একাত্তরের শব্দসৈনিকরা

বেতার মেরামতের দোকান, তার মালিক কী করে বুয়েটের এক ছাত্রের সাহায্য নিয়ে অসাধ্য সাধন করার প্রয়াসে ট্রান্সমিটার তৈরি করে তাতে প্রাণ প্রতিষ্ঠা করলেন এবং তার নাম দিলেন ‘জয় বাংলা বেতার’

একাত্তরের রণাঙ্গনে মুক্তিযোদ্ধাদের পাশাপাশি শিল্পী, কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিকরাও নিজ নিজ স্থান থেকে রেখেছেন অপরিসীম ভূমিকা। তাদের মধ্যে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কর্মীদের অবদান অনস্বীকার্য। আর সেজন্যই স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র নিয়ে বই লিখেছেন সাংবাদিক কামাল লোহানী।
‘মুক্তি সংগ্রামে স্বাধীন বাংলা বেতার’ নামের এ বইয়ের ফ্ল্যাপে কামাল লোহনী লিখেছেন, মুক্তি-সংগ্রামে স্বাধীন বাংলা বেতারের অপরিসীম ভূমিকা ও অবদান অনস্বীকার্য। কে কতটা স্বীকার করল কী করল না, তাতে কিছু যায় আসে না। স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী বেতার কেন্দ্র কেমন করে প্রতিষ্ঠিত হলো, সেখানে কারা ছিলেন, কে কী করতেন, কেমন করেই বা করা হতো; এসব কথা গ্রন্থ আকারে এর আগেও অনেকে লিখেছেন; কিন্তু সব ঘটনার কথা কেউই লেখেননি। আমি ইতিহাসকে বিকৃত না করে ঘটনাপরম্পরা লিখতে চেষ্টা করেছি, তবে সংক্ষিপ্ত আকারে। আর এতে শিল্পী, কলাকুশলীদের ছবি সাধ্যমতো সংগ্রহ করেছি। সবার তালিকাও সংকলিত করেছি স্বাধীন বাংলা বেতার কর্মী পরিষদের সৌজন্যে।
এছাড়া সিরাজগঞ্জে ‘জয় বাংলা বেতার’ নামেও একটি বেতার প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছিল। সে এক দুঃসাধ্য স্বপ্নের বাস্তবায়ন। বেতার মেরামতের দোকান, তার মালিক কী করে বুয়েটের এক ছাত্রের সাহায্য নিয়ে অসাধ্য সাধন করার প্রয়াসে ট্রান্সমিটার তৈরি করে তাতে প্রাণ প্রতিষ্ঠা করলেন এবং তার নাম দিলেন ‘জয় বাংলা বেতার’।
কামাল লোহানী ছাড়াও বইটিতে লেখা রয়েছে আশফাকুর রহমান খান, বেলাল মোহাম্মদ, প্রকৌশলী আমিনুর রহমান, প্রকৌশলী মোঃ রাশিদুল হোসেন, প্রকৌশলী আ ম শরফুজ্জামান, আনোয়ার হোসেন শিকদার ও ইমন শিকদারের। আছে খায়রুল কবীরের সাক্ষাৎকার। তালিকা আছে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী ও কলাকুশলীদের। সঙ্গে তাদের ছবিও দেয়া আছে।
বইটি প্রকাশ করেছে দেশ পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ করেছেন মোস্তাফিজ কারিগর। ১৬০ পৃষ্ঠার এ বইয়ের দাম ৩০০টাকা।
পাওয়া যাবে : কাঁটাবনের কনকর্ড এম্পোরিয়ামের দেশ পাবলিকেশন্সের বিক্রয় কেন্দ্র ও প্রকৃতি প্রকাশনের বিক্রয় কেন্দ্রে। হ

গাজী আবদুল মান্নান


আরব ছোটগল্পের রাজকুমারী
সামিরা আজ্জম ১৯২৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর ফিলিস্তিনের আর্কে একটি গোঁড়া
বিস্তারিত
অমায়ার আনবেশে
সাদা মুখোশে থাকতে গেলে ছুড়ে দেওয়া কালি  হয়ে যায় সার্কাসের রংমুখ, 
বিস্তারিত
শারদীয় বিকেল
ঝিরিঝিরি বাতাসের অবিরাম দোলায় মননের মুকুরে ফুটে ওঠে মুঠো মুঠো শেফালিকা
বিস্তারিত
গল্পের পটভূমি ইতিহাস ও বর্তমানের
গল্পের বই ‘দশজন দিগম্বর একজন সাধক’। লেখক শাহাব আহমেদ। বইয়ে
বিস্তারিত
ধোঁয়াশার তামাটে রঙ
দীর্ঘ অবহেলায় যদি ক্লান্ত হয়ে উঠি বিষণœ সন্ধ্যায়Ñ মনে রেখো
বিস্তারিত
নজরুলকে দেখা
আমাদের পরম সৌভাগ্য, এই উন্নত-মস্তকটি অনেক দেরিতে হলেও পৃথিবীর নজরে
বিস্তারিত