‘তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার শুদ্ধাচার চর্চায় ভূমিকা রাখবে’

দেশের মানুষকে দেশের স্বার্থেই সকল আইন-কানুন সম্পর্কে অবহিত করতে হবে বলে মন্তব্য করে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক বলেছেন, জনগণকে সরকারের সকল কর্মকান্ড সম্পর্কে অবগত করা এবং সরকারি সেবা প্রদান ও প্রাপ্তি সহজলভ্য করার জন্য আমাদেরকে নিরলসভাবে কাজ করলেই শুদ্ধাচার প্রতিষ্ঠা করা সহজতর হবে। এজন্য তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের কোন বিকল্প নেই। তথ্যপ্রযুক্তির প্রয়োজনীয় ব্যবহার শুদ্ধাচার চর্চায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’

আজ বুধবার সকালে আইসিটি টাওয়ারস্থ বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল অডিটোরিয়ামে ‌‘জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল বাস্তবায়ন’ সংক্রান্ত এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা আজ সর্বক্ষেত্রে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার করছি বলেই দেশে আজ উল্লেখযোগ্য মাত্রায় দুর্নীতি, হয়রানি কমেছে। কারণ, ডিজিটাল বাংলাদেশের মূল অনুষঙ্গই হচ্ছে ই-গভার্নেন্স। ই-গভার্নেন্স প্রতিষ্ঠায় জোর দেয়ার ফলে আজ আমরা উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত ই-ফাইলিং কর্মকান্ড নিয়ে যেতে পেরেছি এবং প্রশাসনের সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে ই-গভার্নেন্স বাস্তবায়নে কাজ করছে। ফলে, সরকারি সেবা প্রাপ্তিতে জনগণের সময় ও অর্থ অপচয় রোধ হচ্ছে এবং হয়রানি কমেছে। বেড়েছে সেবার মান।’

তিনি আরো বলেন, সরকারি কর্মকর্তারাই ডিজিটাল বাংলাদেশ স্লোগানকে ধারণ করেছে বলে আজ ৩৫ শতাংশ সেবা আমরা অনলাইনে নিয়ে আসতে পেরেছি। আমি আস্থাশীল ও বিশ্বাস করি যে, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক মাননীয় উপদেষ্টা যে ২০২১ সালের মধ্যে সরকারি সেবার ৯০ শতাংশ অনলাইনে নিয়ে আসার যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তা সর্বোত্তম শুদ্ধাচার চর্চার মাধ্যমে আপনারাই বাস্তবায়িত করবেন।’
 
সরকারি কর্মকর্তাদের বিদ্যুৎ ব্যবহারে সচেতন হওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা এবং দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানানোর ফলে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবার ইতিবাচক সাড়া দান ও সাশ্রয়ের কথা উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ‘একটি দুটি মানসিক পরিবর্তন বড় ধরণের জাতীয় পরিবর্তন সৃষ্টি করে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কিছু কিছু যুগান্তকারী ও বাস্তবমুখী সিদ্ধান্তের ফলে সরকারি অফিসগুলো এখন জনবান্ধব অফিসে পরিণত হয়েছে। এখন সরকারি কর্মকর্তাগণ সততা ও নিষ্টার সহিত কাজ করার পরও আউট অব বক্স চিন্তা করছে। তাদের মানসিকতা পরিবর্তিত হয়েছে। তাই, নিজের মানসিকতার পরিবর্তনই সবচেয়ে বড় শুদ্ধাচার।’

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদারের সভাপতিত্বে উক্ত সেমনিারে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. হারুনুর রশিদ, অতিরিক্ত সচিব পার্থ প্রতিম দেব, অতিরিক্ত সচিব সুশান্ত কুমার সাহা, আইসিটি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বনমালী ভৌমিকসহ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ। 


খবরটি পঠিত হয়েছে ৫৫২০ বার

স্যামসাংয়ের প্রধান গ্রেফতার
প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হাইকে ঘুষ প্রদানসহ নানা দুর্নীতির অভিযোগের ভিক্তিতে
বিস্তারিত
লেখকের সন্ধানে ‘ওয়াও রাইটার্স’
যারা নিজেদের লেখার ক্ষমতাকে সবার সামনে তুলে ধরতে উন্মুখ হয়ে
বিস্তারিত
বিআইজেএফের চড়ুইভাতি
তথ্য-প্রযুক্তিবিষয়ক সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরামের (বিআইজেএফ) সদস্যদের নিয়ে
বিস্তারিত
মাগুরায় আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প
মাগুরা সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে গতকাল মঙ্গলবার আইসিটি ক্যারিয়ার ক্যাম্প
বিস্তারিত
ভালোবাসা দিবস উপলক্ষ্যে রবি’র বিশেষ
মোবাইল অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেড বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষ্যে মাসব্যাপী
বিস্তারিত
ড্যাফোডিলে ‘তথ্যপ্রযুক্তি শিক্ষায় ওয়ার্ল্ড কংগ্রেস
তথ্যপ্রযুক্তি শিল্পের উদ্যোক্তা, সরকারি, আধা-সরকারি, বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান, কর্পোরেশন ও স্বায়ত্ত্ব
বিস্তারিত