বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়

 

পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়
পৃথিবীর সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় লেখাপড়া করার স্বপ্ন বুকে লালন করেন শত শত মেধাবী তরুণ। অনেকে হয়তো তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারেন, অনেকে আবার পারেন না। তবে প্রত্যেকের মধ্যেই পৃথিবীর সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলো সম্পর্কে জানার আকাক্সক্ষা তৈরি হয়। কৌতূহলী সব মানুষের জন্য দেয়া হলো ২০১৪ সালে পৃথিবীর সেরা ১০ বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা।
হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় : আমেরিকার বিখ্যাত হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৪ সালেও পৃথিবীর সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বীকৃতি পেয়েছে। ঐতিহাসিকভাবে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্ব অপরিসীম। এ বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৬৩৬ সালে। পৃথিবীর অনেক জ্ঞানীগুণী মানুষের জন্ম হয়েছে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। নোবেলবিজয়ী থেকে আরম্ভ করে পৃথিবীর বড় সব পুরস্কার বিজয়ীদের অনেকেই লেখাপড়া করেছেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে। উচ্চশিক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে প্রাচীন প্রতিষ্ঠান হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়। মেধাবী শিক্ষার্থীর অনেকরই জীবনের লক্ষ্য থাকে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করা।
ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি) : আমেরিকার আরেকটি বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি)। ক্যামব্রিজে অবস্থিত এ বিশ্ববিদ্যালয়টি মূলত  শরীরবিদ্যা ও ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের জন্য বিখ্যাত। তবে বর্তমানে জীববিজ্ঞান, অর্থনীতি, ভাষাবিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনাও এখানে পড়ানো হয়। ১৮৬১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে শিল্পায়ন বৃদ্ধির সময় প্রতিষ্ঠিত হয় এ বিশ্ববিদ্যালয়টি। বাংলাদেশের কিছু মেধাবী শিক্ষার্থীও বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষালাভ করছেন। তরুণ মেধাবীদের কাছে এমআইটি এক বিশাল স্বপ্নের অপর নাম।
স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় : স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় যুক্তরাষ্ট্রে ক্যালিফোর্নিয়ায় অবস্থিত আরেকটি বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়। এটি মূলত গবেষণার জন্য বিখ্যাত। স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৮৫ সালে। ১৮৯১ সালের ১ অক্টোবর ৫৫৫ জন ছাত্র নিয়ে এ প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা শুরু করে। ১৯০৫ সালে এক ঘূর্ণিঝড়ে বিশ্ববিদ্যালয়টি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরে ১৯০৬ সালে তা আবার প্রতিষ্ঠা করা হয়। পৃথিবীর বিখ্যাত লোকদের অনেকেই এ বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেছেন। তরুণদের কাছে এ বিশ্ববিদ্যালয়টিও একটি স্বপ্নের নাম।
ইউনিভার্সিটি অব ক্যামব্রিজ : ইংরেজি ভাষাভাষী বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এ বিশ্ববিদ্যালয়টি পৃথিবীর দ্বিতীয় প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। পৃথিবীর সব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এটি তৃতীয় প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। ইউনিভার্সিটি অব ক্যামব্রিজ প্রতিষ্ঠিত হয় ১২০৯ সালে। বর্তমানে ৩১টি কলেজ এ বিশ্ববিদ্যালয়ের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হচ্ছে। ৯০ জন নোবেলবিজয়ী এ প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংযুক্ত ছিলেন। যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে প্রাচীন ও বিখ্যাত এ বিশ্ববিদ্যালয়টি অনেক তরুণেরই স্বপ্নের বিশ্ববিদ্যালয়।
ইউনিভার্সিটি অব অক্সফোর্ড : যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডে অবস্থিত ইউনিভার্সিটি অব অক্সফোর্ড পৃথিবীর আরেকটি প্রাচীন ও বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়। যদিও এ বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার সঠিক তারিখ সম্পর্কে জানা যায়নি। তবে ধারণা করা হয়, ১০৯৬ সালে এ বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ইংরেজি ভাষাভাষী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে ইউনিভার্সিটি অব অক্সফোর্ড পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন। পৃথিবীর সব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে এটি দ্বিতীয় প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। ৩১টি কলেজ নিয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়টি পরিচালিত হয়ে থাকে। উচ্চাকাক্সক্ষী মানুষদের কাছে এ বিশ্ববিদ্যালয়টিও এক স্বপ্নের নাম।
ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া : বার্কলি যুক্তরাষ্ট্রের আরেকটি বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া। এ বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৬৮ সালে। ১০টি ক্যাম্পাস নিয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়টি পরিচালিত হচ্ছে। এর মধ্যে ৯টি আন্ডারগ্র্যাজুয়েট ও গ্র্যাজুয়েট ক্যাম্পাস, আর একটি প্রফেশনাল। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় এ বিশ্ববিদ্যালয়টি অবস্থিত। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মেধাবী তরুণদের কাছে এ বিশ্ববিদ্যালয়টিও একটি স্বপ্নের নাম।
প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয় : যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সির প্রিন্সটনে এ বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থিত। বিশ্ববিদ্যালয়টি ১৭৪৬ সালে কলেজ অব নিউজার্সি নামে প্রতিষ্ঠিত হয়। আমেরিকান বিপ্লবের আগে প্রতিষ্ঠিত কলোনিয়াল ৯টি কলেজের মধ্যে প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয় একটি। বর্তমানে সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে এটি পৃথিবীর ষষ্ঠ বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে হিউম্যানিটিজ, সোশ্যাল সায়েন্স, ন্যাচারাল সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ানো হয়। তরুণ মেধাবীদের কাছে এটিও একটি প্রত্যাশিত বিশ্ববিদ্যালয়।
ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয় : ১৭০১ সালে কানেকটিকাট উপনিবেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়। উচ্চশিক্ষার জন্য এ বিশ্ববিদ্যালয়টি আমেরিকার তৃতীয় প্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়টি বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাটের নিউ হ্যাভেনে অবস্থিত। এটি পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম একাডেমিক ইনস্টিটিউশন। পৃথিবীর ৫১ জন নোবেলবিজয়ী এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংযুক্ত ছিলেন। মেধাবী তরুণদের কাছে এ বিশ্ববিদ্যালয়টিও একটি স্বপ্নের নাম।
ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি : ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি সাধারণত ক্যালটেক নামে পরিচিত। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার প্যাসেনাডোতে এ বিশ্ববিদ্যালয়টি অবস্থিত। ১৮৯১ সালে প্রিপারেটরি অ্যান্ড ভোকেশনাল স্কুল হিসেবে এ বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ১৯১০ সালে প্রিপারেটরি ও ভোকেশনাল স্কুল দুইটিকে আলাদা করা হয়। ১৯২১ সালে প্রতিষ্ঠানটি ক্যালিফোর্নিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি নাম ধারণ করে। পৃথিবীর বিখ্যাত এ বিশ্ববিদ্যালয়টি অনেক মেধাবী তরুণের আকাক্সক্ষার বিশ্ববিদ্যালয়।
ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া : এ বিশ্ববিদ্যালয়টি যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসের ওয়েস্টউডে অবস্থিত। এটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯১৯ সালে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৬৮ সালে। বিশ্ববিদ্যালয়টি পাঁচটি আন্ডারগ্রাজুয়েট কলেজ, সাতটি প্রফেশনাল স্কুল ও চারটি প্রফেশনাল হেলথ সায়েন্স স্কুল নিয়ে পরিচালিত হয়ে আসছে। উচ্চশিক্ষার পাদপীঠ এ বিশ্ববিদ্যালয়টিও শত শত তরুণের আকাক্সক্ষার বস্তু। সূত্র : ইন্টারনেট


খবরটি পঠিত হয়েছে ১৪৭৮০ বার

ঘরে বসে অনলাইনে বাংলা বই
যে কোনো কেনাকাটা এখন অনলাইনেই সারতে পারেন। বইয়ের মতো প্রয়োজনীয়
বিস্তারিত
তরুণ উদ্যোক্তাদের যে বইগুলো অবশ্যই
ব্রিনের ভাষ্যমতে, ‘নিজের কাজের ক্ষেত্রে তো রিচার্ড পি ফেনিম্যান সফল
বিস্তারিত
একুশের চেতনা জাগুক প্রাণে
চলছে ফাল্গুন। পলাশের লালিমায়, কৃষ্ণচূড়ার লাল ফুল পাপড়ি মেলে দিয়েছে
বিস্তারিত
ভালো শিক্ষার্থী হতে যে নিয়মগুলো
মনোযোগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে একজন
বিস্তারিত
আনন্দময় শিক্ষা সফর
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের জন্য ২২ থেকে ২৭
বিস্তারিত
অস্ট্রেলিয়ায় পড়তে চাইলে
বিদেশে উচ্চশিক্ষা অর্জনের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের কাছে যে ক’টি দেশ
বিস্তারিত