কাঁচা আমের বহু গুণ

কাঁচা ও পাকা— উভয় অবস্থায় যেসব ফল খাওয়া যায়, সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো আম। পাকা আম খেতে অত্যন্ত সুস্বাদু ও পুষ্টিকর। তবে কাঁচা আমেরও গুণের শেষ নেই। পুষ্টিবিদরা জানান, কাঁচা আমের রস ব্যায়ামের চেয়েও উপকারী। এ রস তীব্র গরমের প্রভাব থেকে রক্ষা করে এবং পানিশূন্যতা দূর করে। এটি শরীর থেকে অতিরিক্ত সোডিয়াম ক্লোরাইড এবং আয়রন বের হওয়া থেকেও বাঁচায়। পাকস্থলীর যে কোনো ধরনের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে কাঁচা আম।

এছাড়া এটি সকালে বমি বমি ভাব, কোষ্টকাঠিন্য ও ডায়রিয়া কমাতে কার্যকরী ভূমিকা রাখে। কাঁচা আম হজমশক্তিও বাড়ায়। কাঁচা আমে থাকা নিয়াসিন হৃদরোগের জন্য বেশ উপকারী। এটি হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে এবং খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। কাঁচা আম শুকিয়ে আমচূড় করা হয়। এটি অথবা শুকনো কাঁচা আমের গুঁড়া স্কার্ভি নামক চর্মরোগ সারাতে ব্যবহার করা হয়। 

কারণ কাঁচা আমে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন-সি থাকে। এছাড়া এটি রক্তের লোহিত কণিকা তৈরিতে সাহায্য করে। কাঁচা আম যকৃৎ এবং এ সম্পর্কিত যে কোনো ধরনের অসুখ সারাতে সাহায্য করে। এক টুকরো কাঁচা আম চিবিয়ে খেলে তা খাবারে থাকা ক্ষতিকর জীবাণু ধ্বংস করতে সাহায্য করে। এটি ফ্যাট শোষণ করতেও কার্যকরী ভূমিকা রাখে। এক টুকরা কাঁচা আম চিবিয়ে খেলে অবসন্ন ভাব দূর হয়। এটি শরীরের কার্যক্ষমতাও বাড়ায়।

সূত্র : এনডিটিভি


গীতিকার ইলা মজিদের সাথে কিছুক্ষণ
লেখালেখির জগতে বেশ হাত পাকিয়েছেন ইলা মজিদ। ইতোমধ্যে কাশবনের দীর্ঘশ্বাস,
বিস্তারিত
ওদের প্রতিভা বিকাশের দায়িত্ব আমাদেরই
ওরা সবাই আমাকে ভালোবাসে। দূর থেকে আমাকে দেখতে পেলেই ভাইয়া
বিস্তারিত
পায়ে লিখেই জীবন গড়ার স্বপ্ন
মানুষ যেকোনও লেখালেখির কাজ সাধারণত হাত দিয়েই করে থাকে। হতে
বিস্তারিত
বিরিয়ানির হাঁড়িতে লাল কাপড় থাকে
বিরিয়ানি পছন্দ করেন না এমন লোক বাংলাদেশে খুঁজে পাওয়া কষ্ট
বিস্তারিত
ফের প্রকৃতির বুকে বিলুপ্ত হয়ে
প্রায় ১ লক্ষ ৩৬ হাজার বছর আগে সমুদ্রের তলদেশে নিশ্চিহ্ন
বিস্তারিত
সবচেয়ে বেশি হাসে যে দেশের
‘কোন দেশের মানুষ সবচেয়ে বেশি হাসে?’ এই প্রশ্নের জবাব খুঁজতে
বিস্তারিত