কবিতায় ষড়ঋতু

রবীন্দ্রনাথ ছিলেন গ্রীষ্মজাতক; কিন্তু হৃদয় ছিল গহন বর্ষামগন। তার বিপুল সৃষ্টিতে, কী গান-কবিতা-গল্প, ঋতুরচনায় বোধ করি বর্ষারই প্রবল প্লাবন। আর কবি নির্মলেন্দু গুণ স্বয়ং বর্ষাজাতক। তাই বর্ষা একই সঙ্গে তার জননী, ভগিনী, কন্যা ও প্রেমিকা। বলা হয়, বর্ষা বাঙালির সবচেয়ে আপন ঋতু; বহু ভারতীয়রও। নইলে প্রায় দেড় হাজার বছর আগে সংস্কৃত কবি কালিদাস মেঘদূতের মতো এমন আশ্চর্য কাব্য লিখলেন কেমন করে! আবার প্রকৃতির কবি জীবনানন্দ দাশ বর্ষাকাব্য লেখেননি বললেই চলে, বরং তিনি উপেক্ষিত হেমন্তের কবি। তবে তিনিও মেঘদূত অনুবাদের চেষ্টা করেছিলেন। নির্মলেন্দু গুণের ষড়ঋতুর কবিতার বই ‘ঋতুসমগ্র’র ফ্ল্যাপে এভাবেই বলেছেন কবি সৈকত হাবিব। গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, হেমন্ত, শীত ও বসন্তবিষয়ক কবিতার এ বইটি প্রকাশ করেছে প্রকাশনা সংস্থা প্রকৃতি। প্রচ্ছদ করেছেন মোস্তাফিজ কারিগর। ১৪২ পৃষ্ঠার এ বইয়ের দাম ২৪০ টাকা।

পাওয়া যাবে : প্রকৃতি, কনকর্ড এম্পোরিয়াম, কাঁটাবন, ঢাকা।
 


আরব ছোটগল্পের রাজকুমারী
সামিরা আজ্জম ১৯২৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর ফিলিস্তিনের আর্কে একটি গোঁড়া
বিস্তারিত
অমায়ার আনবেশে
সাদা মুখোশে থাকতে গেলে ছুড়ে দেওয়া কালি  হয়ে যায় সার্কাসের রংমুখ, 
বিস্তারিত
শারদীয় বিকেল
ঝিরিঝিরি বাতাসের অবিরাম দোলায় মননের মুকুরে ফুটে ওঠে মুঠো মুঠো শেফালিকা
বিস্তারিত
গল্পের পটভূমি ইতিহাস ও বর্তমানের
গল্পের বই ‘দশজন দিগম্বর একজন সাধক’। লেখক শাহাব আহমেদ। বইয়ে
বিস্তারিত
ধোঁয়াশার তামাটে রঙ
দীর্ঘ অবহেলায় যদি ক্লান্ত হয়ে উঠি বিষণœ সন্ধ্যায়Ñ মনে রেখো
বিস্তারিত
নজরুলকে দেখা
আমাদের পরম সৌভাগ্য, এই উন্নত-মস্তকটি অনেক দেরিতে হলেও পৃথিবীর নজরে
বিস্তারিত