কয়েকটি মহৎগুণ

তিনটি গুণ এমন রয়েছে, যেগুলো আল্লাহ তায়ালা ও রাসুল (সা.) এর ভালোবাসার প্রমাণবাহী এবং তাদের কাছে প্রিয় হওয়ার আলামতÑ ১. হরহামেশা সত্য বলা, কখনোই মিথ্যার আশ্রয় না নেয়া। ২. কারও আমানত আদায়ের ক্ষেত্রে গড়িমসি না করা। ৩. প্রতিবেশী-স্বজনদের সঙ্গে ভালোবাসাপূর্ণ ব্যবহার করা। 

উপরোক্ত তিনটি গুণ যার মধ্যে পাওয়া যাবে, প্রকৃতপক্ষেই সে আল্লাহ তায়ালা ও রাসুল (সা.)মকে ভালোবাসে। (বাইহাকি, শুয়াবুল ইমান : ২/২০১)।
রাসুল (সা.) একবার অজু করছিলেন। সাহাবায়ে কেরামরা বিষয়টি জানতে পেরে দ্রুত ছুটে আসেন রাসুল (সা.) এর অজুস্থলে এবং তাঁর অজুতে ব্যবহৃত পানি নিয়ে নিজেদের গায়ে মাখতে থাকেন। যাদের পানি মিলছিল না তারা অপর ভাইয়ের ভেজা অঙ্গের আর্দ্রতা থেকে নিজেদের অঙ্গগুলো মাসেহ করছিলেন রাসুল (সা.) এর ব্যবহৃত পানি থেকে বরকত নেয়ার জন্য। রাসুল (সা.) তাদের কাছে এর কারণ জানতে চাইলে তারা বলেন, আল্লাহ তায়ালা এবং তার রাসুলের প্রতি অত্যধিক ভালোবাসা আমাদের এ কাজে উৎসাহিত করেছে। তখন রাসুল (সা.) বললেন, যে ব্যক্তি আল্লাহ তায়ালা এবং তার রাসুলের ভালোবাসার পিয়াসী হয় অথবা এটা চায় যে, আল্লাহ তায়ালা ও তার রাসুল (সা.) তাকে প্রিয় করে নিক, তার জন্য আবশ্যক হলো নিম্নবর্ণিত তিনটি কাজকে মজবুতভাবে আঁকড়ে ধরাÑ
১. যখনই কিছু বলবে, সত্য বলবে। মিথ্যা যেন তোমাদের থেকে কখনোই প্রকাশ না পায়। কেননা যে মিথ্যা বলায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ে, তার অন্তর থেকে আল্লাহর ভয় দূর হয়ে যায়। আর যার অন্তরে আল্লাহর ভয় নেই, তার অন্তরে আল্লাহর প্রতি ভালোবাসাও স্থান পায় না। কারণ আল্লাহ ও তার রাসুলের প্রতি ভালোবাসা এবং মিথ্যা কখনোই এক অন্তরে একসঙ্গে একত্রিত হতে পারে না। 
রাসুল (সা.) সত্য বলার প্রতি উৎসাহ প্রদানপূর্বক বলেন, ‘তোমরা সত্যকে মজবুতভাবে আঁকড়ে ধর। কেননা এ সত্যের মাধ্যমে তোমরা জান্নাতে পৌঁছতে পারবে। যখন আল্লাহর কোনো বান্দা সত্য বলতে অভ্যস্ত হয়ে যায় এবং সর্বদা সত্যের প্রসারের চিন্তায় থাকে, একটা সময় আল্লাহ তায়ালা ওই ব্যক্তির নাম সত্যবাদীদের খাতায় লিখে দেন এবং তাকে প্রিয়ভাজনদের দলভুক্ত করে নেন। এর বিপরীতে মিথ্য পাপাচার, অন্যায় এবং মন্দ স্বভাবের পরিচায়ক। যে ব্যক্তি মিথ্যায় অভ্যস্ত হয়ে পড়ে, আল্লাহ তায়ালা তার নামকে মিথ্যাবাদীদের খাতায় লিখে দেন।’ 
রাসুল (সা.) মোনাফেকের চার আলামতের একটি মিথ্যাকেও সাব্যস্ত করেছেন। মিথ্যা থেকে এমন উৎকট-বিশ্রী দুর্গন্ধ বের হয়, যার কারণে ফেরেশতারা মিথ্যাবাদী থেকে শত মাইল দূরে চলে যান।
২. আমানত ও অন্যের হকের যথাযোগ্য আদায় করা। আল্লাহ তায়ালা এবং তার রাসুলের ভালোবাসা অর্জনের দ্বিতীয় কাজ হলো, তোমাদের আমানতদার হয়ে যাওয়া। যখন তোমাদের কাছে কারও আমানত রক্ষিত থাকে অথবা তোমরা কারও থেকে কর্জ-ধার নাও, কিংবা কারও কাজের দায়িত্বভার তোমাদের ওপর ন্যস্ত হয়, কারও কাজের মূল্য তোমাদের ওপর বাকি থাকে, তাহলে এসব হক তার মালিকের কাছে পৌঁছে দেয়ার ক্ষেত্রে সামান্যতমও বিলম্ব করো না। বরং কোনো ধরনের কথাবার্তা ও টালবাহানা না করে তাদের হক তাদের কাছে পৌঁছে দাও। কারও থেকে যেন কোনোরূপ অভিযোগের সুযোগ না আসে। এ কাজগুলো এ কথার প্রমাণ দেবে যে, তোমাদের অন্তরে আল্লাহর ভয় রয়েছে।
যে ব্যক্তি আমানত ও অন্যের হক আদায়ের ক্ষেত্রে বিলম্ব-টালবাহানা করে, তার অন্তরে আল্লাহর ভয় থাকে না। অন্যথায় কখনোই এমন গর্হিত কাজের সাহস দেখাত না। কেননা যদি অন্তরে আল্লাহর ভয় থাকতই, তাহলে বিলম্বের ক্ষেত্রে সে পেরেশান হয়ে যেত যে, আমার রব আমাকে দেখছেন এবং আমার প্রিয় রাসুলের সুন্নত আমার কারণে মিটে যাচ্ছে। আমি কখনোই এমনটি হতে দিতে পারি না! এ অবস্থায় হকের মালিকের কাছে তার হক জলদি পৌঁছে দিত। যদি এমনটি না করে, বুঝে নিতে হবে যে তার অন্তরে আল্লাহ তায়ালা ও তাঁর রাসুলের প্রতি বিন্দুমাত্র ভালোবাসা নেই। আল্লাহর রাসুল (সা.) ও এমন ব্যক্তিকে পছন্দ করেন না।
৩. তৃতীয় কাজ হলো, প্রতিবেশীদের সঙ্গে ভালোবাসাসুলভ আচরণ করা। যদি তোমাদের অন্তরে প্রতিবেশীদের প্রতি প্রীতি-ভালোবাসা না থাকে, তাহলে আল্লাহ তায়ালা ও তার রাসুলের ভালোবাসার দাবি মিথ্যা- ভণিতা! আর যদি প্রতিবেশীদের খোঁজখবর নেয়া, তাদের আল্লাহর জন্য ভালোবাসা এবং তাদের কল্যাণকামিতা পাওয়া যায়, তাহলে তোমাদের দাবি সত্য-সঠিক। কেননা ইসলামের শিক্ষায় প্রতিবেশীর হকের প্রতি অনেক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। 
রাসুল (সা.) বলেন, ‘জিবরাঈল (আ.) কে প্রতিবেশীর হকের ব্যাপারে এ পরিমাণ গুরুত্বের সঙ্গে অসিয়ত করতে থাকেন, আমার আশঙ্কা হতে থাকে যে, প্রতিবেশীদের উত্তরাধিকারই বানিয়ে দেয়া হয় কিনা! (তিরমিজি : ২/১৬)।
হদারুল উলুম দেওবন্দ, ভারত থেকে


