যেসব বিষয় গুগলে খুঁজতে নেই

তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে গুগল পৃথিবীর সর্ববৃহৎ তথ্যভান্ডার। সব বিষয়ই যেন গুগলের জানা। যে বিষয়ই খোঁজা হোক না কেন মুহূর্তের মধ্যে মেলে তাঁর উত্তর। তবে সব বিষয়ই গুগলে খোঁজা ঠিক নয়।

এমন কিছু কিছু বিষয় আছে যা গুগলে খুঁজলে বিব্রত হতে হয়। সংবাদ ও ছবি শেয়ারের ওয়েবসাইট  রেডিট এমনই নয়টি বিষয়ের কথা জানিয়েছে। ইংরেজি এই শব্দগুলো স্বাভাবিক মনে হলেও গুগলে খুঁজলে ব্যবহারকারীকে প্রচণ্ড বিব্রত হতে হবে। সঙ্গত কারণেই শব্দগুলো গুগলে খুঁজতে নিষেধ করা হলো।
ফোর্নিয়ার
যুক্তরাষ্ট্রের ওরল্যান্ডোর বাস্কেটবল দলের এক খোলোয়াড়ে ডাক নাম এটি। তবে গুগলে কখনোই এটি খুঁজবেন না। কারণ শব্দটির অর্থ দাঁড়ায় যৌনাঙ্গের মাংস পচে যাওয়া রোগ। তাই গুগলে ইংরেজিতে শব্দটি খুঁজলে এমন কিছু বীভৎস ছবি আসবে যা দেখে যেকারো বমি চলে আসতে পারে।
ক্রোকোডিল
না কুমির নয়। কুমিরের ইংরেজির বানানের সি এর স্থলে ‘কে’ হবে। রাশিয়া ও ইউক্রেনে প্রচলিত এক ধরনের নেশাদ্রব্য এই ক্রোকোডিল। এটি তৈরিতে এমন রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার হয় যা মানুষের ত্বক পচিয়ে ফেলে। তাই গুগলে ইংরেজি ক্রোকোডিল সার্চ দিলে ত্বক পচে যাওয়ার বর্ণনা ও ছবি আসবে। গুগলে এই শব্দ খোঁজা থেকে সাবধান।
ফ্লেশ-ইটিং
কোনো খোঁজাখুঁজিতে ফ্লেশ-ইটিং শব্দটি ব্যবহার করা থেকে সাবধান। এখানে ফ্লেশ অর্থ হলো মানুষের মাংস। তাই ফ্লেশ-ইটিং শব্দটি গুগলে খোঁজা হলে ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাসের সংক্রমণে মানুষের শরীরে ক্ষত সৃষ্টি হওয়া বীভৎস ছবি দেখানো হয়। এর বাইরেও বীভৎস কিছু ছবি চলে আসে।
মাউথ লার্ভা
এক রেডিট ব্যবহারকারী গুগলে ইংরেজি ‘মথ লার্ভা’ খুঁজতে গিয়ে করে প্রথম শব্দটি লিখেছিল মাউথ। এতেই চলে এলো মানুষের মুখের বিচিত্র সংক্রমণ রোগের কিছু ছবি। ছবিগুলোর চিকিৎসাবিদ্যার জন্য স্বাভাবিক হতে পারে তবে সাধারণ মানুষের কাছে দৃষ্টিকটু।
গুগল
গুগল শব্দটি গুগলে খোঁজা নিরর্থক। শব্দটি সবসমই গুগলের পেজ নিয়ে আসে যেখানে থাকবে আরেকটি খোঁজার ব্যবস্থা। এ যেন অনন্তকাল ধরে এক ঘুর্ণন।
ক্যালকুলাস ব্রিজ
শব্দটি শুনে অঙ্কের কোনো বিষয় মনে হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে ক্যালকুলাস ব্রিজ দাঁতের চিকিৎসার বিষয়। শব্দটির মাধ্যমে দাঁতের মাড়ি কৃত্রিমভাবে যোগ করা বোঝায়। বিষয়টি শব্দের বর্ণনায় নির্মল মনে হলেও ছবিতে বেশ বীভৎস।
নিজের ইমেল ঠিকানা
নিজের ইমেলই ঠিকানা দিয়ে কখনো গুগলে খোঁজ দিয়েছেন। বিভিন্ন ওয়েবসাইটের সঙ্গে মেইল ঠিকানার যোগাযোগের বিষয়টি চোখে পড়ে। রেডিটের অনেক ব্যবহারকারী ইমেলই ঠিকানার যোগাযোগ দেখে নিজেরাই বিস্মিত হয়েছেন। এমন যোগাযোগ থেকে অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়ে গেছে এমন ভয় পেতে পারেন অনেকে।
হারলেকুন ইচিথিওসিস
শিশুদের জিনগত বিরল রোগ এটি। এই রোগে শিশুদের ত্বকে মোটা দাগ দেখা যায়। দীর্ঘ চিকিৎসার মাধ্যমে এমন ত্বকের শিশুদের সুস্থ করে করে তোলা হয়। গুগলে হারলেকুন ইচিথিওসিস খুঁজলে ত্বক ফেটে চৌচির কিছু ছবি দেখা যায়, বিষয়টি যথেষ্ট দৃষ্টিকটু।
অসুস্থতার জন্য দায়ী রোগ
রোগে অসুস্থ হয়েছেন, ডাক্তারের কাছে যান। রোগ সম্পর্কে জানতে গুগলে খুঁজতে যাবেন না। রোগটির এমন ছবি ও বর্ণনা পাবেন যা দেখে আরেকবার অসুস্থ হয়ে পড়াও অস্বাভিক নয়।


বাংলাদেশে ই-স্ক্যান অ্যান্টিভাইরাসের ১০ বছর
ই-স্ক্যান বাংলাদেশের ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ১৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় রাজধানীর
বিস্তারিত
সৌরজগতের প্রান্ত থেকে তোলা পৃথিবীর
সৌরজগতের সীমান্ত থেকে ভয়েজার-১ এর তোলা পৃথিবীর একমাত্র ছবি ‘পেল
বিস্তারিত
ঢাকায় হয়ে গেল ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স
ঢাকায় হয়ে গেল দুই দিনব্যাপী দ্বিতীয় ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন সাইবার
বিস্তারিত
প্রযুক্তি দিয়ে লড়ছে চীন
জনগণের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণের জন্য চীন যে প্রযুক্তি তৈরি
বিস্তারিত
চট্টগ্রামে বিডিজবস কারিগরি চাকরি মেলায়
চট্টগ্রামের জিইসি কনভেনশন হলে হয়ে গেল দুই দিনব্যাপী বিডিজবস কারিগরি
বিস্তারিত
ডিজিটাল রেভিনিউ মোবিলাইজেশন নিয়ে আলোচনা
সম্প্রতি শেষ হওয়া সফটএক্সপোর প্রথম দিন ‘ইমপ্লিমেন্টেশন অব ডিজিটাল রেভিনিউ
বিস্তারিত