অনলাইনে কোর্স করতে কয়েকটি বিষয় লক্ষ রাখুন

তথ্যপ্রযুক্তির যুগে এখন অনেকেই অনলাইনে ডিগ্রি অর্জনের কথা চিন্তা করছেন। তবে অনলাইনে ডিগ্রি অর্জন করা অত্যন্ত সহজ কাজ বলে অনেকেই মনে করেন। কিন্তু বাস্তবে মাঠে নেমেই তাদের অনেকের স্বপ্নভঙ্গ হয়। অন্য যে কোনো কোর্সের মতোই এ ধরনের অনলাইন কোর্স করার জন্যও প্রয়োজন হয় যথেষ্ট পড়াশোনা ও অধ্যবসায়ের। তাই অনলাইনে কোর্স শুরুর আগেই কয়েকটি বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা করার প্রয়োজন রয়েছে। এসব বিষয় নিয়েই সাতটি করণীয় থাকছে এ লেখায়।
১. আপনার প্রয়োজনীয় বিষয় নির্বাচন করুন। অধিকাংশ মানুষ অনলাইনে ডিগ্রি অর্জনের কারণ হিসেবে একটি লক্ষ্য অর্জনের কথা বলেন। এটি অনেকটা সাধারণ ক্লাসরুম শিক্ষার মতোই। সত্যিকার ক্লাসরুমে শিক্ষায় যেমন মানুষ নির্দিষ্ট উদ্দেশ্যে কোনো একটি কোর্সে ভর্তি হন, তেমনটা অনলাইনেও ঘটে। হেলাফেলা করে কোনো কোর্সে ভর্তি হলে তা আপনার কোনো কাজে আসবে না। খেলার ছলে আপনি কোনো কোর্স সম্পন্ন করতে পারবেন না। এক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজন মেটানোর জন্য নির্দিষ্ট কোর্স পাবেন। অনলাইনে ডিগ্রি অর্জনের জন্য আপনার প্রয়োজনীয় কোর্স খুঁজে বের করুন এবং সে কোর্সের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ রাখুন।
২. আত্মনিয়মানুবর্তিতা মেনে চলুন। সাধারণ ক্লাসরুমের শিক্ষার তুলনায় অনলাইন শিক্ষা কিছুটা ভিন্ন। এখানে নিজে নিজেই সুশৃঙ্খলভাবে শিক্ষা চালিয়ে নিতে হয়। আর এক্ষেত্রে নিয়মানুবর্তিতা মেনে চলার বিকল্প নেই। অনলাইনে নানা উপাদান আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট করতে পারে। আর অনলাইনে আপনার পাঠ্যবিষয়ে সঠিকভাবে দৃষ্টি নিবদ্ধ রাখার জন্য প্রয়োজন আত্মনিয়মানুবর্তিতা।
৩. পড়ার প্রতি ভালোলাগা। অনলাইনে ডিগ্রি অর্জন করতেও অন্য যে কোনো ডিগ্রির মতোই প্রয়োজন পড়ার প্রতি ভালোবাসা। কারণ পড়াশোনা ছাড়া কোনো ভালো ডিগ্রি অর্জন করা অসম্ভব। আর পড়াশোনা ভালো না লাগলে এতে মনোযোগ ধরে রাখা খুবই কঠিন। আপনার যদি পড়াশোনার অভ্যাস না থাকে তাহলে এমন ডিগ্রি অর্জনের চেষ্টা করার আগে এজন্য কিছুদিন চর্চা করে নেয়াই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।
৪. আগে থেকেই শুরু করুন। আপনি যদি অনলাইনে এমন কোনো বিষয়ে পড়াশোনা করতে চান, যে বিষয়ে আপনার আগে জানা নেই, তাহলে এ বিষয়টি আগেই খেয়াল করুন। বিষয় পছন্দ করার পর কোর্স শুরুর আগে থেকেই সে বিষয়ে পড়াশোনা শুরু করুন। পাঠ্যবিষয়ের কিছু অংশ জানা থাকলে তা আপনার প্লাস পয়েন্ট হিসেবে কাজ করবে। এতে আপনি পড়ার বিষয়টি সহজেই ধরতে পারবেন। আর কোর্স থেকে আপনার ঝরেপড়ার আশঙ্কাও এতে অনেক কমে যাবে।
৫. ক্লাসমেটদের সঙ্গে যোগাযোগ। সাধারণ ক্লাসের মতোই অনলাইন ক্লাসেও থাকে ক্লাসমেট। অনলাইনে কোনো কোর্স করার জন্য তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখাটা আপনার অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। কোনো বিষয় না বুঝতে পারলে কিংবা অ্যাসাইনমেন্টের নানা খুঁটিনাটি দিক বিশ্লেষণে ক্লাসমেটদের সঙ্গে আলোচনার কোনো তুলনা হয় না।
৬. সময় নিয়ন্ত্রণে দক্ষতা। অনলাইনে ডিগ্রি অর্জনের জন্য সময়ের সর্বোচ্চ ব্যবহারে দক্ষতা অর্জনের প্রয়োজনীয়তা অত্যন্ত বেশি। অনেকেই অনলাইন কোর্সে ভর্তির কারণ হিসেবে ব্যস্ততা, সময় না পাওয়া কিংবা বিদেশে অবস্থানের কথা বলেন। আর এ সমস্যাগুলো যে কোর্স শুরুর পর কেটে যাবে, এমনটা নয়। এরপরও ব্যস্ততার মাঝে সময় বের করার প্রস্তুতি নিয়ে রাখতে হবে। আপনি যদি ঠিকঠাক সময় নিয়ন্ত্রণ করতে না পারেন তাহলে অনলাইনে কোর্স করার চেষ্টা বিফল হওয়ার আশঙ্কাই বেশি।
৭. বাস্তবে প্রয়োগ করুন শিক্ষা অনলাইন। শিক্ষা থেকে পাওয়া জ্ঞান বা দক্ষতা যেন হারিয়ে না যায়, সেজন্য ক্রমাগত চর্চা করতে হবে। ব্যক্তিগত জীবনে কিংবা কর্মক্ষেত্রে এ শিক্ষা প্রয়োগ করার চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে। অন্যথায় অর্জিত দক্ষতা বা জ্ঞান দ্রুত মলিন হয়ে যেতে পারে।


আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ পেলেন ৯০ প্রাণী
পোলট্র্রির বিজ্ঞানসম্মত স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা, সঠিকভাবে রোগবালাই নির্ণয়, চিকিৎসা এবং রোগ
বিস্তারিত
সবার উপরে বাবা-মা
যে-কোনো মানুষের গায়ে হাত তোলাই অপরাধ। আর সন্তান হয়ে বাবা-মায়ের
বিস্তারিত
স্মৃতির মানসপটে যুক্তরাজ্য সফর
বিদেশে যাওয়ার অভিজ্ঞতা হয়তো অনেকেরই হয়ে থাকে। তবে কলেজের প্রতিনিধি,
বিস্তারিত
ব্যবসার ধারণা : গড়তে চাইলে
নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে আপনাকে উদ্যোগী হতে হবে। আর উদ্যোক্তা
বিস্তারিত
৭৫ শতাংশ বৃত্তিতে আইটি ও
বিভিন্ন কারণে যারা আইটিতে দক্ষতা উন্নয়নের সুযোগ থেকে বঞ্চিত তাদের
বিস্তারিত
লক্ষ্য যখন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার বিপরীতে ক্রমাগত উর্বরা জমির পরিমাণ কমছে। জনসংখ্যার এ
বিস্তারিত