গ্রন্থমেলায় উপচেপড়া ভিড়

মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলার পরিসর বেড়ে যাওয়ায় ‘উপচেপড়া’ শব্দটা এ বছর ব্যবহারের সুযোগ হয়নি। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) মেলার শেষ সপ্তাহে এসে সেই সুযোগ হলো। আক্ষরিক অর্থেই উপচেপড়া ভিড় ছিল। মেলা প্রাঙ্গণ ও বাইরের রাস্তাজুড়ে অজস্র মানুষের এমন ভিড় চলতি মেলায় এই প্রথম দেখা গেছে।

প্রকাশকরা জানালেন, শুক্রবারের বেচাবিক্রিতে তারা দারুণ খুশি। শুক্রবার মেলায় আগত দর্শনার্থীদের প্রায় সব ছিল ক্রেতা। তাদের হাতে হাতে দেখা গেছে বইয়ের ব্যাগ।

গতকাল মেলায় লেখক সমাগমও ছিল চোখে পড়ার মতো। বড়-ছোট সব ধরনের লেখকের উপস্থিতিই ছিল কাল। লেখকরা অটোগ্রাফ দেওয়া ও ছবি তোলায় ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন।

শুক্রবারের মতো ভিড় মেলায় আর হবে না বলে মনে করছেন প্রকাশকরা। শিশু চত্বরের ‘বাবুই’-এর প্রকাশক কাদের বাবু জানালেন, শুক্রবার দম ফেলার সুযোগও পাননি তিনি। তিনি বলেন, ‘আজ যেভাবে মেলায় পাঠক এসেছেন, বই কিনেছেন, এটাই আমাদের চাওয়া থাকে। দিনভর বিক্রি হয়েছে। এক সেকেন্ডও অবসর ছিল না।’

‘দেশ পাবলিকেশন্স’-এর অচিন্ত্য চয়ন বলেন, ‘আমার প্রকাশনী থেকে উদীয়মান তরুণ সাহিত্যিকদের একাধিক বই বের হয়েছে বেশ কয়েকটা। সেগুলোর কাটতি ভালো। তবে গতকাল যেভাবে পাঠক-ক্রেতাদের সমাগম ঘটেছে, এমন আর হয়নি।’

শেষ শুক্রবার রাঙিয়ে গেছে এতদিন মুখ গোমড়া করে থাকা প্রকাশকদেরও। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ‘অন্ধকার অংশ’ উত্তর-পূর্ব কোনায় থাকা স্টল ‘দ্যু’ এর প্রকাশক হাসান তারেক বলেন, ‘এমনিতে এদিকটায় লোকজন বই কিনতে আসে না। কিন্তু আজ (গতকাল) মেলায় প্রচুর লোকসমাগম ছিল। সেই ধাক্কাটা এদিকটাতেও কিছুটা এসেছে।’

গতকাল বেলা ১১টা থেকে শিশুপ্রহর ছিল মেলায়। সে কারণে ভিড়টা সকাল থেকেই ছিল। মেলা শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত এ ভিড় দেখা গেছে। আজো মেলার শেষ শিশুপ্রহর ঘোষণা করা হয়েছে।

নতুন বই : বাংলা একাডেমির দেওয়া তথ্যমতে, গতকাল গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয়েছে ২৬৬টি বই। কবিতা ১০১টি, উপন্যাস ২৮টি, গল্প ৩৫টি, প্রবন্ধ ২২টি ও অন্যান্য বিষয়ক বই ৮০টি।

এর মধ্যে সেলিনা হোসেনের ভাষা আন্দোলনভিত্তিক বই ‘একুশের রক্ত পলাশ’ (কাকলী প্রকাশনী), আবু সাঈদ খানের স্মৃতিচারণমূলক গ্রন্থ ‘ফিরে দেখা একাত্তর’ (শ্রাবণ প্রকাশনী), মনজুরে মওলার কাব্যগ্রন্থ ‘একবারটি ভাবো’ (মূর্ধন্য), আতা সরকারের উপন্যাস ‘পুষ্পকুন্তলা তুমি’ (অ্যাডর্ন পাবলিকেশন), অসীম সাহার প্রবন্ধ ‘বহুমাত্রিক একলব্য নূহ-উল-আলম লেনিন’ (অনন্যা), নির্মলেন্দু গুণের গল্প ছড়া ‘কিশোর অমনিবাস’ (মেরিট ফেয়ার প্রকাশ) ও রকিব হাসানের গোয়েন্দা কাহিনী ‘কিশোর গল্প’ (কালিকলম প্রকাশনা) অন্যতম।

আজকের অনুষ্ঠান : শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে শিশু-কিশোর চিত্রাঙ্কন, সঙ্গীত প্রতিযোগিতা, সাধারণ জ্ঞান ও উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার দেওয়া হবে। প্রধান অতিথি থাকবেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ। সভাপতিত্ব করবেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।

এ ছাড়া বিকাল ৪টায় গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে রয়েছে ‘দেশ বিভাগের সত্তর বছর’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন ইমানুল হক। আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন সৈয়দ হাসান ইমাম ও নূরজাহান বোস। সভাপতিত্ব করবেন কামাল লোহানী। সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।


‘বিকশিত হোক শত ভাবনা’ বইয়ের
তেত্রিশ গুণীজনের কথামালার সময়োপযোগী সংকলন গ্রন্থ ‘বিকশিত হোক শত ভাবনা’
বিস্তারিত
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নিজ শহরে শায়িত কবি
আধুনিক বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি আল মাহমুদকে রবিবার বিকালে
বিস্তারিত
কবি আল মাহমুদের জানাজা বায়তুল
কবি আল মাহমুদের জানাজা আজ শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বাদ জোহর
বিস্তারিত
‌‘সোনালী কাবিনে’র কবি আল মাহমুদ
বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান কবি আল মাহমুদ আর নেই। গতকাল শুক্রবার
বিস্তারিত
‌‘কবিতা ও কথা’র মোড়ক উন্মোচন
একুশে গ্রন্থমেলায় কবি ইসমাইল হোসেনের কবিতার বই ‘কবিতা ও কথা’র
বিস্তারিত
মেলায় আমীন আল রশীদের বই
অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এসেছে সাংবাদিক আমীন আল রশীদের বই ‘বাংলাদেশের
বিস্তারিত