বইমেলায় এম.উমর ফারুকের যে রাতের দিন হয় না

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় পাওয়া যাচ্ছে লেখক ও সাংবাদিক এম.উমর ফারুকের উপন্যাস ‘যে রাতের দিন হয় না’।  বিশ্ববিদ্যালয় পড়–য়া ছাত্রী মেঘলা। এক অশুভ ঝড়ে তার জীবনের সোনালী ভবিষ্যত অন্ধকারে পরিণত হয়। লেখাপড়ার মাঝপথে ছাড়তে হয় বিশ্ববিদ্যালয়কে। মেঘলা হয় যৌনপল্লীর বাসিন্দা। কেটে যায় দিন সপ্তাহ মাস বছর। অন্ধকার জীবন থেকে বেড়িয়ে আলোর সন্ধান করে। কিন্তু যে ডালে ভর করে সেই ডাল ও ভেঙ্গে যায়। বষয়ের ভাড়ে মেঘলার ঠিকানা হয় বৃদ্ধাশ্রমে। মরণ ব্যধির সঙ্গে কিছু সময় পার করে চলে যায় অন্ধকারের শেষ ঠিকানায়। শরীর শিউরে ওঠার মত ঘটনা নিয়ে সাজানো বইটি প্রকাশ করেছে দেশ পাবলিকেশন্স। বইমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দেশ পাবলিকেশন্সের  ৪০৭ ও ৪০৮ নং স্টলে পাওয়া যাবে বইটি। ৬৪ পৃষ্ঠার বইটির প্রচ্ছদ করেছেন মোস্তাফিজ কারিগর। বইটির মুল্য-১২০ টাকা।

কথাসাহিত্যিক এম.উমর ফারুক ১৯৯৭ সালে কবিতা লেখার মধ্য দিয়ে লেখালেখি শুরু করেন।১৯৯৮ সাল থেকে কুড়িগ্রাম জেলার চিলমারী উপজেলাতে সাংবাদিকতা শুরু করেন। ২০০৪ সালে চিলমারী থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক জনপ্রাণ পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা বার্তা সম্পাদক ও পরে নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।এক পর্যায়ে ২০০৫ সালে ঢাকায় দৈনিক যুগান্তরের মধ্যে জাতীয় পর্যায়ে সাংবাদিকতা শুরু করেন।এর পর বিভিন্ন দৈনিক আমাদের সময়, দৈনিক মানবকণ্ঠ, দৈনিক সংবাদ,দৈনিক জনতায় কাজ করেন। সর্বশেষ দৈনিক আজকের পত্রিকার সিনিয়র সাংবাদিক হিসেবে কাজ করেন। উপন্যাস ছাড়াও তিনি ছড়া,কবিতা, গল্প,প্রবন্ধ, গানও নাটক লেখেন নিয়মিত। তার লেখা একাধিক নাটক টিভিতে প্রচারিত হয়েছে। তার লেখা গানের বেশ কয়েকটি এ্যালবামও প্রকাশ পেয়েছে।
লেখক এর আগেও ঢাকা রির্পোটাস ইউনিটি লেখক সম্মাননা- ২০১৫,২০১৪,২০১৩ও২০১১ পেয়েছেন। জাতীয় মানবাধিকার পদক-২০১২ হাছন রাজা স্মৃতি স্বর্ণ পদক-২০১০পান। চিলমারী পাবলিক লাইব্রেরী লেখক সংবর্ধনা পান। ছান্দসিক সাহিত্য সেরা কবি ২০০৮ ও বাংলাদেশ সাহিত্য পরিষদ হতে ছান্দসিক কবি পদক-২০০২ লাভ করেন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সামাজিক সাংষ্কৃতিক সংগঠণ থেকে সংবর্ধিত হন। লেখক সৃজন সাহিত্য পরিষদ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও মাসিক সাহিত্য পত্রিকা বেলা অবেলা’র সম্পাদক।
এম.উমর ফারুক ১৯৮৪ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার তবকপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ সাদুল্যা তেলীপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।তিনি মো. গোলাম হোসেন সরকার ও আনোয়ারা বেগমের চার সন্তানের
মধ্যে সবার বড়। লেখক ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি থেকে এল এল বি অনার্স ও এল এল এম পাশ করেন।

 


শিল্পকলা একাডেমিতে কবিতায় বঙ্গবন্ধু
দেশের বিশিষ্ট বাচিক শিল্পীরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে
বিস্তারিত
কবি শামসুর রাহমানের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত
আধুনিক বাংলা কবিতার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি, লেখক ও সাংবাদিক শামসুর
বিস্তারিত
হুমায়ূন আহমেদের শেষ দিনগুলো
আমেরিকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০১২ সালের ১৯শে জুলাই মারা যান বাংলাদেশের
বিস্তারিত
কথাসাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদের ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী
বাংলা সাহিত্যের বরেণ্য ব্যক্তিত্ব, খ্যাতিমান কথাশিল্পী, চলচ্চিত্র-নাটক নির্মাতা হুমায়ুন আহমেদের
বিস্তারিত
সৌন্দর্যের অপ্সরী শিল্পাচার্য জয়নুল ও
ব্রহ্মপুত্র নদের তীরঘেঁষা ময়মনসিংহ শহর। শিশু জয়নুল খেলে করে বেড়াতেন
বিস্তারিত
কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের ৭১ তম
ক্ষণজন্মা কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের ৭১তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে কবির পৈত্রিক বাড়ির
বিস্তারিত