রোজা অবস্থায় চোখে, নাকে ও কানে ড্রপ দেওয়া

রোজা অবস্থায় দিনের বেলায় প্রয়োজনে চোখে, নাকে ও কানে ড্রপ দেওয়া যায়। কারণ এটি পানাহারের অন্তর্ভুক্ত নয় এবং এর দ্বারা পানাহারের উদ্দেশ্যও সাধিত হয় না। সর্বোপরি এই ওষুধ সরাসরি পাকস্থলী বা মস্তিষ্কেও যায় না। যদিও কখনও কখনও নাকে বা চোখে ড্রপ দিলে মুখে তার স্বাদ অনুভূত হয়; তবু এটি অতি স্বল্প মাত্রায় হওয়ার কারণে ধর্তব্যের আওতায় পড়ে না। যেমনÑ অজু করার সময় কুলি করলে মুখের ভেতরে পানি লাগে, তাতে কিন্তু রোজার কোনো ক্ষতি হয় না। গোসল করার সময় শরীরের লোমকূপগুলো দিয়ে যে অতি অল্প পরিমাণে পানি প্রবেশ করে তাতেও রোজার ক্ষতি হয় না।

অনুরূপভাবে শরীরের যে-কোনো জায়গায় ক্ষতস্থানে বা ব্যথায় ক্রিম বা পাউডার ওষুধ লাগালেও রোজার কোনো ক্ষতি হবে না; যদিও তা রক্তের সঙ্গে মিশে যায়। (মাজমাউল ফাতাওয়া)। 


কৃতজ্ঞ ও কৃতজ্ঞতার মাহাত্ম্য
আর আমাদের নবী (সা.) এর কথা তো বলাই বাহুল্য। নিজ
বিস্তারিত
মিতব্যয়িতা : ইসলামের মধ্যমপন্থার একটি
  দুনিয়ার এ সংক্ষিপ্ত জীবনে আল্লাহ মানুষকে সম্পদের মালিকানা দিয়ে
বিস্তারিত
শ্রমিকের অধিকার বাস্তবায়নে ইসলামের শ্রমনীতি
খতিব : হাজী জাহেদ আলী ফকির কেন্দ্রীয় শাহী মসজিদ, আমতলী,
বিস্তারিত
ন্যাড়া গ্যাংয়ের পাবলিসিটি
সারিবদ্ধভাবে একই রকম পায়জামা-পাঞ্জাবি পরে এলাকায় ঘুরছে একদল কিশোর। যাদের
বিস্তারিত
সুফি সাহেবের বিশ্বাসঘাতক বউ
লোকটির পরিচয় সুফি। তার আধ্যাত্মিক সাধনার ঠিকানা খানকাহ। জীবন-জীবিকার জন্য
বিস্তারিত
সুফিকোষ
‘নাজিব’ আরবি শব্দ, বিশেষণ, একবচন, পুংলিঙ্গ; এর স্ত্রী-লিঙ্গ হলো ‘নাজিবাহ’।
বিস্তারিত