লালায় হৃদরোগের চিকিৎসা

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এঁটুলি নামে পরিচিত এক ধরনের কীটের থুতু বা মুখের লালা দিয়ে মারাত্মক ধরনের হৃদরোগের চিকিৎসা করা সম্ভব। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা এ কীটকে নতুন নতুন ওষুধের গোল্ডমাইন বা স্বর্ণ খনি বলে উল্লেখ করেছেন। 

কারণ স্ট্রোক ও আর্থাইটিজসহ আরও কিছু রোগের চিকিৎসায় এটিকে ব্যবহার করা যেতে পারে। তবে এসব পরীক্ষার সবক’টিই এখন পর্যন্ত শুধু ল্যাবরেটরিতেই চালানো হয়েছে। তাই মানুষের পক্ষে এ ওষুধ কখন ব্যবহার করা সম্ভব, সেটা এখনই বলা যাবে না।

এঁটুলি কাউকে কামড়াতে খুবই দক্ষ। কামড় দিলেও সেটা বোঝা যায় না। বিজ্ঞানীরা বলছেন, এর অর্থ হলো যে কোনো প্রাণী এবং মানুষের শরীরে এটি কোনো ধরনের সমস্যা না করেই ৮ থেকে ১০ দিন পর্যন্ত থাকতে পারে। অর্থাৎ এ সময় প্রাণীর শরীরে কোনো ধরনের ব্যথা বা প্রদাহের সৃষ্টি হবে না। এর কারণ হলো এঁটুলির মুখের লালায় যে প্রোটিন আছে, সেটি যার শরীরে সে আশ্রয় নিয়েছে, সেখানে চেমোকিনের রাসায়নিক বিক্রিয়ার মাধ্যমে ওই প্রদাহকে বন্ধ করে দেয়। মায়োকার্ডিটিসে যারা আক্রান্ত হয়, তাদের হৃদযন্ত্র থেকে চেমোকিন নির্গত হয় এবং সেটা হার্টের পেশিতে প্রদাহের সৃষ্টি করে। 

গবেষকরা বলছেন, এ কীটের মুখের থুতু ব্যবহার করে এখন মানুষের জীবন বাঁচানো সম্ভব। সূত্র : বিবিসি


হাসি ও গম্ভীর মুখের পার্থক্য
আমরা কথায় কথায় কাউকে না কাউকে ছাগল বলে ফেলি। ছাগল
বিস্তারিত
স্কুলে শিক্ষক একজন, শিক্ষার্থীও এক!
ভারতের কলকাতার ঝাঁ চকচকে গুরুগ্রাম (গুরগাঁও) থেকে মাত্র ৬০ কিমি
বিস্তারিত
হাতে হেঁটে ১০ কিমি. পাড়ি!
প্রবল ইচ্ছাশক্তির কঠিন পরীক্ষা দিয়েছেন সোলায়মান মাগোমেদয়। রাশিয়ার দাগেনস্টানের ৫৩
বিস্তারিত
৬৬ বছর পর নখ কাটলেন
হাতের নখ কাটাতে ভারতের পুনে থেকে নিউ ইয়র্কে উড়ে গেলেন
বিস্তারিত
দুই মাথাওয়ালা বাছুর দুধ পান
দুই মাথাওয়ালা এই বাছুরের জন্ম হয়েছে ব্রাজিলের গোইয়া প্রদেশের কাইয়াপোনিয়া
বিস্তারিত
১৮৫ কেজি ওজনের উড়ন্ত মাছ!
গল্পের মতো মনে হলেও সত্যি। মাছও উড়তে পারে। এতদিন নাম
বিস্তারিত