রোজার আগে ভাস্কর্য সরানোর দাবি

রমজান মাসের আগে ভাস্কর্য অপসারণ করা না হলে ১৭ রমজান দেশব্যাপী জেলায় জেলায় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে বলে হুশিয়ারি দিয়েছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ।
সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রিক দেবীর ভাস্কর্য অপসারণের দাবিতে সুপ্রিম কোর্ট ঘেরাওসহ দুই দফা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে দলটি।

আজ শুক্রবার বিকেলে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে আয়োজিত সমাবেশ থেকে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন ইসলামী আন্দোলনের আমির মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই।

তিনি বলেন, ‘রমজান মাসের আগে ভাস্কর্য অপসারণ করা না হলে ১৭ রমজান দেশব্যাপী জেলায় জেলায় বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে। তারপরও যদি ভাস্কর্য অপসারণ করা না হলে রমজান মাসের পর ভাস্কর্য অপসারণের দাবিতে দেশের জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট ঘেরাও করা হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত ও জাতীয় ঈদগার পাশে গ্রিক দেবীর ভাস্কর্য স্থাপন করে এদেশের মুসলিম নাগরিকদের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন এখানে ভাস্কর্য কীভাবে এলো তিনি জানতেন না। তাহলে এটা কি প্রধান বিচারপতির একক সিদ্ধান্তে হয়েছে নাকি সুপ্রিম কোর্টের অন্য বিচারপতিরাও ভাস্কর্য স্থাপনে একমত ছিলেন।’

কওমী মাদ্রাসার সর্বোচ্চ স্বীকৃতি নেওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ জানিয়ে রেজাউল করিম বলেন, ‘বহুদিনের ন্যায্য দাবি মেনে নিয়ে সম্প্রতি সরকার কওমী মাদ্রাসার সর্বোচ্চ সনদের স্বীকৃতি ঘোষণা করেছেন। দেশের আলেম সমাজের দাবি মেনে নিয়ে সনদের স্বীকৃতি ঘোষণা করায় প্রধানমন্ত্রীকে সাধুবাদ জানাচ্ছি। এ নিয়েও ইসলাম বিদ্বেষী একটি শ্রেণি অপপ্রচার শুরু করেছে। আমরা পরিষ্কার বলতে চাই, কওমী মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতির বিরোধিতা যারা করছে তারা গণবিচ্ছিন্ন।’

তিনি আরো বলেন, ‘সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী ভারত সফর করেছেন। ভারত সফরে তিনি দেশের জন্য কি অর্জন করেছেন তা দেশবাসীর কাছে পরিষ্কার নয়। বহু কাঙ্ক্ষিত তিস্তার পানি বাংলাদেশ পায়নি তা তিনি নিজেই বলেছেন। কিন্তু ভারতকে তিনি কি দিয়ে এসেছেন তা তিনি বলেননি। ভারতের সাথে অত্যন্ত স্পর্শকাতর প্রতিরক্ষা সমোঝতার বিষয়ে কি আছে দেশবাসী তা জানতে চাই। এ নিয়ে লুকোচুরি করার পরিণতি ভালো হবে না।’

সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন- ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি ফয়জুল করিম, অধ্যাপক মাওলানা সৈয়দ মেছাদ্দেক বিল্লা আল মাদানি, মাহাসচিব অধ্যাপক হাফেজ মাওলানা ইউনুচ আহমেদ, রাজনৈতিক উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, হাফেজ মাওলানা এ বি এম হেমায়েত উদ্দিন প্রমুখ।


খবরটি পঠিত হয়েছে ৫১২০ বার

তিস্তায় নিখোঁজ বিজিবি সদস্যকে উদ্ধারে
লালমনিরহাটের দহগ্রাম সীমান্তে ভারতীয় গরু পাচার প্রতিরোধ করতে গিয়ে তিস্তা
বিস্তারিত
লন্ডনের গ্রেনফেল টাওয়ারে নিহতদের ২
লন্ডনের ২৪তলা ভবন গ্রেনফেল টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৭৯ জনের মধ্যে
বিস্তারিত
আমরা সকলের সহযোগিতা চাই: প্রধানমন্ত্রী
দেশব্যাপী এবার নির্বিঘ্নে ও শান্তিপূর্ণভাবে ঈদের জামাত সম্পন্ন হওয়ায় সন্তোষ
বিস্তারিত
‘শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, দেশের মানুষ একটি গ্রহণযোগ্য ও
বিস্তারিত
বান্দরবা‌নে গাড়ি খা‌দে, ৩ শিশুর
বান্দরবা‌নের লামায় মি‌রিঞ্জা পর্যটন এলাকায় জীপ গাড়ি খা‌দে প‌ড়ে ৩
বিস্তারিত
ঈদ নামাজে দেশের উন্নতি ও
বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে সারা দেশে পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত
বিস্তারিত