নাপৃথিবী

হাতের রেখার দিকে তাকিয়ে দেখি অসংখ্য বাঁক-উপবাঁক, এ হাত আমার নয়; মুখের ভাঁজের দিকে তাকিয়ে দেখি ছড়ানোছিটানো চিহ্নক্ষত, এ মুখ আমার নয়; পায়ের আঙুলের দিকে তাকিয়ে দেখি খুবলে গেছে, এ পা আমার নয়; ঘরের দিকে তাকিয়ে দেখি ধুলাময়লায় ভরা, এ ঘর আমার নয়; আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দেখি অন্য এক প্রতিবিম্ব, এ ছবি আমার নয়;

পাখির দিকে তাকিয়ে দেখি ক্ষুধায় কাতর, এ পাখি বাঁচার নয়; গাছের দিকে তাকিয়ে দেখি কীটের দংশনে ফুল পাতা বিবর্ণ, এ গাছ প্রকৃতির নয়; অরণ্যের দিকে তাকিয়ে দেখি উজাড় বনবনানি, এ অরণ্য আমার নয়; উপত্যকার দিকে তাকিয়ে দেখি সমতল সমতল, এ পাহাড় আমার নয়; স্রোতস্বিনীর দিকে তাকিয়ে দেখি কোনো স্রোত নেই, এ নদী আমার নয়; দেশের দিকে তাকিয়ে দেখি বীভৎস রিরংসা, এ দেশ আমার নয়; ধরণির দিকে তাকিয়ে দেখি বারুদ ধোঁয়া অস্ত্র যুদ্ধ, এ পৃথিবী মানুষের নয়;


রুদ্রর কবিতা উচ্চারণ থেকে কথনে
রুদ্রর বহির্মুখী চেতনারাশির ওপর তার ভাবকল্প ও সংরাগবহুলতার তোড় আছড়ে
বিস্তারিত
আলো জেলে রাখি কবিতার খাতায়
কী নীরব রাত! একা একা বসে লিখছি। লেখার মাঝে দুঃখগুলো
বিস্তারিত
কতিপয় বিচ্ছিন্ন মুহূর্তের টীকা
  ১. নিরন্তর শুষ্কতার বশে আমি এক মরুকাঠ; অথচ ঠান্ডাজলপূর্ণ কিছু
বিস্তারিত
রৈখিক রক্তে হিজলফুল
বৃষ্টি হৃদয় উঠোন ভিজিয়ে যায় বিপ্রতীপ বিভাবন আঁধারের ক্লান্তিলগ্নে চোখের
বিস্তারিত
অপারগতা
না তুষার ঝড় না মাইনাস ফোর্টি শীতের রাত তো, বুড়োটা কিছুক্ষণ
বিস্তারিত
যন্ত্রণার দীর্ঘশ্বাস
  অলীক স্বপ্ন, অসীম দহন, সমুখের হিসাব নিকাশ প্রদীপের শিখা ছিল
বিস্তারিত