পোল্ট্রি খামারে ভাগ্য ফিরেছে ঈশ্বরদীর হাকিমের

ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলি ইউনিয়নের পতিরাজপুর গ্রামের আলহাজ্ব আব্দুল মজিদ শেখের পুত্র আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল হাকিম শেখ উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে বিদেশে চলে যান। দীর্ঘ নয় বছর প্রবাসে থাকার পর দেশে চলে আসেন। দেশে এসে এক প্রকারের বেকার হয়ে পড়েন, তখন চোখে সরষে ফুল দেখতে পান। বেকারত্বের সঙ্গে লড়াই-সংগ্রামের মধ্যে পোল্ট্রি খামার করে আজ তিনি সফল পোল্ট্রি খামারি।নিজ বসতবাড়ির পাশেই পোল্ট্রি খামার করে তার সংসারের অর্থের যোগান দেন হাকিম। হাকিম নিজে পোল্ট্রি খামার করে এলাকার অন্যান্য বেকার যুবকদেরও পোল্ট্রি খামারে উদ্বুদ্ধও করেছেন। 

হাকিম জানান, বেকারত্ব ঘুচাতে নিজ বাড়িতেই ২০১০ সালে লেয়ার জাতের ৫০০টি মুরগি পালন শুরু করেন। সেই থেকে আর থেমে থাকেন নি হাকিম। মুরগি পালন করে তিনি গোটা বছরের পারিবারিক ডিমের ও মুরগির চাহিদা মিটানোর পর ডিম ও মুরগি বিক্রি করে বাড়তি কিছু আয়ও করতে থাকেন। এরপর তিনি তার খামারকে প্রসারিত করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। বর্তমানে তার খামারে ৮ হাজার মুরগি রয়েছে এর মধ্যে ৫ হাজার মুরগি ডিম দেয় বাকি গুলো ছোট বাচ্চা।প্রতিদিন তিনি খামার থেকে ৪ হাজার ৭’শ ডিম বিক্রি করে থাকেন। 

হাকিম বলেন, বর্তমানে খামার ও আড়তে ২৯ জন শ্রমিক নিয়মিত কাজ করছেন। এর মধ্যে তিনজন নারি ও দুইজন প্রতিবন্ধি রয়েছে। ডিম বিক্রির টাকা থেকে যে মূনাফা পেয়েছি তা দিয়ে একটি ডিমের আড়ৎ করেছি। ১ হাজার ডিম দিয়ে আড়ৎ শুরু হলেও এখন প্রতিদিন দেড় লক্ষ ডিম ক্রয়-বিক্রয় করছেন।

হাকিম পোল্ট্রি খামারের স্বত্ত্বাধিকারি আব্দুল হাকিম আরও বলেন, মুরগির বিষ্ঠা দিয়ে পরিবেশ বান্ধব একটি বায়োগ্যাস প্লান্ট করেছি তা থেকে পরিবারের রান্নার কাজ চলছে। এতে কিছুটা হলেও রান্নার কাজে দেশের গাছ, কাঠ বেঁচে যাচ্ছে। তিনি বলেন, আমার আর্থিক অবস্থা পোল্ট্রি খামার ও ডিমের আড়ৎ দেখে এলাকার অনেক বেকার ছেলে পোল্ট্রি খামার করে তারাও আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বি হয়েছেন। হাকিম বলেন, সহজ শর্তে কোন ব্যাংক-বীমা কিংবা সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ঋণ প্রদান করলে খামারটি আরও বেশি প্রসারিত করতে চাই। 

তিনি আরও বলেন, চাকরি নামের সোনার হরিণের পেছনে না ছুটে পোল্ট্রি খামার করে স্বাবলম্বি হওয়া সম্ভব। এতে বেকারত্ব ঘুচবে এবং আর্থিক ভাবে লাভবান হওয়া যায়। তিনি শিক্ষিত বেকার যুবকদের পোল্ট্রি খামার করার জন্য আহ্বান জানান।

ঈশ্বরদী উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোস্তফা জামান বলেন, আব্দুল হাকিম বেকারত্বের সাথে লড়াই-সংগ্রামের মধ্যে পোল্ট্রি খামার করে আজ তিনি সফল ও মডেল খামারি হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। হাকিম পোল্ট্রি খামার করে কিছুটা হলেও দেশের মুরগি ও ডিমের চাহিদা পূরণ করছেন। সেই সঙ্গে দেশের মানুষের পুষ্টির যোগানও দিচ্ছেন। হাকিমের দেখা দেখি ওই এলাকার যুবকদের মধ্যে পোল্ট্রি খামারের প্রতিযোগিতা চলে এসেছে। হাকিম এভাবে তার পোল্ট্রি খামারের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারলে আগামিতে আরও ভালো করবে বলে আশা পোষণ করছি।  


আধুনিক পদ্ধতিতে টমেটো চাষে মুন্সীগঞ্জের
মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় টমেটো চাষে কৃষকদের আগ্রহ ক্রমেই বাড়ছে। গত
বিস্তারিত
সিলেটের সদর ও ফেঞ্চুগঞ্জ শতভাগ
সরকার ঘোষিত শতভাগ বিদ্যুতায়ন কর্মসূচির আওতায় সিলেট জেলার অধিকাংশ এলাকা-ই
বিস্তারিত
মালয়েশিয়ায় শ্রমিকদের রি-হায়ারিং ‘মেয়াদ বাড়ছে’
মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে বসবাসকারী বাংলাদেশি শ্রমিকদের রি-হায়ারিংয়ের সময়সীমা শেষ হবে আগামী
বিস্তারিত
শেরপুরে আমন চাষে লাভবান কৃষক
বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় এবার আমনের বাম্পার ফলন হওয়ায় লাভবান কৃষক।
বিস্তারিত
বারোমাসি আমে লাভ বহুগুণ
ফুলতলা উপজেলার পূর্ব মশিয়ালী গ্রামে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে গড়ে উঠেছে বারোমাসি
বিস্তারিত
সিরাজদিখানে আমন ধানের বাম্পার ফলন: কৃষকের
অনুকূল আবহাওয়ার কারণে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলায় এবার ধানের বাম্পার ফলন
বিস্তারিত