জুহাইমের মেঘ দেখা

ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি পড়ছে অনেকক্ষণ। বিকেলও প্রায় শেষ। কিন্তু বৃষ্টি কমছে না। জুহাইম খেলতে এসেছিল। কিন্তু বৃষ্টিতে মাঠ ডুবে যাওয়ায় আর খেলা হলো না।
দূরে উঁচু মহাসড়কে গাড়ি ছুটে চলছে হেডলাইট জ্বালিয়ে। সড়কের পাশেই পানিভর্তি দিঘি। পানিতে মেঘের কালোছায়াও পড়ছে। বৃষ্টিতে বাসাতও কিছুটা ঠা-ার মতো।
সন্ধ্যা ঘনিয়ে এসেছে বলে পানকৌড়ির ঝাঁক ফিরছে তাদের বাসায়। বৃষ্টির পানিতে পুকুর, দিঘি, বিল সব পানিতে থইথই। তাই ওরা ডুব দিয়ে মাছ ধরেছে আর খেয়েছে। এখন পেট ভরা।
কালো মেঘে মনে হচ্ছে এখনই সন্ধ্যা নেমে গেছে। তবে এখনও দেখা যাচ্ছে ঘাস, লতাপাতা, মাঠ। জুহাইম তাকিয়ে আছে এসবের দিকে। আকাশে কালো মেঘও উড়ে উড়ে যাচ্ছে। জুহাইম সেদিকেও তাকায়। 
কালো রঙের মেঘগুলোকে কখনও পাহাড়, কখনও বাড়ি, কখনও নদী, কখনও মানুষের মতো মনে হয়। জুহাইম ভাবে কী সুন্দর এ প্রকৃতি। এসব ভাবতে ভাবতে বাড়ি ফেরে জুহাইম।


মশা ও লেখক
লেখার টেবিলে বসে আছি দুই ঘণ্টা হয়। ছোট্ট টেবিলবাতি সেই
বিস্তারিত
বনপাখিটার মনটা খারাপ
  বনপাখিটার মনটা খারাপÑ ভাঙবে কীসে তাহার মান? বীথি তিথি ভেবেই
বিস্তারিত
বন্ধু
আবুল বলল, ‘আমাগো ভুল বুইঝ না ভাই। আমরা আসলে...’, ‘তোরা
বিস্তারিত
হেমন্ত দিন
হেমন্ত দিন হরেক রঙিন হরেক রঙের খেলা বনে বনে ফুল-পাখিদের
বিস্তারিত
এলিয়েন এসেছিল
হামীম বসা থেকে দাঁড়িয়ে পড়ল। বললÑ কে তুমি? -হ্যাঁ আমি
বিস্তারিত
হেমন্ত এসেছে
মাঠে মাঠে সোনা ধানে প্রাণটা ফিরে পেল সেদ্ধ চালের গন্ধ
বিস্তারিত