কবিতায় ষড়ঋতু

রবীন্দ্রনাথ ছিলেন গ্রীষ্মজাতক; কিন্তু হৃদয় ছিল গহন বর্ষামগন। তার বিপুল সৃষ্টিতে, কী গান-কবিতা-গল্প, ঋতুরচনায় বোধ করি বর্ষারই প্রবল প্লাবন। আর কবি নির্মলেন্দু গুণ স্বয়ং বর্ষাজাতক। তাই বর্ষা একই সঙ্গে তার জননী, ভগিনী, কন্যা ও প্রেমিকা। বলা হয়, বর্ষা বাঙালির সবচেয়ে আপন ঋতু; বহু ভারতীয়রও। নইলে প্রায় দেড় হাজার বছর আগে সংস্কৃত কবি কালিদাস মেঘদূতের মতো এমন আশ্চর্য কাব্য লিখলেন কেমন করে! আবার প্রকৃতির কবি জীবনানন্দ দাশ বর্ষাকাব্য লেখেননি বললেই চলে, বরং তিনি উপেক্ষিত হেমন্তের কবি। তবে তিনিও মেঘদূত অনুবাদের চেষ্টা করেছিলেন। নির্মলেন্দু গুণের ষড়ঋতুর কবিতার বই ‘ঋতুসমগ্র’র ফ্ল্যাপে এভাবেই বলেছেন কবি সৈকত হাবিব। গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, হেমন্ত, শীত ও বসন্তবিষয়ক কবিতার এ বইটি প্রকাশ করেছে প্রকাশনা সংস্থা প্রকৃতি। প্রচ্ছদ করেছেন মোস্তাফিজ কারিগর। ১৪২ পৃষ্ঠার এ বইয়ের দাম ২৪০ টাকা।

পাওয়া যাবে : প্রকৃতি, কনকর্ড এম্পোরিয়াম, কাঁটাবন, ঢাকা।
 


সাহিত্যের বর্ণিল উৎসব
প্রথম দিন দুপুরে বাংলা একাডেমির লনে অনুষ্ঠিত হয় মিতালি বোসের
বিস্তারিত
নিদারুণ বাস্তবতার চিত্র মান্টোর মতো সাবলীলভাবে
এ উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ ছিল ভারতের প্রখ্যাত পরিচালক নন্দিতা দাস
বিস্তারিত
পাখি শিকারিদের পা
অর্ধমৃত চোখটি পাহারা দিতে দিতে ক্লান্ত হয়ে পড়ছে অন্য চোখ।
বিস্তারিত
এমনই নিশ্চিহ্ন হবে একদিন
এমনই নিশ্চিহ্ন হবে সব চিহ্ন একদিন মুছে যাবে অক্ষত ক্ষতচিহ্ন, ছোপ
বিস্তারিত
পদ্মপ্রয়াণ
বিগত পুকুর ভরাট করে সূর্যমুখীর চাষ করেছি  সেদিন জলের টান ছিঁড়ে
বিস্তারিত
মেঘ যেখানে ছুঁয়ে যায়
অপরূপ প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য উপভোগ করতে চাইলে সাজেক ভ্যালিতে দু-এক
বিস্তারিত