৬৩ বছর ধরে বালি খান তিনি!

সারাদিন কাজ করেন কৃষিজমিতে। বয়স তার ৭৮ বছর। কিন্তু এই বয়সেও তিনি দিব্যি সুস্থ্য আছেন। অন্য যে কোনও বৃদ্ধার তুলনায় অনেক শক্ত তার দেহ। শরীরে এখনও থাবা বসাতে পারেনি বয়স ঘটিত কোন রোগ। তার নাম বারাণসী নিবাসী কুসমাবতী। ভারতীয় এই নারীর দাবি, প্রতিদিন নিয়মিত বালি খাওয়ার অভ্যাসই তার সুস্থতার চাবি!

শুনতে যতই অদ্ভুত লাগুক কুসমাবতী ৬৩ বছর ধরে নিয়মিত বালি খেয়ে আসছেন। দিনে পাঁচ-ছ’বার দু’মুঠো করে বালি খান তিনি। এই অভ্যাসের ফলে তার শরীর অসুস্থ হওয়ার পরিবর্তে বরং নীরোগ থাকে দাবি তার।

কুসমাবতী দেবী জানালেন, তার বয়স যখন বছর পনেরো, তখন একবার দুরারোগ্য পেটের অসুখে শয্যাশায়ী হয়ে পড়েন তিনি। কোনও এক আত্মীয় পরামর্শ দেন, বালি খেলেই রোগমুক্তি ঘটবে। পরামর্শ মতো বালি খেতে শুরু করেন কুসমাবতী। কয়েক দিনের মধ্যেই সেরে যায় রোগ। সেই শুরু। তার পর ৬৩ বছর কেটে গেছে, কিন্তু বালি খাওয়ার অভ্যাস কুসমাবতী ছাড়েননি।

তার ধারণা, বালির মধ্যে এমন‌ কোনও গুণ রয়েছে, যা তাকে সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। কারণ তার দাবি, নিয়মিত বালি খাওয়ার ফলেই এই বয়সেও একেবারে সুস্থ রয়েছে তার দেহ।

বালি স্বাদ সম্পর্কে কুসমাবতী জানান, বালি অনেকটা লবণ-চিনির মিশ্রণ যেমন হয়, তেমনই নোনতা-মিষ্টি স্বাদের।

বৃদ্ধার ছেলে রমেশ বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই মা-কে বালি খেতে দেখছি। আর কোনও দিন এর জন্য মায়ের শরীর খারাপ হতে দেখিনি। আর মা যে শুধু বালিই খান, তা তো নয়, অন্যান্য খাবারের পাশাপাশি কয়েক মুঠো বালিও খেয়ে নেন। অনেকটা ওষুধের মতোই। মায়ের বিশ্বাস, বালি খেলে শরীর ভালো থাকে।’

সূত্র : ডেইলি মেইল।


পেটের ভেতরে এত কিছু! হতভম্ব
পেটে অসহ্য ব্যথা। সন্দেহ হওয়ায় এক্স-রে করে দেখতে বলেন চিকিত্সক।
বিস্তারিত
যে কারণে জরায়ু কেটে ফেলছেন
ঋতুচক্রের সময়ে মালিকের নানা গঞ্জনা শুনতে হয়, বেতন কাটা যায়।
বিস্তারিত
জানেন কালো বিড়াল অশুভ কেন?
সুদূর প্রাচীন কাল থেকেই মানুষের মধ্যে কিছু প্রচলিত বিশ্বাস রয়েছে।
বিস্তারিত
ভবিষ্যতে খাবার সংকটে পোকামাকড়ই সমাধান!
টিভি পর্দার জনপ্রিয় চরিত্র বেয়ার গ্রিলসকে নিশ্চয়ই চেনা আছে। প্রতিকূল
বিস্তারিত
নারীদের স্তন কেটে বিক্রির ব্যবসা,
নারীদের স্তন কেটে নিয়ে তা বিক্রি করে দিতেন এক লোক।
বিস্তারিত
অতিরিক্ত সুন্দরী হওয়ায় ট্রাফিকের জরিমানা!
গাড়িতে বসা অতিরিক্ত সুন্দরী নারী, আর এ কারণেই জরিমানা করে
বিস্তারিত