স্বপ্ন হোক আকাশসমান

স্বপ্ন মানুষের বাঁচার আশা জোগায়, কর্ম মানুষকে বাঁচিয়ে রাখে। কাজের মাধ্যমেই মানুষ বেঁচে থাকে। তাই প্রয়োজন অধ্যবসায়ী হওয়া। পরিশ্রমই মানুষকে স্বপ্নের বহুকাক্সিক্ষত সীমানায় পৌঁছে দিতে পারে। 

সময়ের যেমন মূল্য আছে, কথার আছে মর্যাদা, কাজের আছে প্রশংসা। জীবন ক্ষণস্থায়ী। কিন্তু তার গৌরব চিরস্থায়ী। মানুষের জীবন মহাসাগরের বুদবুদের মতোই অকিঞ্চিৎকর। কিন্তু শিক্ষাভাণ্ডার বিশাল ও অফুরন্ত। কর্মজগতের পরিধি ক্রমবর্ধমান। এজন্য সমগ্র উপেক্ষণীয় নয়, আদরণীয়। স্বল্প নয়, প্রচুর সর্বদা জাগরূক মন নিয়ে সামনের এই ক্ষুদ্রতম অংশটুকু কাজে লাগাতে হবে। আর তা যদি আমরা না পারি, তাহলে আমাদের জীবন মাত্র কয়েকটি বছরের সমষ্টিতে পর্যবসিত হয়ে যাবে। 

প্রতিটি মানুষের জীবনে স্বপ্ন থাকে। তরুণদেরও স্বপ্ন থাকতে হবে। থাকতে হবে জীবনের লক্ষ্য। সেই লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য মানতে হবে নিয়মানুবর্তিতা, থাকতে হবে সময়জ্ঞান ও আদর্শ, হতে হবে কঠোর পরিশ্রমী। 
ড. এপিজে আবদুল কালাম বলেছেন, ‘স্বপ্ন বাস্তব হওয়ার আগে তোমাকে আগে স্বপ্ন দেখতে হবে।’ 
তিনি আরও বলেছেন, ‘সফল হতে হলে নিষ্ঠার সঙ্গে শুধু নিজ লক্ষ্যের প্রতিই মনোযোগ দিতে হবে।’
জীবনে সফলতা অর্জন করতে চাইলে নিয়মিত পড়াশোনা করা উচিত। আজকের কাজ আগামী দিনের জন্য ফেলে রাখলে চলবে না। জীবনের প্রতিটি মুহূর্তই মূল্যবান। তাই সময়ের যথার্থ মূল্য দিতে হবে। অবশ্যই সময়ের কাজ সময়ে সম্পন্ন করতে হবে। কথায় বলে, সময়ের এক ফোঁড় অসময়ের দশ ফোঁড়। সময় চলে গেলে হাজার চেষ্টায়ও তা ফিরিয়ে আনা সম্ভব নয়। গানের ভাষায়, ‘সময় গেলে সাধন হবে না।’

জীবনে সফলতা অর্জন করতে চাইলে লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ঠিক রাখতে হবে। মার্কিন ঔপন্যাসিক, প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক, সাহিত্যে নোবেল বিজয়ী টনি মরিসন বলেন- ‘কোন বিষয়ে তার আগ্রহ বেশি, এটা অনেক মানুষই অনেক পরে জানতে পারে। আবার কেউ কেউ আছে, যারা এটা কখনোই জানতে পারে না। এরই মধ্যে তুমি যদি তোমার লক্ষ্যটাকে স্থির করে থাকো অথবা খুঁজছ এমন হয়, মনে রেখো, কৌতূহলই এনে দেবে তোমার জীবনের সফলতা। অন্যদিকে স্বপ্ন সত্যি করতে হলে তোমার ভেতরে যে ‘তুমি’ আছে, তার কথা শুনতে হবে। আকাক্সক্ষা যদি বড় হয়, তোমার স্বপ্ন সত্য হবেই। সততা, নৈতিকতা ও আগ্রহ নিয়ে কাজ করতে হবে। যদি তোমার স্বপ্নের সঙ্গে আপস না করো, তুমি সফল হবেই।’
মার্কিন ঔপন্যাসিক আরও বলেছেন, ‘পথ বেছে নিতে তুমি যেমন স্বাধীন, সফল হওয়াটাও তোমার জন্য উন্মুক্ত। দরকার শুধু কঠোর পরিশ্রম এবং একটা স্বপ্ন।’

তবে স্বপ্ন দেখলেই শুধু হবে না- পুরানো, জরাজীর্ণ, স্থবির রীতিনীতিকে ভেঙে নিজের এগিয়ে চলার পথ করতে হবে মসৃণ। ব্যর্থতায় পিছিয়ে পড়লে চলবে না; বরং দৃঢ়তার সঙ্গে টিকে থেকে বলিষ্ঠভাবে মোকাবিলা করতে হবে। পুরানো অনিয়ম ভেঙে নতুন জ্ঞানের প্রদীপ জ্বালিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হতে হবে। সব অজ্ঞতার অন্ধকার দূর করতে হবে তরুণ প্রজন্মকেই।
হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের উইলিয়ম জেমস (William James)  বলেছেন, ‘আমাদের প্রজন্মের সর্বশ্রেষ্ঠ আবিষ্কার হলো এই যে, মানুষ মনোভাবের পরিবর্তন ঘটিয়ে তার জীবনযাত্রার পরিবর্তন ঘটাতে পারে।

