সিরাতুন্নবী আমাদের মাইলফলক

তিনি সবার জন্য উত্তম আদর্শ। বাদশাহর জন্য যেমন, তেমনি গরিবের জন্য, সম্পদশালীর জন্য, নিঃস্বের জন্য, বড়র জন্য, বুড়োর জন্য, ব্যবসায়ীর জন্য, শিক্ষার্থীর জন্য। মোটকথা জীবনের সব অঙ্গনে আমাদের জন্য নবীজীবনে রয়েছে উত্তম আদর্শ। নিশ্চয়ই শিক্ষার্থীদের জন্য এবং কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্যও তাতে রয়েছে মহান আদর্শ

সিরাতুন্নবী বিশাল ও বিস্তৃত একটি বিষয়। তার কারণ এই যে, অপরাপর নবীদের বিপরীতে আল্লাহ তায়ালা আমাদের নবী (সা.) কে সর্বশেষ নবী বানিয়ে প্রেরণ করেছেন। সঙ্গে সঙ্গে এ-ও বলে দিয়েছেন যে, ‘তোমাদের জন্য রাসুলুল্লাহর মধ্যে রয়েছে উত্তম নমুনা।’ (সূরা আহজাব : ২১)। এখানে ব্যাপক শব্দে বলা হয়েছে, অতএব তিনি সবার জন্য উত্তম আদর্শ। বাদশাহর জন্য যেমন, তেমনি গরিবের জন্য, সম্পদশালীর জন্য, নিঃস্বের জন্য, বড়র জন্য, বুড়োর জন্য, ব্যবসায়ীর জন্য, শিক্ষার্থীর জন্য। মোটকথা জীবনের সব অঙ্গনে আমাদের জন্য নবীজীবনে রয়েছে উত্তম আদর্শ। নিশ্চয়ই শিক্ষার্থীদের জন্য এবং কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্যও তাতে রয়েছে মহান আদর্শ। 