খবরটি পঠিত হয়েছে ৩১০০ বার

আল্লাহর ওহি থেকে মুখ ফিরিয়ে
বর্তমান মুসলিম জাতির অন্দরে দৃষ্টিপাতকারী মাত্রই দেখতে পান কী তাদের
বিস্তারিত
শ্রমিকের প্রাপ্য নিশ্চিত করে ইসলাম
আজকের শ্রমিকদের অবস্থা প্রাচীনকালের দাসদের সামাজিক মর্যাদার চেয়েও হীন হয়ে
বিস্তারিত
অসুস্থতাও একটি নেয়ামত
দুনিয়ায় আল্লাহ প্রদত্ত অসংখ্য নেয়ামতরাজির মাঝে আমরা ভাসমান। রাতের অন্ধকার,
বিস্তারিত
আলোর পরশ
আল কোরআন হজরত আবু মাসঊদ আনসারী (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন,
বিস্তারিত
দাসী থেকে নবীজির স্ত্রী সাফিয়্যা
আপনাদের কি মনে আছে ওই ঘটনার কথা। এক যুদ্ধে মুসলমান
বিস্তারিত
আলোর পরশ
আল কোরআন আমি তাকে বিপুল ধন-সম্পদ দিয়েছি এবং সদাসঙ্গী পুত্রবর্গ দিয়েছি
বিস্তারিত