মৃত মানুষের বাড়িতে কান্না করাই তাদের পেশা!

কণ্ঠশিল্পী মনির খানের একটা গান শুনেছিলাম- ‌‘ভাড়া কইরা আনবি মানুষ কান্দিতে মোর লাশের পাশে...।’ এই যে কাঁদার জন্য মানুষ ভাড়া করার বিষয়, এটি শুধু গানে নয়, বাস্তবেও আছে। মৃত্যু মানুষের পাশে বসে কাঁদার জন্য এমন লোক ভাড়া পাওয়া যায় ভারতের রাজস্থান রাজ্যে!

রাজস্থানের রাস্তায় প্রায়ই দেখতে পাওয়া যায় কালো পোশাক পরিহিত অসংখ্য নারী। যারা স্থানীয়দের কাছে ‘রুদালি’ বলে পরিচিত। তাদেরকে ‘প্রফেশনাল মৌনার’ বা পেশাদার বিলাপকারীও বলা হয়। কেউ মারা যাবে এমন আশঙ্কা দেখা দিলে এবং মৃত ব্যক্তির জন্য কান্না করার কেউ না থাকলে মানে কোনো আত্মীয়-স্বজন না থাকলে এই নারীদেরকে আগে থেকেই ভাড়া করা হয়।

ভাড়া করা এসব পেশাদার বিলাপকারীরা মরা বাড়িতে গিয়ে বুক চাপড়ে এমনভাবে কান্না করবে যে আশপাশের বাড়ির সবাই কান্নার শব্দ শুনে মরা বাড়িতে এসে উপস্থিত হবে। সজোরে কাঁদতে কাঁদতে এই নারীরা সারা বাড়িতে মাতম ছড়িয়ে দেন।

কাঁদার সময় গাল বেয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়লেও চোখের পানির একটি কণাও তারা মুছেন না। কেননা তাদের কাজ তো চোখের পানি ঝরানোই! মৃত্যের বাড়িতে গিয়ে বিলাপ করেই জীবিকা নির্বাহ করছেন তারা।

মৃত্যের বাড়িতে শোকাবহ পরিবেশ তৈরি করতেই এইসব নারীদেরকে ভাড়া করে আনা হয়।রাজস্থানের শত শত বছরের পুরনো এই প্রথা এখনো চলছে। তারা সবসময় কালো পোশাক পরিধান করে। তাদের ধারণা যমের পছন্দের রঙ কালো। তাই মৃত্যুদূতকে খুশি করতে তার পছন্দের সাজেই নিজেদের সজ্জিত করে তারা। এই নারীদের বেশ কিছু সমাজে বিয়ে করার নিয়ম নেই।

ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন


জীবিত নারীকে রাখা হলো লাশঘরের
দক্ষিণ আফ্রিকার এক নারীকে লাশঘরের ফ্রিজে জীবিত পাওয়ার পর তোলপাড়
বিস্তারিত
হানিমুনে গিয়ে কিপটেমি করায় স্বামীকে
বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা এই যুগে যথেষ্ট সহজ হয়ে গেছে। গত
বিস্তারিত
বরকে ছিনিয়ে নিতে বিয়ের আসরে
সাবেক প্রেমিকের বিয়েতে কনে সেজে পৌঁছে গেলেন সাবেক প্রেমিকা। ভালোবাসার
বিস্তারিত
স্বামী পেটানোয় বিশ্বের এক নম্বর
মিশরের নারীদেরকে স্ত্রী হিসেবে পেতে অনেক পুরুষই মনে মনে চান।
বিস্তারিত
যে কারণে জাপানের ব্যবসায়ী-চাকরিজীবীরা রাতে
দীর্ঘ কর্ম সংস্কৃতির জন্য জাপানের একটি খ্যাতি রয়েছে। যেটাকে অনেকে
বিস্তারিত
ছাত্রদের পাশ করাতে বিছানায় ডাকতেন
ইওকাসতা নামের চল্লিশোর্ধ স্কুল শিক্ষিকা ছাত্রদের পাস করিয়ে দিতে একটি
বিস্তারিত