কত বিস্ময়ের কথা যে, নিরক্ষর লিখতে জানেন!
এখানে নবী (সা.) এর শিক্ষাজীবন অথবা শিক্ষা বিষয়ে তাঁর দিকনির্দেশনা প্রসঙ্গে কিছু কথা পেশ করা যাচ্ছে। কত বিস্ময়ের কথা যে, একজন নিরক্ষর ব্যক্তি, লেখাপড়ার সঙ্গে যার কোনো পূর্ব সম্পর্ক নেই, ওই তাঁকে ওহির মাধ্যমে সর্বপ্রথম যে হুকুম দেয়া হয়, তা ছিলÑ পড়! অন্যান্য ধর্মীয় গ্রন্থ, যেগুলো এখনও বিদ্যমান, যেমনÑ তাওরাত, ইঞ্জিল, আগশতা, বেদ প্রভৃতিতে জ্ঞান ও শিক্ষার এমন মর্যাদা প্রদান করা হয়নি, যেভাবে কোরআনে করা হয়েছে। সর্বপ্রথম ওহি ‘পড়’ দিয়ে শুরু হয়। এরপরই, দুই-তিন বাক্যের পরের আয়াতগুলোয় কলমের প্রশংসা করা হয়েছে। বলা হয়েছে, ‘যিনি কলমের সাহায্যে শিক্ষা দিয়েছেন। শিক্ষা দিয়েছেন মানুষকে যা সে জানত না।’ (সূরা আলাক : ৪-৫)। যদি এ কলম না থাকত, তবে আমাদের পূর্বসূরিদের জ্ঞান-বিজ্ঞান সংকলিত হয়ে আমাদের পর্যন্ত পৌঁছত না। আমরা ওসব থেকে উপকৃত হতে পারতাম না। জ্ঞানের উন্নতি তখন হতে পারে, যখন পুরনো তথ্যগুলো সম্পর্কে আমাদের অবগতি থাকে এবং আমরা তাতে সংযোজন করতে পারি। তো ওহির এ প্রথম বিধান নবীজি (সা.) সারা জীবন পালন করেছেন।
আমার ব্যক্তিগত অনুমান এই যে, উপরি-উক্ত আদেশ পেয়ে নবীজি লেখালেখি কিছুটা শিখে নিয়েছিলেন। কেননা নবীজি অন্যকে যে হুকুম দিতেন, প্রথমে নিজে তার ওপর আমল করতেন। এমন নয় যে, তিনি অপরকে আদেশ দেবেন আর নিজেকে ওই আদেশের ঊর্ধ্বে মনে করবেন। বস্তুত ওটাই ছিল নবীজির সবসময়ের কর্মপদ্ধতি। আমার এ গবেষণার সূত্র হলো হুদায়বিয়া চুক্তিসংক্রান্ত প্রসিদ্ধ একটি হাদিস। হুদায়বিয়ায় চুক্তি হয়েছিল মক্কার মুশরিকদের সঙ্গে। তারপর নবীজি তা লিখিয়েও ছিলেন। আলী (রা.) কে হুকুম করলেন, লেখ! তিনি লেখার সূচনা এভাবে করেন যে, মুহাম্মাদ রাসুলুল্লাহ এবং সুহাইল ইবনে আমরের মাঝে চুক্তি। সুহাইল ইবনে আমর ছিলেন কুরাইশের প্রতিনিধি। তিনি তখন আপত্তি করে বসলেন, না, এমন হতে পারে না। আমরা যদি আপনাকে রাসুলুল্লাহ বা আল্লাহর রাসুল বলে মানতাম, তবে তো আপনার সঙ্গে কখনও যুদ্ধে জড়াতাম না। আপনার নাম লিখুন! তো নবীজি (সা.) ত্বরিত আলী (রা.) কে হুকুম করলেন, মুহাম্মাদ রাসুলুল্লাহ মিটিয়ে মুহাম্মাদ ইবনে আবদুল্লাহ লেখ। হজরত আলী শপথ করে বলে ফেললেন, আল্লাহর শপথ! রাসুলুল্লাহ শব্দটি আমি কখনও মিটিয়ে দিতে পারব না। বোখারির বর্ণনায় রয়েছে, নবীজি বললেন, আচ্ছা তাহলে ওই কাগজটা আমাকে দাও! তিনি রাসুলুল্লাহ শব্দটি মিটিয়ে দিলেন, সম্ভবত থুথু দিয়ে। সহি বোখারিতে শব্দ এসেছে, তিনি নিজ হাতে ওই স্থানে মুহাম্মদ ইবনে আবদুল্লাহ লিখে দেন। যদিও তিনি খুব ভালো লেখা জানতেন না। এসব বোখারির শব্দ। খুব ভালো না জানা এক বিষয়, আর মোটেও লেখা না জানা আলাদা বিষয়। এখান থেকে আমার গবেষণা এই যে, নবীজি (সা.) ‘পড়’ এর হুকুম পালন করেছিলেন এবং কিছু লেখাপড়া শিখে ফেলেছিলেন।
নারী-পুরুষ উভয়ের শিক্ষা তাঁর কাছে সমানভাবে প্রিয় ছিল
ওই হুকুম পালনের দ্বিতীয় যে দৃষ্টান্ত আমরা খুঁজে পাই, সেটা মদিনায় হিজরত করার আগের কথা। শিক্ষাগত দৃষ্টিকোণ থেকে তাতেও আমাদের জন্য বিরাট শিক্ষা রয়েছে। ইবনে ইসহাক (রহ.) তদীয় সিরাতগ্রন্থে দুর্লভ একটি বর্ণনা পেশ করেছেন, যখনই নবী (সা.) এর কাছে কোনো ওহি আসত, তিনি তৎক্ষণাত তা পুরুষদের মজলিশে পড়ে শোনাতেন। এরপর মহিলাদের মজলিশেও পড়ে শোনাতেন। ভিন্ন শব্দে এভাবে বলা যায়, পুরুষদের শিক্ষাদান এবং নারীদের শিক্ষাদান উভয়ই সমানভাবে তাঁর কাছে প্রিয় ছিল। শিক্ষাদানে তিনি কোনো ব্যবধান করতেন না। পুরুষদের যা শেখাতেন, নারীদেরও তা-ই শেখাতেন। ওই সময় যে শিক্ষা ছিল, অর্থাৎ কোরআন শিক্ষা, সেটা নারী-পুরুষ উভয়ের মাঝেই পাওয়া যেত।
কেউ শিক্ষার এমন মূল্যায়ন করেনি, যেমনটা একজন নিরক্ষর নবী করেছেন
তারপর আমাদের সামনে আরও কয়েকটি দৃষ্টান্ত উদ্ভাসিত হয়। হিজরত করে নবীজি (সা.) মদিনায় পৌঁছার কিছুদিনের মধ্যেই মক্কার মুশরিকদের সঙ্গে যুদ্ধ করতে হয়। বদর যুদ্ধ হয় দ্বিতীয় হিজরিতে। এসময় অনেক দুর্লভ ও বিরল উপমা আমাদের জানা আছে, যেগুলো দুনিয়ার ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তা এই যে, শত্রুপক্ষের ৭০ জন বন্দি হয়। প্রশ্ন ছিলÑ তাদের কী করা হবে? হজরত ওমর (রা.) তাঁর স্বভাবজাত জজবা থেকে বলে ওঠেন, তাদের গর্দান উড়িয়ে দেয়া হোক। না এরা কখনও মুসলমান হবে, আর না এদের পরবর্তী প্রজন্ম মুসলমান হওয়ার আশা করা যায়! উল্টো এরা সবসময় আমাদের অযথা কষ্ট দিতেই থাকবে। তবে হজরত ওমর (রা.) যেহেতু একজন বিচক্ষণ ও বুদ্ধিমান মানুষ ছিলেন, তাই আরেকটি বাক্য তিনি যোগ করলেন। বললেন, এদের প্রত্যেককে হত্যার জন্য তার স্বগোত্রীয় একজন মুসলমানকে দায়িত্ব প্রদান করা হবে। এতে বংশীয় যে টান ও জ্বলন আছে, হত্যার কারণে পরবর্তীতে মুসলমানদের মাঝে দ্বন্দ্ব সৃষ্টির আশঙ্কা থেকে মুক্ত থাকা যায়। অন্যদিকে হজরত আবু বকর সিদ্দিক (রা.) বলেন, হে আল্লাহর রাসুল! আমার মনে হয়, হত্যার পরিবর্তে তাদের সঙ্গে এমন ব্যবহার করা হোক, যা ইসলামের জন্য মঙ্গলজনক হয়। বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের অর্থের প্রয়োজন রয়েছে। সুতরাং তাদের থেকে মুক্তিপণ আদায় করা যেতে পারে। মেনে নিলাম, তারা হয়তো বা মুসলমান না-ই হলো; কিন্তু তাদের পরবর্তী প্রজন্মের মুসলমান হওয়ার তো সম্ভাবনা রয়েছে। মুক্তিপণের পরিমাণ অনেক বেশি ছিল। জনপ্রতি ৪ হাজার দিরহাম করে দিতে হয়েছিল। তো যারা সম্পদশালী ছিল, তারা মুক্তিপণ প্রদান করেছে। যাদের আত্মীয়স্বজন কিংবা বন্ধুবান্ধব ধনী ছিল, তারা ওদের থেকে ধার করে অথবা ভিন্ন কোনো উপায়ে নিজেদের মুক্তিপণ দিয়েছে। কিন্তু বন্দিদের মাঝে এমনও কিছু লোক ছিল, যাদের কিছুই ছিল না। রাসুল (সা.) তাদের ব্যাপারে আদেশ করলেনÑ সে বিষয়টিই এ আলোচনার প্রতিপাদ্য। যেসব বন্দি লেখাপড়া জানত তাদের বলা হলো, প্রত্যক বন্দি যেন দশ-দশজন মানুষকে লেখাপড়া শেখায়। এ কাজ করতে পারলে তাদের ৪ হাজারের সেই বড় অঙ্কের দিরহাম গুনতে হবে না; বরং তাদের বিনা মুক্তিপণে ছেড়ে দেয়া হবে। এমন নজির পৃথিবীর ইতিহাসে দ্বিতীয় আরেকটি পাওয়া যাবে না যে, বিজয়ী সেনাপতিরা কখনও এভাবে শিক্ষার মূল্যায়ন করেছেন। না সিকান্দর, না বেলু সলর, আর না হিটলার। কেউ জ্ঞান ও শিক্ষার এমন মূল্যায়ন করেনি, যেমনটা একজন নিরক্ষর নবী করেছেন! এ রকম বেশুমার দৃষ্টান্ত আমরা নবীজীবনে দেখতে পাই। 

