ইজতেমা ২০১৮

প্রথম পর্বের মোনাজাত

রোববার বেলা ১১টা ১৫ মিনিটে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয় বিশ্ব ইজতেমা-২০১৮ এর প্রথম পর্ব। টঙ্গীর তুরাগতীরে ইজতেমার এই আখেরি মোনাজাতে লাখো মুসল্লি অংশগ্রহণ করেন। এ সময় ‘আমিন-আমিন’ ধ্বনিতে মুখর হয়ে ওঠে তুরাগতীর। বাংলাদেশসহ গোটা মুসলিম জাতির শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয় আখেরি মোনাজাতে। সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে শুরু হয়ে ৩৫ মিনিট ধরে চলে মোনাজাত। মোনাজাত পরিচালনা করেন কাকরাইল মসজিদের প্রবীণ আলেম এবং তাবলিগ জামাতের অন্যতম মুরুব্বি হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ জুবায়ের। ইজতেমার ইতিহাসে এবারই প্রথম বাংলা ভাষায় মোনাজাত পরিচালিত হয়। দীর্ঘ ৩৫ মিনিটের এ মোনাজাতে তিনি প্রথমে কোরআন-হাদিসে বর্ণিত দোয়াগুলো করেন। এরপর তিনি বাংলায় মুসলিম 
জাতির ঐক্য, সংহতি, হেদায়েত ও কল্যাণের জন্য বিশষভাবে প্রার্থনা করেন।
মোনাজাতের আরবি অনুবাদসহ বিশেষ অংশগুলো তুলে ধরা হলো-

