জুহাইমের মেঘ দেখা

ঝমঝমিয়ে বৃষ্টি পড়ছে অনেকক্ষণ। বিকেলও প্রায় শেষ। কিন্তু বৃষ্টি কমছে না। জুহাইম খেলতে এসেছিল। কিন্তু বৃষ্টিতে মাঠ ডুবে যাওয়ায় আর খেলা হলো না।
দূরে উঁচু মহাসড়কে গাড়ি ছুটে চলছে হেডলাইট জ্বালিয়ে। সড়কের পাশেই পানিভর্তি দিঘি। পানিতে মেঘের কালোছায়াও পড়ছে। বৃষ্টিতে বাসাতও কিছুটা ঠা-ার মতো।
সন্ধ্যা ঘনিয়ে এসেছে বলে পানকৌড়ির ঝাঁক ফিরছে তাদের বাসায়। বৃষ্টির পানিতে পুকুর, দিঘি, বিল সব পানিতে থইথই। তাই ওরা ডুব দিয়ে মাছ ধরেছে আর খেয়েছে। এখন পেট ভরা।
কালো মেঘে মনে হচ্ছে এখনই সন্ধ্যা নেমে গেছে। তবে এখনও দেখা যাচ্ছে ঘাস, লতাপাতা, মাঠ। জুহাইম তাকিয়ে আছে এসবের দিকে। আকাশে কালো মেঘও উড়ে উড়ে যাচ্ছে। জুহাইম সেদিকেও তাকায়। 
কালো রঙের মেঘগুলোকে কখনও পাহাড়, কখনও বাড়ি, কখনও নদী, কখনও মানুষের মতো মনে হয়। জুহাইম ভাবে কী সুন্দর এ প্রকৃতি। এসব ভাবতে ভাবতে বাড়ি ফেরে জুহাইম।


ভাইয়ের ভালোবাসা
রুহানকে ভাইয়ের ভালোবাসা বোঝানোর জন্যই মামার এই কৌশল। এ কথা
বিস্তারিত
শরৎ সাজ
শরৎ সাজ পাই খুঁজে আজ শিউলি ফোটা ভোরে পল্লী গাঁয়ের মাঠে
বিস্তারিত
মশারাজ্যে
প্যাঁপো লাফাতে লাফাতে বলল, ‘আমি আগেই সন্দেহ করেছিলাম, আপনি বিদেশি
বিস্তারিত
আবার শরৎ এলো
নদীর ধারে শাদা ফুলের দোলা,
বিস্তারিত
জাতীয় কবি
ছোট্টবেলায় বাবা মারা যান অসহায় হন ‘দুখু’ সংসারে তার হাল ধরা
বিস্তারিত
বিদ্রোহী নজরুল
চুরুলিয়ার সেই ছেলে তুমি  কবিতার নজরুল, রণাঙ্গনের বীর সৈনিক প্রাণেরই বুলবুল। কেঁদেছো তুমি দুখীর
বিস্তারিত