প্রকৃত শিক্ষায় বুদ্ধিবৃত্তি ও হৃদয়বৃত্তি দুই-ই সমৃদ্ধ হয়। শিক্ষার্থীদের গ্রেড পাওয়ার জন্য নয়, প্রতিযোগিতা হওয়া উচিত জ্ঞান ও সুশিক্ষা লাভের জন্য। তরুণদের সব সময় ইতিবাচক মনোভাব পোষণ করতে হবে। ইতিবাচক মনোভাবের সুবিধা অনেক। যেমন-
* ইতিবাচক ভাবনা সমস্যার সমাধান করে এবং কাজের উৎকর্ষতা বাড়ায়;
* মানসিক চাপ কমায়; 
* সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি করে;
* একটি প্রসন্ন ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ হিসেবে সমাজে পরিচিত ও সুনাম অর্জন করতে সাহায্য করে; 
* ইতিবাচক ভাবনা অর্জনের আকাক্সক্ষাকে পোক্ত করে।

শিক্ষার্থীদের করণীয় : প্রতিটি শিক্ষার্থীর প্রয়োজন পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি বেশি বেশি বই পড়া। বই মানুষের মনের কালিমা দূর করে জ্ঞানের দিক দিয়ে ঐশ্বর্যবান করে তোলে।
আমরা তথ্যের ভারে আকণ্ঠ নিমজ্জিত হলেও জ্ঞান ও বিজ্ঞতার বা অবিজ্ঞতার অভাবে তৃষ্ণার্ত। শিক্ষা কেবল জীবিকা অর্জনের পথনির্দেশই করে না, কীভাবে সুন্দর জীবনযাপন করতে হয়, সে শিক্ষাও দেয়।
বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিন বলেছেন, ‘কোনো কোনো বিষয়ে অজ্ঞ হওয়ার মধ্যে কোনো লজ্জা নেই; কিন্তু কোনো করণীয় কাজের সঠিক পদ্ধতিটি আয়ত্ত করার অনিচ্ছা প্রকৃতই লজ্জার।’
তবে শিক্ষিত হওয়া মানে শুধু পাঠ্যপুস্তক পড়ে ভালো ফল করা নয়, সুন্দর চরিত্র গঠন করতে হবে। সেই সঙ্গে নৈতিক শিক্ষাও লাভ করতে হবে।
ফরাসি দার্শনিক ব্লেইজ পাসক্যালকে(Blaise Pascal) একবার একজন বলেছিলেন, আপনার মতো আমার মেধা থাকলে আরও ভালো মানুষ হতে পারতাম। উত্তরে পাসক্যাল বলেছিলেন, আগে ভালো মানুষ হন, তাহলে আপনি আমার মেধা পাবেন।
সততা একটি মহৎ গুণ। অনেক লোভ সংবরণ করে, অনেক কিছু ত্যাগ করে সৎ থাকতে হয়। সততার মতো বড় কোনো শক্তি নেই। সততা মানুষকে মাথা উঁচু করে সম্মানের সঙ্গে মেরুদণ্ড সোজা করে বাঁচতে শেখায়। তাই তরুণদের সৎ হওয়া বাঞ্ছনীয়। সৎ মানুষকে সবাই সম্মান করেন। জীবনে সাফল্যের চূড়ায় পৌঁছতে হলে এসব গুণের অধিকারী হতে হবে। 

ড. এপিজে আবদুল কালামের কথা দিয়েই শেষ করছি- ‘স্বপ্ন, স্বপ্ন, স্বপ্ন। স্বপ্ন দেখে যেতে হবে। স্বপ্ন না দেখলে কাজ করা যায় না। স্বপ্নবাজরাই সীমা ছাড়িয়ে যেতে পারেন।’
আবদুল কালাম আরও বলেছেন, ‘স্বপ্ন বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত তোমাকে স্বপ্ন দেখতে হবে। আর স্বপ্ন সেটা নয় যেটা তুমি ঘুমিয়ে দেখ; স্বপ্ন হলো সেটাই, যেটা পূরণের প্রত্যাশা তোমাকে ঘুমাতে দেয় না।’


আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ পেলেন ৯০ প্রাণী
পোলট্র্রির বিজ্ঞানসম্মত স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা, সঠিকভাবে রোগবালাই নির্ণয়, চিকিৎসা এবং রোগ
বিস্তারিত
সবার উপরে বাবা-মা
যে-কোনো মানুষের গায়ে হাত তোলাই অপরাধ। আর সন্তান হয়ে বাবা-মায়ের
বিস্তারিত
স্মৃতির মানসপটে যুক্তরাজ্য সফর
বিদেশে যাওয়ার অভিজ্ঞতা হয়তো অনেকেরই হয়ে থাকে। তবে কলেজের প্রতিনিধি,
বিস্তারিত
ব্যবসার ধারণা : গড়তে চাইলে
নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে আপনাকে উদ্যোগী হতে হবে। আর উদ্যোক্তা
বিস্তারিত
৭৫ শতাংশ বৃত্তিতে আইটি ও
বিভিন্ন কারণে যারা আইটিতে দক্ষতা উন্নয়নের সুযোগ থেকে বঞ্চিত তাদের
বিস্তারিত
লক্ষ্য যখন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার বিপরীতে ক্রমাগত উর্বরা জমির পরিমাণ কমছে। জনসংখ্যার এ
বিস্তারিত