মৃত বাবার সঙ্গে ১২ বছর!

মৃত মানুষ নাকি চা-কফি-সিগারেট গ্রহণ করেন, এমনকি টয়লেটেও যান! হ্যাঁ, শুনতে বিস্ময়কর মনে হলেও ইন্দোনেশিয়ার তোরাজান এলাকার মানুষ এটাই বিশ্বাস করে। তাইতো তারা মানুষের দেহকে বছরের পর বছর বাড়িতে রাখেন। তাকে প্রতিদিন নিয়মিত খবর দেন, দৈনন্দিন জীবনের সকল আচারে তাকে নিয়ে অংশগ্রহণ করেন।

বিবিসির প্রতিনিধি শেহের জানডের প্রতিবেদনে এমন সব তথ্য উঠে এসেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, এলাকায় মৃত্যুকে জীবনের শেষ বলে মনে করা হয় না। এখানে মৃত্যু মানে অপর আরেক জীবনের শুরু।

তোরাজানবাসী মৃত মানুষকে অসুস্থ মানুষ হিসেবে বিবেচনা করে। সেখানে বসবাস করা অর্ধেকের বেশি মানুষ মনে করে মৃত্যুর পরও অনেকে জীবিত থাকে। তারা মৃত মানুষের শরীরের সাথে এমন কিছু কার্যকলাপ করে যে, আপনি দেখলে ভয় পাবেন।

এমনি এক পরিবারকে নিয়ে প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে, মামাক লিসা যিনি প্রায় ১২ বছর ধরে মৃত বাবা পাউলো সিরিনডার সঙ্গে বাস করছেন। তাকে যখন জিজ্ঞাসা করা হলো আপনার বাবা কোথায়? তখন তিনি বলেন, আমার বাবা অসুস্থ ওই ঘরে রয়েছে? একটি ঘর দেখিয়ে দিয়ে বলেন।

প্রতিবেদক বলেন, ঘরটি বেশ রঙ করা জাঁকজমক। তবে একটি খাটিয়া ছাড়া আর কিছু নেই। যেখানে একটি মৃত মানুষ শুয়ে আছেন। বাড়ির ছোট ছেলেরা নানার পাশে খেলা করছে!

লিসা বলেন, আমার বাবা বেশ কয়েক বছর আগে মারা গেছেন। কিন্তু তাতে কি? আমরা মৃত দেহের সঙ্গে বাস করে অভ্যস্ত। ভয়ের কিছু আজও দেখনি। 

ওই এলাকার প্রথা অনুযায়ী, প্রায় ৫০ জন পুরুষ বাঁশ দিয়ে একটি কফিন তৈরি করে। এরপর সেই কফিনে লাশ রেখে আসে। তখন সেই কফিনের ওপর বিভিন্ন ধরণের খাবার ও সিগারেট রেখে আসেন। পরে কফিনসহ সেই লাশ পানিতে ভাসিয়ে দেয়া হয়।


খবরটি পঠিত হয়েছে ১৪০০০ বার

ঐতিহ্য হারাচ্ছে তালের নৌকা
চাঁদপুরে এক সময়ের ঐতিহ্যবাহী তালের নৌকার কদর এখনও কমেনি। এখন
বিস্তারিত
প্রজাপতির পাখায় ট্রান্সমিটার
প্রজাপতি পাখির মতো পরিযায়ী হতে পারে। উড়ে উড়ে পাহাড়-পর্বত, নদীনালা
বিস্তারিত
হাতই যখন চাবি
কখনও কি ভেবে দেখেছেন- যে বন্ধ দরজার সামনে হাত মেলে
বিস্তারিত
হারানো হীরার আংটি নিয়ে এল
মাটির গভীর থেকে খামারের মালিকের জন্য একটি হীরার আংটি নিয়ে
বিস্তারিত
স্বপ্ন সম্মোহনে আপনি যেমন
আমরা অনেক সময় স্বপ্ন দেখি। স্বপ্নের অর্থ খুঁজে অনেক কিছু
বিস্তারিত
সাংবাদিক ও গণযোগাযোগ কর্মী হতে
আধুনিক জীবনে ইলেকট্রনিক কিংবা প্রিন্ট মিডিয়ার অনুপস্থিতি আর কল্পনাও করা
বিস্তারিত