মুখে মেসতার সমস্যা

কে না চায় একটি সুন্দর মুখমন্ডল। আদিকাল থেকেই  দাগহীন সুন্দর মুখমন্ডল সবারই কাম্য। কিন্তু নাকের পাশে বাদামি বা কালো রঙের দাগ মুখের সৌন্দর্যকে ম্লান করে দেয় অনেক সময়। এ দাগগুলোকে মেসতা বলা হয়। বলা যায়, মেসতা মুখ বা ত্বকের সৌন্দর্য বিনাশকারী। বাদামি ও কালো দাগ বা মেসতা পড়ার বাস্তব কোনো কারণ খুঁজে পাওয়া যায়নি। সাধারণত সূর্যের আলোর প্রভাব, বংশগত, জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি, ডিম্বাশয়ের সমস্যা, এন্ড্রোক্রাইন সমস্যা, লিভারের সমস্যা, পুষ্টিহীনতা ও কিছু কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় মেসতা বা কালো দাগ পড়তে পারে।

মেসতার চিকিৎসা বা দূর করার উপায়  
সূর্যের আলোর প্রভাব থেকে মুক্ত থাকতে হবে। হাইড্রোকুইনন ক্রিম লাগাতে হবে। এছাড়া মেসতার আধুনিক চিকিৎসার মধ্যে দুইটি চিকিৎসা বর্তমানে বেশি লক্ষ্য করা যায়। এর একটি হলো কেমিক্যাল পিল ও দ্বিতীয়টি লেজার। একজন স্কিন স্পেশালিস্ট ডাক্তার হিসেবে আপনাকে জানাতে চাই, চিকিৎসা শুধু ভালো থাকার নিশ্চয়তা দিতে পারে; কিন্তু চিরদিনের জন্য মেসতা ভালো হওয়ার নিশ্চয়তা দিতে পারে না। আপনার যদি আর্থিক অবস্থা ভালো থাকে তাহলে সাময়িক ভালো থাকার জন্য কসমেটিক চিকিৎসা করাতে পারেন। এটি শরীরের অন্য কোনো ক্ষতি করে না। আবার সব রোগীর ক্ষেত্রে চিকিৎসা করালে মেসতা ভালো হবে না। এক্ষেত্রে যাদের এপি ডার্মাল মেসতা (স্কিনের উপরের লেয়ারে থাকে) তারা সম্পূর্ণ ভালো থাকবেন, যাদের ডার্মাল মেসতা স্কিনের নিচের লেয়ারে থাকে তারা একটু ভালো হবেন।
যাদের মিক্সড মেসতা স্কিনের উপরে ও নিচে উভয় লেয়ারে থাকে, তাদের মেসতার উন্নতি হবে। বর্তমানে বিশেষ ধরনের এক যন্ত্রের সাহায্যে কোনটা কোন ধরনের মেসতা তা নির্ণয় করা যায়। আর এ যন্ত্রের সাহায্যে পরীক্ষা করে আপনি অনায়াশেই চিকিৎসকের কাছ থেকে জেনে নিতে পারেন আপনার মেসতা কতটুকু ভালো হওয়া সম্ভব।

মেসতার প্রাথমিক চিকিৎসা 
    যদি রোগের কারণে হয় তবে সে রোগের চিকিৎসা করতে হবে।
    যদি কোনো ওষুধের কারণে হয় সে ওষুধ সেবন বন্ধ করতে হবে।
    যদি প্রেগন্যান্সির কারণে হয়, ডেলিভারির ৬ মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।
    চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ মতো ক্রিম ব্যবহার করতে হবে।
    ভালো হওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

 

সহকারী অধ্যাপক (চর্ম-যৌন-অ্যালার্জি)
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল
কামাল স্কিন সেন্টার
০১৭১১৪৪০৫৫৮


পাবনায় চরাঞ্চলে সবজি চাষে কৃষকের
পাবনায় পদ্মা নদীর মাঝে জেগে উঠা চরে এবারে সবজির বাম্পার
বিস্তারিত
জৈন্তাপুরের লাল শাপলার বিল পর্যটকদের
একটি পিচঢালা পথ চলে গেছে গ্রামের শেষ মাথায়। অনেক দূর
বিস্তারিত
জীবনযুদ্ধে থেমে নেই জয় মালা
নাম জয়মালা বেগম স্বামী মৃত হালু মিয়া। সংসারে চার মেয়ে
বিস্তারিত
সফল উদ্যোক্তা আলিয়াহ ফেরদৌসি
চেনা গণ্ডির সীমানা ভেঙে বেরিয়ে আসছেন নারীরা। কৃষিকাজ থেকে শুরু
বিস্তারিত
রংপুর তাজহাট জমিদার বাড়ি ইতিহাস-ঐতিহ্যের
রংপুর মহানগরীর  দক্ষিণ পূর্বে অবস্থিত তাজহাট জমিদার বাড়ি। রংপুর মূল
বিস্তারিত
ডায়াবেটিক প্রতিরোধে স্টেভিয়া: চিনির চেয়ে
বিরল উদ্ভিদ স্টেভিয়া এখন বাংলাদেশে পাওয়া যাচ্ছে। দেশের বিভিন্ন এলাকায়
বিস্তারিত