যাগ হ্যামারস্কজল্ড জাতিসংঘের দ্বিতীয় মহাসচিব। তিনি জাতিসংঘকে ক্রিস্টোফার কলম্বাসের শান্তা মারিয়ার সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। এ শান্তা মারিয়া কলম্বাসের সেই জাহাজ, যা পাড়ি দিয়েছিল ঝঞ্ঝাক্ষুব্ধ আটলান্টিক মহাসাগর। ব্যাখ্যা হিসেবে তিনি বলেছিলেন, জাতিসংঘকে সবসময়ই বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বহু প্রতিকূল পরিস্থিতি পাড়ি দিতে হয়, আর এত কিছুর পরও শুধু জোটে নিন্দুকদের সমালোচনা। যার অনেকটাই সম্পূর্ণ অজ্ঞতাপ্রসূত।
হ্যামারস্কজল্ডের ‘শান্তা মারিয়া’ সম্পর্কে তরুণ প্রজন্মকে অবহিত করতে এবং তাদের বিভিন্ন জনমুখী কর্মসূচি বাস্তবায়নে সহায়তার ব্রত দিয়ে বাংলাদেশে কাজ করে যাচ্ছে জাতিসংঘ যুব ও ছাত্র সমিতি (ইউনিস্যাব)। আর এ জাতিসংঘকে তরুণ প্রজন্মের সামনে বিস্তারিতভাবে তুলে ধরার সবচেয়ে উপযুক্ত মাধ্যম মডেল ইউনাইটেড নেশন্স কনফারেন্স বা ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলন। আর এ ছায়া জাতিসংঘে তরুণদের অংশগ্রহণের জন্য এক মডেল ইউনাইটেড নেশন্স কর্মশালা আয়োজন করে থাকে ইউনিস্যাব, ঢাকা ইউনিভার্সিটি মডেল ইউনাইটেড নেশন্স অ্যাসোসিয়েশন (ডিইউমুনা) এবং জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্র ঢাকা।
ইউনিস্যাব এ কর্মশালা আয়োজন করে ২৯ অক্টোবর। এ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করে বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসা ২০০ এর অধিক ছাত্রছাত্রী। মডেল ইউএন কী এবং অংশগ্রহণকারীদের ভূমিকা কীভাবে পালন করবে, এ বিষয়গুলো হাতে-কলমে শেখানোই ছিল কর্মশালার মূল লক্ষ্য। সকাল থেকে শুরু হওয়া এ কর্মশালায় প্রথম সেশনের বিষয়বস্তু ছিল কেন মডেল ইউনাইটেড নেশন্সে যোগ দেয়া উচিত। এ মডেল ইউনাইটেড নেশন্স শুধু কূটনীতিক আলোচনা নয়, এ সম্মেলনের মাধ্যমে কীভাবে একে অন্যের সঙ্গে নেটওয়্যার্কিং স্থাপন করাসহ বলা যায়, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের মতো নিজেদের কমিটি থেকে কীভাবে রেজুলেশন পেপার তৈরি করা যায়, সে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়ে থাকে। আর এসব বিষয় প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে বাংলাদেশের খ্যাতনামা মুনাররা।
এ কর্মশালায় কীভাবে মুনার হতে হয় শুধু এটায় ছিল না, বরং এর সঙ্গে যোগ করে দিনশেষে ছিল জাতিসংঘ দিবস পালন করা। এ জাতিসংঘ দিবসে ছিল ছবি প্রদর্শনী এবং জাতিসংঘবিষয়ক বিভিন্ন কর্মকর্তাদের আলোচনা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্র ঢাকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান, জাহানারা মনিকা, পরিচালক, (জাতিসংঘ এবং মানবাধিকার) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়,  আশা ইউনিভার্সিটির প্রাক্তন ভিসি ডালেম চন্দ্র বর্মণ, অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্র ঢাকার সাবেক অধিকর্তা কাজী আলী রেজাসহ ইউনিস্যাব প্রেসিডেন্ট মোহাম্মাদ মামুন মিয়া। ওই অনুষ্ঠানে জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্র ঢাকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, জাতিসংঘ অংশীদারিত্বমূলক উন্নতির জন্য কিছু দৃঢ় ভিত্তি তৈরি করেছে। যেমন নারীর ক্ষমতায়ন, যুবসমাজের সম্পৃক্তকরণ এবং সবার জন্য মানবাধিকার সমুন্নত রাখা। আর এ যুবসমাজের সম্পৃক্তকরণের সঙ্গে মডেল ইউনাইটেড নেশন্স এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।


আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ পেলেন ৯০ প্রাণী
পোলট্র্রির বিজ্ঞানসম্মত স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা, সঠিকভাবে রোগবালাই নির্ণয়, চিকিৎসা এবং রোগ
বিস্তারিত
সবার উপরে বাবা-মা
যে-কোনো মানুষের গায়ে হাত তোলাই অপরাধ। আর সন্তান হয়ে বাবা-মায়ের
বিস্তারিত
স্মৃতির মানসপটে যুক্তরাজ্য সফর
বিদেশে যাওয়ার অভিজ্ঞতা হয়তো অনেকেরই হয়ে থাকে। তবে কলেজের প্রতিনিধি,
বিস্তারিত
ব্যবসার ধারণা : গড়তে চাইলে
নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে আপনাকে উদ্যোগী হতে হবে। আর উদ্যোক্তা
বিস্তারিত
৭৫ শতাংশ বৃত্তিতে আইটি ও
বিভিন্ন কারণে যারা আইটিতে দক্ষতা উন্নয়নের সুযোগ থেকে বঞ্চিত তাদের
বিস্তারিত
লক্ষ্য যখন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার বিপরীতে ক্রমাগত উর্বরা জমির পরিমাণ কমছে। জনসংখ্যার এ
বিস্তারিত