পারভেজের জল হাওয়ার কাব্য

রাত ৯টা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে তখন ভাঙা হাটের মেলা। অধিকাংশই বের হয়ে যাচ্ছেন। ফলে বাইরে কোলাহল থাকলেও ভেতরে ততক্ষণে নেমে এসেছে নীরবতা। তবে ক্যাফেটেরিয়ার বারান্দায় তখন একটি দলকে দেখা যায় ডুগি বাজিয়ে গান গাইতে। কথা হলো তাদের সঙ্গে। জানা গেল এটা ঠিক গান নয়, কবিতা। ছন্দে পড়তেই ডুগির সাহায্য। এরা সবাই মুক্তধারা সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্রের সদস্য। চলছে আবৃত্তির রিহার্স্যাল, সঙ্গে আছেন দলের সাধারণ সম্পাদক মু. সিদ্দিকুর রহমান পারভেজ। তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, ২৯ ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে মঞ্চস্থ হবে তার একক আবৃত্তি প্রযোজনা ‘জল হাওয়ার কাব্য’। সে উপলক্ষ্যেই এ রিহার্স্যাল। একক আবৃত্তি হলে সেখানে কোরাস কেন; কতগুলো কবিতা পড়ছেন; কার কার কবিতা পড়ছেন- এমন হরেক প্রশ্ন করা হয় আলোকিত বাংলাদেশের পক্ষ থেকে। একে একে মেলে উত্তর। পারভেজ জানালেন, একক আবৃত্তির জন্য যে শুধু কবিতাই মঞ্চে পড়ছেন এমন নয়; পড়ছেন বিভিন্ন লেখকের লেখা আত্মকথা, এমআর আখতার মুকুলের বিখ্যাত ‘চরমপত্র’ থেকে, এমনকি পত্রিকার পাতায় প্রকাশিত ফিচারও। এর পক্ষে তার যুক্তি- ‘আবৃত্তি বলতে আমি শুধু কবিতা আবৃত্তিকেই বুঝি না; এখানে থাকতে পারে ফিচার, কথিকা ইত্যাদি। আবৃত্তির মাঝে কবিতার বাইরে এসব থাকলে সাধারণ মানুষ আরও আগ্রহী হয় আবৃত্তিতে। আর এ কারণেই দর্শকদের জন্য আমার এ ভিন্নধর্মী আয়োজন।’ সেজন্যই কি বৃন্দ আবৃত্তিও থাকছে- এমন প্রশ্নে এলো হ্যাঁ-সূচক উত্তর। ফলে আরেকটি প্রশ্ন করতে হয়। তাকে প্রশ্ন করা হয়- পুরো আয়োজনই এমন ভিন্নধর্মী সব লেখা নিয়ে?

-না। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, জীবনানন্দ দাশ, শামসুর রাহমান, আবু হাসান শাহরিয়ার, মহাদেব সাহা, নির্মলেন্দু গুণসহ ওপার বাংলার জয় গোস্বামী এবং বিখ্যাত গুন্টার গ্রাসের কবিতাও থাকছে, বলেন তিনি। 

এ সময় উপস্থিত দলের সদস্যরা জানান, ২৭ বছর বয়সী দল মুক্তধারা সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্রের সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক মু. সিদ্দিকুর রহমান পারভেজের পথচলা ১৯ বছরের। প্রায় দুই দশক ধরে আবৃত্তিশিল্পের সঙ্গে জড়িত থাকলেও আবৃত্তিশিল্পী মু. সিদ্দিকুর রহমান পারভেজের এটিই প্রথম একক আবৃত্তি অনুষ্ঠান। তবে নির্দেশক হিসেবে তার এ অঙ্গনে আগমন আরও অনেক আগে। নির্দেশনা দিয়েছেন, সেই স্মৃতি সেই ইতিহাস (২০০০), হেমন্ত নন্দিত বঙ্গ (২০০১), বালিকা আশ্রম (২০০৬), বিবর্ণ বিলাপ (২০১০), কথা মানবী (২০১২), স্বপ্ন বাস্তবতায় অনিশ্চিত ছাপ্পান্ন হাজার বর্গমাইল (২০১৩), বসন্ত বন্দনা (২০১৪), বোশেখ দিল ডাক (২০১৭), শুদ্ধচিত্তে সুসংযত (২০১৭) এর মতো বেশকিছু প্রযোজনা। বোঝাই যায়, অভিজ্ঞতার এ ঝুলি বেশ সমৃদ্ধ। তবে একক আবৃত্তি এত দেরিতে কেন- এমন প্রশ্নের জবাবে দলীয় চিন্তাচেতনাই উঠে আসে। একটি দলের সাধারণ সম্পাদক যে দলের প্রতি কতখানি নিবেদিত থাকেন, তা-ই ধরা পড়ে তার কণ্ঠে। বলেন, একক আবৃত্তির চেয়ে আমি সম্মিলিত আবৃত্তি পছন্দ করি। ইউনিটির মধ্যে থেকে কাজ করতে পছন্দ করি আমি। আবৃত্তির আসল প্রাণ পাওয়া যায় দলীয় পরিবেশনায়। সবাইকে একই সুতোয় গেঁথে কাজ করার মধ্যে যেমন চ্যালেঞ্জ আছে, তেমনি কাজটায় মজাও আছে।

রাত বাড়ছে। ভাঙা হাটেরে মেলাও সাঙ্গ হওয়ার পথে। পাঠক, এরই মধ্যে মুক্তধারার সদস্যরা আপনাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে এ আয়োজন দেখতে আসার জন্য। আপনি আসছেন তো? 


চৌগাছায় সাড়ে ৬’শ বছরের তেতুল
যশোরের চৌগাছা উপজেলার জগদীশপুর গ্রামের মিয়া বাড়ির সামনে রয়েছে দৃষ্টি
বিস্তারিত
ভূমিকম্প নিয়ে বিস্ময়কর ১২টি তথ্য
প্রায়ই বিশ্বের কোথাও না কোথাও বড় বড় ভূমিকম্প আঘাত হানে।
বিস্তারিত
ভাসমান বীজতলা ও শাকসবজি চাষে
শেরপুরের নকলা উপজেলায় জলাশয়ে শাকসবজি চাষ করাসহ ধানের বীজতলা তৈরি
বিস্তারিত
সিলেটের পর্যটন স্পটগুলোতে উপচে পড়া
সিলেটের জাফলং, লালাখাল, রাতারগুল, বিছনাকান্দি, পাংথুমাইকে ঘিরে পর্যটকদের আগ্রহ সারা
বিস্তারিত
মাচার উপরে শীতলাউ, নিচে আদা
শেরপুর জেলার নকলার ব্রহ্মপুত্র নদসহ অন্যান্য নদীর তীরবর্তী এলাকায় বছরের
বিস্তারিত
ভাড়ায় ‘আংকেল’!
অনেক সময় মনে হয় নিজের সমস্যাগুলো কাউকে বলতে পারলে মনটা
বিস্তারিত