‘মহিলা দলকে মূল্যায়ন করে না’

পুরুষের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করলেও মূল দল মহিলা দলকে মূল্যায়ন করে না। মহিলা দলের কর্মকাণ্ড অনেক সময় বিএনপিতে উপেক্ষিত থাকে। কখনো কখনো কেন্দ্রীয় নেতাদের গ্রুপিং ও স্থানীয় এমপিদের হস্তক্ষেপের কারণে কমিটি দেওয়া সম্ভব হয় না। অনেক সময় বড় বড় পদ নিয়ে জেলার নেত্রীরা ঢাকায় বসে থাকেন। নিজেরা কাজ করেন না, অন্যদেরকেও ঠিক মতো কাজ করতে দেন না।

শুক্রবার (০৪ নভেম্বর) রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আয়োজিত জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের জেলা সম্মেলনে অংশ নিয়ে সংগঠনটির তৃণমূল নেতারা এসব অভিযোগ করেন।
 
সকাল ১০টায় মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাসের সভাপতিত্বে এ সম্মেলন শুরু হয়। চলবে সন্ধ্যা ৬টা পযর্ন্ত। সম্মেলনে দ্বিতীয় পর্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে দিন নির্দেশনা মূলক বক্তব্য দেবেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফকরুল ইসলাম আলমগীর।
 
মুক্ত আলোচনায় অংশ নিয়ে চট্টগ্রাম জেলা মহিলা দলের সভাপতি মনোয়ারা বেগম মনি বলেন, আমরা মহিলা দল সবটুকু উজার করে দিয়ে সংগঠনের জন্য কাজ করি। রাজনীতির কারণেই সংসার এবং নিজের কর্মস্থলে ঠিক মতো সময় দিতে পারি না। সংগঠনের জন্য পুরুষের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করি।  
 
কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় লোকাল এমপিদের গ্রুপিং ও অন্তর্দ্বন্দ্বের কারণে আমরা কমিটি দিতে পারি না। কমিটি দিতে গেলেই উনাদের কাছ থেকে বাধা আসে। কেন্দ্রীয় নেতাদের উচিৎ এ বিষয়গুলো গভীরভাবে ভেবে দেখা।
 
খুলনা জেলা মহিলা দলের সভাপতি তাসলিমা সুলতানা বলেন, মূল দল কোনো সময়-ই মহিলা দলের কর্মকাণ্ডকে মূল্যায়ন করে না। কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচি  পালনের সময় মূল দলের সঙ্গে একাত্ম হয়ে কাজ করলেও মহিলা দলের  কর্মকাণ্ডকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না।

 
রাজনীতি করার কারণে নানা হয়রানির শিকার হতে হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা প্রকাশ্যে কাজ করতে পারি না। গোপনে গোপনে সংগঠন করি। রাজনীতি করি বিধায় আমাদের সন্তানরা সরকারি কোনো প্রতিষ্ঠানে লেখা-পড়া বা কাজ করার সুযোগ পায় না। এর পরও মূল দলের (বিএনপি) কাছ থেকে সেভাবে মূল্যায়ন পাই না। আমরা চাই, মহিলা দলকে সঠিকভাবে মূল্যায়ন করা হোক। তাহলে আমরা মূল দলের সঙ্গে রাজপথে কাজ করবো।
 
বরিশাল জেলা মহিলা দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামিমা আকবর বলেন, অনেক সময় এমন সব লোককে নেতৃত্বের আসনে বসানো হয় যারা কখনো এলাকায় যায় না। ঢাকায় বসে ছড়ি ঘুরান। জেলার নেতৃত্ব এমন কাউকে দেবেন না যারা ঢাকায় বসে সংগঠন চালাতে চান।
 
ফরিদপুর জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক বিলকিস ইসলাম বলেন, রাজপথে থেকে আমরা প্রমাণ করতে পেরেছি মূল দল ও অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের চেয়ে মহিলা দল কোনো অংশে পিছিয়ে নেই। বিগত  আন্দোলনে পুরুষের মতো মহিলারাও অনেক হয়রানির শিকার হয়েছেন। অনেকেরই হাত-পা ভেঙেছে। মামলা খেয়েছেন। কিন্তু মহিলা দলের এই ভূমিকা আড়ালে আবডালে থেকে যায়। তাই আমরা চাই, মহিলা দলের জন্য আলাদা একটা ফেসবুক একাউন্ট খোলা হোক, যেখান থেকে আমাদের কর্মকাণ্ডের  খবর ও ছবি দ্রুত ছড়িয়ে দেওয়া যায়।
 
সম্মেলনে উপস্থিত আছেন- মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, সিনিয়র সহ সভাপতি নুরুজাহান ইসলাম, সহ সভাপতি জেবা খান, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খান,
 
এ ছাড়া সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন সংগঠনের সাবেক সভাপতি নূরে আরা সাফা, বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা তাহসীনা রুশদীর লুনা, সাবেক সংসদ সদস্য রাশেদা বেগম হীরা প্রমুখ।


সংসদ থেকে মাশরাফিকে নোটিশ
মাশরাফি বিন মর্তুজা। তিনি বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ছাড়াও
বিস্তারিত
তারেককে দেশে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার জন্য বিএনপি দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন
বিস্তারিত
খালেদা জিয়ার মুক্তিতে আওয়ামী লীগ
কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু বলেছেন- খালেদা জিয়ার
বিস্তারিত
আইভী রহমানের ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
আজ আওয়ামী লীগের সাবেক মহিলা বিষয়ক সম্পাদক এবং প্রয়াত রাষ্ট্রপতি
বিস্তারিত
‘এই ‌সরকারের বিরুদ্ধে ঘরে ঘরে
বাংলাদেশের প্রতিটি ঘরে সরকারের বিরুদ্ধে উত্তাপ চলছে বলে মন্তব্য করেছেন
বিস্তারিত
প্রয়াত মোজাফফরের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও
মুজিবনগর সরকারের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ)
বিস্তারিত