হে আল্লাহ, আপনি দরুদ ও সালাম বর্ষণ করুন নবী মুহাম্মাদ (সা.) এর প্রতি, তাঁর পরিবার-পরিজন ও প্রিয়জনদের প্রতি, নবীপতœী আমাদের মা-জননীদের প্রতি, যেমন দরুদ ও সালাম বর্ষণ করেছেন নবী ইবরাহিম ও তাঁর পরিবার-পরিজনের প্রতি। হে আল্লাহ, আমাদের নবীকে কেয়ামতের দিন আপনার নিকটবর্তী স্থানে আসন দান করুন। মুমিন মুসলিম নর-নারী সবার প্রতি আপনি রহমত বর্ষণ করুন।
হে আমাদের প্রতিপালক, আমরা নিজেদের প্রতি অন্যায় করেছি, আপনি যদি ক্ষমা ও দয়া না করেন, তাহলে আমরা ক্ষতিগ্রস্তদের দলভুক্ত হয়ে যাব। হে আল্লাহ, আমাদের গোনাহের তুলনায় আপনার মাগফেরাত অনেক বিস্তৃত, আমাদের নিজেদের আমলের তুলনায় আপনার দয়ার আশা আমাদের অন্তরে অধিক বেশি। হে আল্লাহ, সব মুমিন মুসলিমকে মাফ করে দিন। জীবিত-মৃত সবাইকে ক্ষমা করুন। হে আমাদের রব, আমাদের দ্বারা যদি ইচ্ছকৃত বা অনিচ্ছাকৃত কোনো ভুলভ্রান্তি হয়ে থাকে, তাহলে আমাদের পাকড়াও করবেন না। হে আমাদের রব, আমাদের ওপর এমন কোনো বোঝা চাপাবেন না, যেমনটি আমাদের পূর্ববর্তীদের দিয়েছিলেন। হে আমাদের রব, যা বহনের সাধ্য আমাদের নেই, তা আমাদের ওপর চাপিয়ে দেবেন না। আমাদের ক্ষমা করুন। মার্জনা করুন। আমাদের প্রতি দয়া করুন। আপনিই আমাদের অভিভাবক। সুতরাং আমাদের কাফের সম্প্রদায়ের ওপর বিজয় দান করুন। হে আমাদের প্রতিপালক, আমাদের হেদায়েত দেওয়ার পর আমাদের অন্তরগুলো বক্র করে দেবেন না, আপনার পক্ষ থেকে আমাদের অনুগ্রহ দান করুন। নিঃসন্দেহে আপনি মহান দাতা।
হে আমাদের রব, আপনার প্রতি ভরসা করেছি, আপনার অভিমুখী হয়েছি, আর আপনার কাছেই তো আমাদের ফিরে যেতে হবে। হে আল্লাহ, সব কাজে আমাদের উত্তম পরিণতি দেখান, আর আমাদের দুনিয়া-আখিরাতের লাঞ্ছনা থেকে মুক্তি দিন। হে আল্লাহ, আমাদের সরল পথে পরিচালিত করুন। আমাদের নফস ও আমলের অনিষ্ট থেকে আমাদের মুক্তি দিন। আমাদের যাবতীয় অবস্থা সংশোধন করে দিন। মুহূর্তের জন্যও আমাদের আমাদের নিজেদের প্রতি সোপর্দ করবেন না। অন্যথায় আমরা ধ্বংস হয়ে যাব, পাপ-পঙ্কিলতায় ডুবে যাব।
হে আল্লাহ, আমরা দুর্বল, অতি দুর্বল। আপনার খুশি মোতাবেক আমাদের এ দুর্বলতাকে শক্তিতে রূপান্তরিত করে দিন, আর আমাদের অবশ্যই কল্যাণের দিকে টেনে নিন। হে আল্লাহ, আমাদের ইসলামের জন্য কবুল করুন। হে আল্লাহ, ঈমানকে আমাদের কাছে প্রিয় বানিয়ে দিন, আমাদের অন্তরে ঈমানকে সুশোভিত করে দিন। কুফর, পাপাচার ও যাবতীয় অন্যায় কাজের প্রতি দিলে ঘৃণা সৃষ্টি করে দিন। সুপথে পরিচালিত করুন। হে অন্তরের নিয়ন্ত্রক, দ্বীনের ওপর আমাদের অবিচল রাখুন। হে আল্লাহ, জগতে শুধু সেটাই সহজ, যা আপনি সহজ করেন। আপনি চাইলে কঠিনকেও সহজ করে দিতে পারেন।
হে আল্লাহ, সারা বিশ্বে আপনার দ্বীনকে প্রতিষ্ঠিত করে দিন। আমাদের আপনার পথের দাঈ হিসেবে কবুল করেন। দাওয়াতের পথে আমাদের আপনি কবুল করেন। আপনার পথে যারা জিহাদ করেন, আমাদেরকে তাদের অন্তর্ভুক্ত করুন। তাদের দলভুক্ত করুন, যাদের কোনো ভয় পেরেশানি নেই এবং থাকবে না। সব কঠিন কাজ সহজ করে দিন। আপনার দরবারে মাওলা কঠিন বলতে কিছু নেই।
ইয়া আল্লাহ, সব কল্যাণ দান করুন। সব অনিষ্ট থেকে হেফাজত করুন। নবীজি যত কল্যাণ চেয়েছেন, সেগুলো আমাদেরও দান করুন। যত অনিষ্ট থেকে পানাহ চেয়েছেন, আমাদেরও সেগুলো থেকে আশ্রয় দান করুন। হে আল্লাহ, আপনি আমাদের এ ইজতেমাকে কবুল করুন। এর ভুলত্রুটি ক্ষমা করুন। এখানে আসা সবাইকে মাফ করুন। পুরো মুসলিম উম্মাহকে আপনি মাফ করুন। আমাদের জীবিত-মৃত সবাইকে মাফ করুন। ছোট-বড় সবাইকে মাফ করুন। ইয়া রাব্বুল আলামিন, আমাদের হেদায়েত দান করুন। হেদায়েতের ওপর মজবুতির সঙ্গে জমে থাকার তাওফিক দিন। হেদায়েতকে আম করুন। এ ইজতেমাকে আপনি হেদায়েতের ওসিলা করুন। সবাইকে আপনি হেদায়েত নসিব করুন। হে আল্লাহ, সারা জাহানে দাওয়াতের কাজকে আপনি কবুল করুন। দাওয়াতের কাজের সব প্রতিবন্ধকতা দূর করুন। দাওয়াতকে জান্নাত লাভের মাধ্যম বানান। দাওয়াতের কাজকে সহি মানহাজে করার তওফিক দান করুন। আলেমদের দিকনির্দেশনা মেনে কোরআন-সুন্নাহ মোতাবেক করার তওফিক দিন। হে আল্লাহ, মুসলমানদের হারানো ইজ্জত ফিরিয়ে দিন। আমাদের মানসম্মান আপনি ফিরিয়ে দিন। আমাদের জান-মাল হেফাজত করুন। মাজলুমকে আপনি সাহায্য করুন। জালিমকে মাগলুব করুন (পরাজিত করুন)। আমাদের ঈমানের দাওলাত নসিব করুন। আমাদের ইয়াকিনকে মাজবুত করুন। সাহাবাওয়ালা ঈমান দান করুন। সাহাবাওয়ালা ইয়াকিন নসিব করুন। সাহাবিদের সঙ্গে কৃত আপনার পুরস্কার আমাদেরও দান করুন। ইয়া আল্লাহ, সবাইকে আপনি ভরপুর নুসরত করুন। সাহায্য করুন। ইয়া আল্লাহ, যারা এ কাজ নিয়ে চলছে, তাদের আপনি গায়েবি মদদ করুন। ইয়া আল্লাহ, দ্বীনের সব কাজকে আপনি কবুল করুন। ইয়া আল্লাহ, সবধরনের ফেতনা থেকে আমাদের হেফাজত করুন। হর লাইনের (সবধরনের) ফেতনা থেকে রক্ষা করুন।
হভাষান্তর ও গ্রন্থনা : মাওলানা রাশিদুর রহমান


হে কল্যাণপন্থি, অগ্রসর হও
রমজান মাস হলো  নামাজ-রোজার মাধ্যমে ব্যক্তির আত্মাকে পবিত্র করার সবচেয়ে
বিস্তারিত
আজকের তারাবি
আজ নবম তারাবিতে সূরা হুদ পুরোটা এবং সূরা ইউসুফের ১
বিস্তারিত
হাদিসের বাণী
হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘রোজা
বিস্তারিত
কোরআনের আলো
‘সম্মানিত মাসই সম্মানিত মাসের বদলা। আর সম্মান রক্ষা করারও বদলা
বিস্তারিত
রোজা অবস্থায় তেল সুরমা ও
রোজা অবস্থায় দিনের বেলায় প্রয়োজনে তেল সুরমা ও সুগন্ধি ব্যবহার
বিস্তারিত
কোরআন তেলাওয়াত
রমজান কোরআনের মাস। তাই এ মাসে অন্যতম কাজ হলো বেশি
বিস্তারিত