পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ঘুড়ি উৎসব— সাকরাইন

ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে পরিণত হয়েছে ‘সাকরাইন’। সাকরাইন হচ্ছে বাংলাদেশের পুরান ঢাকার অলিগলিতে উড়ানো ঘুড়ি উৎসব। রঙ-বেরঙের নানা ঘুড়ি উড়ানো আর দিনভর নানা আয়োজনে প্রতিবছর পৌষ সংক্রান্তির দিন আয়োজিত হয় এটি। পৌষ সংক্রান্তি হল পৌষ মাসের শেষ দিন। এটি মকর সংক্রান্তি নামেও পরিচিত।

মূলত এই দিনটি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের একটি ধর্মীয় উৎসব হলেও এখন এটি পরিচিত ঘুড়ি উৎসব হিসেবে। ঠিক প্রথম কবে এই উৎসব চালু হয় তা সঠিকভাবে না জানা গেলেও ধারণা করা হয় মুগল আমলে ঢাকার অভিজাত লোকজনের বিবিধ বিনোদনের মধ্যে ঘুড়ি উড়ানো ছিল অন্যতম।

কোনো কোনো সূত্রমতে, ১৭৪০-এর দশকে নায়েব-ই-নাজিম নওয়াজিশ মুহম্মদ খানের আমলে ঘুড়ি উড়ানো উৎসব একটা ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছিল। তখন থেকেই বাণিজ্যিক আকারে ঘুড়ি তৈরি শুরু হয় এবং বাড়ির ছাদ, খোলা জায়গা বা উন্মুক্ত ময়দান থেকে আকাশে প্রচুরসংখ্যক ঘুড়ি উড়তে দেখা যায়।

সাকরাইন উপলক্ষে পুরান ঢাকার মানুষদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা দেখা যায়। এক সময় ঘুড়ি হতে শুরু করে সুতা বানানো সবই হাতে করা হত। যুগের পরিবর্তনে এখন দোকানে মেশিনে তৈরি করা ঘুড়ি, সুতা, নাটাই পাওয়া যাবার জন্যে এই ঐতিহ্য কিছুটা বিলুপ্ত। তবে এখনো অনেকেই সুতা নিজেরাই তৈরি করে নেন।

সাধারণ সুতা এবং ঘুড়ির সুতার মধ্যে একটি বিশাল প্রভেদ আছে। ঘুড়ির সুতা অনেক মোটা এবং ধারালো হয় যাতে ঘুড়ি উড়িয়ে অন্য ঘুড়ির সাথে কাটাকুটি খেলতে উবিধা হয়। যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সাধারণ সুতাকে ঘুড়ির উপযোগী সুতাতে পরিণত করা হয় তাকে বলা হয় মাঞ্জা। এই প্রক্রিয়ায় ভাতের মাড়, কাঁচের সুক্ষ গুঁড়া এবং পছন্দসই রঙ সাধারণ সুতার সঙ্গে মেশানো হয়।

এরপর শুকিয়ে নিলেই হয়ে গেল ঘুড়ির সুতা। সাকরাইনে পুরান ঢাকার একএকটা বাড়ি একএক দলের ঘাঁটিতে পরিণত হয়। প্রতিযোগিতা চলে এক বাড়ির সঙ্গে অন্যান্য সব বাড়ির। ঘুড়ি উড়িয়ে অন্য উড়ন্ত ঘুড়ির সুতা কাটাটাই হল প্রতিযোগিতা। আর সুতা কাটা ঘুড়ি হল বিজয়ী দলের পুরস্কার। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে এই প্রতিযোগিতা। নিজেদের উৎসাহ উদ্দীপনা দেয়ার জন্য ছাদে ছাদে চলে গান বাজনা।

সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হয় এই উৎসবের সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক পটকা ফুটানো। ছোট-বড় নানা রকম পটকা বাজি, আতশবাজি, তারাবাত্তি আর ফানুস উড়ানোর মধ্য দিয়ে যার সমাপ্তি। তবে এই আলোকক্রিয়ার সবচেয়ে আকর্ষণীয় অংশ হচ্ছে আগুন নিয়ে খেলা দেখানো। স্থানীয়রা যেটাকে নিজেদের শৌর্যের প্রদর্শনী বলে মনে করে।


ভূমিকম্প নিয়ে বিস্ময়কর ১২টি তথ্য
প্রায়ই বিশ্বের কোথাও না কোথাও বড় বড় ভূমিকম্প আঘাত হানে।
বিস্তারিত
ভাসমান বীজতলা ও শাকসবজি চাষে
শেরপুরের নকলা উপজেলায় জলাশয়ে শাকসবজি চাষ করাসহ ধানের বীজতলা তৈরি
বিস্তারিত
সিলেটের পর্যটন স্পটগুলোতে উপচে পড়া
সিলেটের জাফলং, লালাখাল, রাতারগুল, বিছনাকান্দি, পাংথুমাইকে ঘিরে পর্যটকদের আগ্রহ সারা
বিস্তারিত
মাচার উপরে শীতলাউ, নিচে আদা
শেরপুর জেলার নকলার ব্রহ্মপুত্র নদসহ অন্যান্য নদীর তীরবর্তী এলাকায় বছরের
বিস্তারিত
ভাড়ায় ‘আংকেল’!
অনেক সময় মনে হয় নিজের সমস্যাগুলো কাউকে বলতে পারলে মনটা
বিস্তারিত
কার আয়ু বেশি, ধনী না
যুক্তরাজ্যের একটি গবেষণা অনুযায়ী ধনীদের গড় আয়ু অপেক্ষাকৃত কম ধনীদের
বিস্তারিত