১৯৮৪ সালে সিন্ধু ইউনিভার্সিটিতে 
ড. মুহাম্মাদ হামিদুল্লাহ (রহ.) প্রদত্ত 
উর্দু ভাষণের সংক্ষেপিত 
ভাষান্তর মাহফুয আহমদ


মহানবীর মহান আদর্শ
 রাসুলুল্লাহ (সা.) দুনিয়ার তাবৎ মানুষের সামনে শুধু কোরআনের শিক্ষাই পেশ করেননি, বরং
বিস্তারিত
ওমর (রা.) এর শাসন পদ্ধতি
হজরত ওমর ইবনে খাত্তাব (রা.)  আমিরুল মুমিনিন উপাধি ধারণ করে ২৩
বিস্তারিত
নবীপ্রেমের উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত সাহাবায়ে কেরাম
রাসুল (সা.) কে ভালোবাসা একজন মোমিনের জন্য অপরিহার্য কর্তব্য। এ
বিস্তারিত
দ্বিতীয় খুতবা প্রসঙ্গ জেরুজালেম
স্বদেশ ও ইসলামী ভূখ-গুলোকে রক্ষা করা মানে ইসলাম ভিত্তি, মুসলমানের
বিস্তারিত
শীত-গ্রীষ্মের শিক্ষা ও আল কুদস
যুগের ধারাবাহিক আবর্তন, ঋতুর পালাবদল, মাসের পর মাসের আগমন ও
বিস্তারিত
সাপ মারার শরয়ি বিধান
সাপ হাত-পা ও মেরুদ-হীন সরীসৃপ প্রজাতির ধূর্ত একটি প্রাণী। বছরে
বিস্তারিত