পাবনায় আমন ধানের বাম্পার ফলন : কৃষকের মুখে হাসি

বাজারে চাউল, শাক-সবজিসহ নিত্য পণ্যের অগ্নি মূল্যে। এ সময় চাষীদের ঘরের গোলায় আমন ধান ওঠায় কৃষকদের মুখে হাসি ফুটেছে। পাবনার গ্রামাঞ্চলে আমন ধান কাটা শুরু হয়েছে। এবার পাবনা জেলায় আমনের বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকরা।

পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি আমন মৌসুমে জেলায় প্রায় ৫৪ হাজার ৭শ’ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ করা হয়েছে। ফলনও বেশ ভাল হয়েছে।

সরেজমিন পাবনা সদর, সুজানগর, ফরিদপুর, আটঘরিয়া, আতাইকুলা ও শস্যভান্ডার হিসেবে পরিচিত চলনবিল অধ্যুষিত চাটমোহর উপজেলায় সোনালি ধানের শীষে ভরে গেছে মাঠ। চারদিকে এখন ঘন সবুজের সমারোহ। সবুজ ফসলের মাঠ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে আরো বিকশিত করে তুলেছে। এবার পোকা-মাকড় ও বিভিন্ন ধরনের রোগ বালাইয়ের আক্রমণ ছাড়াই বেড়ে ওঠা আমন ধানে ভরা মাঠ দেখে কৃষকদের  চোখে মুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের হাসি।

কৃষকরা জানান, আমন মৌসুমের শুরুতেই অতি বৃষ্টির পানিতে প্লাবিত হয় মাঠ। এসময় রোপা আমনের মাঠের ফলন দেখে চাষীরা কিছুটা হতাশ হয়েছিল। পরে আমনের বাম্পার ফলনে কৃষকরা এখন আশান্বিত।
 অনেক কৃষকই জমির আগাম আমন ধান কাটা শুরু করেছেন। পাবনা সদর উপজেলার দোগাছী, ভাড়ারা, মালিগাছা, টেবুনিয়া, ও হেমায়েতপুরে কৃষি বিভাগের উদ্যোগে আমন ধান কাটা নিয়ে কৃষক মাঠ দিবসও পালিত হয়েছে।
 উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, রোপা আমন ধান এবার বিঘা প্রতি ১৮ থেকে ২০ মণ ফলন হচ্ছে। বাম্পার ফলন ও বাজার দর বেশী পাওয়া যাবে বলে কৃষক ও কৃষি বিভাগ আশা প্রকাশ করেছেন।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে পাবনা জেলায় প্রায় ৫৫ হাজার ২শ’ হেক্টর জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যে পাবনা সদর উপজেলায় ৭ হাজার ২শ’ হেক্টর, সুজানগর ৭ হাজার ১শ’ হেক্টর, বেড়া ৮ হাজার ১শ’ হেক্টর, চাটমহোর ৬ হাজার ২শ’ হেক্টর, ফরিদপুর ৪হাজার ১শ’ হেক্টর, ভাঙ্গুড়া ৫ হাজার ৫০ হেক্টর, আটঘরিয়া ৪ হাজার ৫০ হেক্টর, ঈশ্বরদী ৬ হাজার ২শ’ হেক্টর এবং সাঁথিয়া ৭ হাজার ৩শ’ হেক্টর জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে।

আতাইকুলা থানার তৈলকুপী গ্রামের কৃষক আফছার আলী, সদর থানার টেবুনিয়া গ্রামের বক্কর মিয়া, মালিগাছা গ্রামের জব্বার হোসেন, ফরিদপুরের কালু দাস, আটঘরিয়ার আসাদ জানান, ফসলের মাঠে আমন ধান কাটা চলছে। এবার ধানের ফলন ভালো হয়েছে। কৃষি অফিসের সহযোগিতা ও পরামর্শে আবাদকৃত আমন ধান গতবারের চেয়ে ভালো হয়েছে। আর কয়েকদিন পরই পুরোপুরি ধান কাটা শুরু হবে।

পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (খামার বাড়ি) এর উপ-পরিচালক বিভূতিভুষন রায় জানান, আমন ধানের ফলন ও উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্য নিয়ে মাঠ পর্যায়ে কৃষি বিভাগের মাঠ কর্মীরা তৎপর রয়েছে। এবার ধানের আবাদও বেশি হয়েছে। আমরা আশা করছি, এবার আমন ধানের বাম্পার ফলন হবে।


পঞ্চাশ বছর ধরে শিক্ষার আলো
কোথাও খোলা উঠুনে চাটাই পেতে। আবার কোথাও কারো বাড়ির বারান্দায়।
বিস্তারিত
রংপুরে শিম চাষে কৃষকের সাফল্য
রংপুর জেলায় শিম চাষ করে সাফল্যের মুখ দেখছে কৃষকরা। অপরদিকে
বিস্তারিত
কিশোরগঞ্জের হাওরে নির্মিত হচ্ছে স্বপ্নের
কিশোরগঞ্জের হাওর অঞ্চলে প্রায় ৯ শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে সারা
বিস্তারিত
জলের ফলে দিন বদল
নদী মাতৃক এই দেশ। সারা দেশে জালের মতো ছড়িয়ে রয়েছে
বিস্তারিত
বাসক পাতায় ভাগ্য বদল
বাসক পাতার ঔষধি গুণাগুণ সম্পর্কে কম-বেশি সবাইর জানাশোনা আছে। সর্দি-কাশি
বিস্তারিত
মতলব উত্তরে আখের বাম্পার ফলন
মতলব উত্তর উপজেলায় এ বছর চিবিয়ে খাওয়া আখের বাম্পার ফলন
বিস্তারিত