রাগী রাজা ও কিংশুক

কিংশুক রাজার কথা শুনে হাসে। হাসে আর হাসে। হুহু, হাহা। হাসতেই থাকে। রাজা বলে হাসি থামাও। মন্ত্রী বলে থামাও হাসি। হাসি থামে না। আরও জোরে হাসে কিংশুক। রাজা রেগে বলেন হাসছিস কেন?

এক দেশে ছিল এক রাজা। রাজা ছিলেন ভীষণ রাগী। আজ একে মারতেন। কাল ওকে জেলে পুরতেন। পরশু অমুককে মাথা ন্যাড়া করে ঘোল ঢালতেন। সে রাজ্যে ছিল এক কিশোর ছেলে। তার নাম ছিল কিংশুক। সবাই তাকে জানত বুদ্ধিমান হিসেবে। সে স্কুলে পড়ত। আর বন্ধুদের সঙ্গে দুষ্টুমি করত। একদিন রাজা দেখলেন, কে যেন তার ফুলের বাগান নষ্ট করেছে। রাজা বললেন, কে কে? কার এত দুঃসাহস? তাকে আমি শূলে চড়াব। মন্ত্রী, উজির আর নাজিরÑ খোঁজ তাকে। মন্ত্রী খুঁজছে। উজির খুঁজছে। নাজির বললÑ পেয়েছি।
কিংশুক ছাড়া এ কাজ করার সাহস পাবে কে? ধরে আন তাকে। বেঁধে আন তাকে। মেরে আন তাকে। রাজার সৈনিক কিংশুককে বেঁধে আনল। তাকে ধরে আনল। হাজির করল রাজার সামনে। রাজা বললÑ এত বড় সাহস। আমার ফুলের বাগান নষ্ট করিস। তোর একদিন কি আমার একদিন। তোকে আমি এক বছর বনবাসে রাখব।
কিংশুক রাজার কথা শুনে হাসে। হাসে আর হাসে। হুহু, হাহা।
হাসতেই থাকে। রাজা বলে হাসি থামাও। মন্ত্রী বলে থামাও হাসি। হাসি থামে না। আরও জোরে হাসে কিংশুক। রাজা রেগে বলেনÑ হাসছিস কেন? কিংশুক বলেÑ আপনার জন্য দুঃখ হয় রাজা মশাই। Ñকীসের দুঃখ? রাজার আবার দুঃখ কীসের? Ñ আমাকে তো এক বছর বনবাসে পাঠাবেন। কিন্তু তাহলে আপনাকে তো একশ বছর বনবাসে থাকতে হবে। হাহা Ñরাজার ওপর কথা। আমি বনবাসে থাকব কেন?
আমি কী করেছি? আবারও কিংশুক হাসে। হিহি। রাজা রেগে কাঁইমাই হয়ে যান। কিংশুক বলে, আমি মাত্র ফুলের বাগান নষ্ট করেছি। আপনি তো মানুষের জীবন নষ্ট করে যাচ্ছেন। তাই আপনার সাজা হলে...। রাজা রেগে কাঁপতে থাকেন। আমি মানুষের জীবন নষ্ট করছি? আমার শাস্তি হওয়া উচিত? কিংশুক হাসে। মহারাজ আপনি রাগের বশে কতজনকেই না রাজ্যছাড়া করেছেন। কতজনকেই না মেরেছেন। অথচ তাদের অন্যায় সামান্য। তাদের শাস্তি দিয়ে আপনি অন্যায় করেছেন।
আপনার বিচার রাজাদের রাজা করবেন। রাজার চোখ বিস্ফারিত হয়।
বলে কী। বলে কী। আমি কি অন্যায় করেছি? আমি কি নিষ্ঠুর। এ ছেলে বলে কী? রাজা বলেন, মন্ত্রী, এ ছেলে ঠিক বলেছে? মন্ত্রী আমতা আমতা করে বলেন, মানে, না মানে... জি হুজুর।
রাজা যেন আকাশ থেকে মাটিতে নেমে এলেন।
বললেন, ছেড়ে দাও এ ছেলেকে। আর একে পুরস্কৃত কর সত্যবাদিতার জন্য। আমি আর কারও ওপর রাগব না। অন্যায় করব না।
কাউকে মারব না।
কিংশুক ছাড়া পেল। তার বন্ধুরা ভীষণ খুশি। দেশের মানুষ খুশি। সবাই কিংশুককে বাহবা দিচ্ছে। সেদিন থেকে সুন্দরভাবে রাজ্য চলতে লাগল। রাজ্যের সবাই সুখী। এখন সবাই রাজাকে ভালোবাসেন।


বন্ধু
আবুল বলল, ‘আমাগো ভুল বুইঝ না ভাই। আমরা আসলে...’, ‘তোরা
বিস্তারিত
হেমন্ত দিন
হেমন্ত দিন হরেক রঙিন হরেক রঙের খেলা বনে বনে ফুল-পাখিদের
বিস্তারিত
এলিয়েন এসেছিল
হামীম বসা থেকে দাঁড়িয়ে পড়ল। বললÑ কে তুমি? -হ্যাঁ আমি
বিস্তারিত
হেমন্ত এসেছে
মাঠে মাঠে সোনা ধানে প্রাণটা ফিরে পেল সেদ্ধ চালের গন্ধ
বিস্তারিত
বাংলা মায়ের সবুজ প্রাণ
ইস্টি কুটুম মিষ্টি পাখির দুষ্ট ছানা আকাশ নীলে মেলছে খুশির নরম
বিস্তারিত
হেমন্তের নেমন্ত
ধানের ছড়ায় ঝুলছে সোনা আসলো ঋতু হেমন্ত শিশির কণা চিঠি
বিস্তারিত