নিয়তি

হাঁটা শেষে পথিক রেখে যায় পদচিহ্ন
তারপর মদের গন্ধের মতো সময় পালায়
আবার নতুন পা আসে
দাঁড়ায়, হাঁটে একই গন্তব্যে
চোখে রোদ-আলো, অন্ধরাতের পাহারা
কনকলতা কিংবা কখনও ছুরি হাতে
ভারী ভারী পা ফেলে
সারি সারি চরণচিহ্ন রেখে
চলে যায় অজস্র পথিক, অগণিত দিন
উড়ে যায় ধোঁয়া হয়ে পলকে পলকে

মানুষ নিঃশেষ হলে পদচিহ্ন থাকে
থেকে থেকে মিশে যায় মলিন ধুলায়।


তবু পথ থেকে যায়
  কিছু দূর যায় রাস্তা, কিছুটা মানুষ, মেটো পথ এঁকেবেঁকে
বিস্তারিত
আমিই বিজয়ী আমি কবি
  নিজের রাস্তা নিজে করে এসেছি তো বহুদূর আমার চলার
বিস্তারিত
নিঃসঙ্গ যে জাগরণ
  চিত্রনাট্য তৈরি করার আগে থেকে। আমরা সবে নিয়তির হাতের
বিস্তারিত
পরিমাপ
  ভালোবাসা ডুবে আছে পাঁচ ফুট ছয় ঢেউ যদি ছিন্ন
বিস্তারিত
দরদ, বড় হোস না বাবা
  কুটুমের নিয়মাবলির চতুষ্কোণ বেষ্টনীতে মনকে একটা ছদ্মবেশের দীর্ঘ তালিম
বিস্তারিত
ঘুমাবে না নষ্ট রাত
  এখন ঘুমানো যায়,  শহরের গলিতে গলিতে রাত নেমেছে। পথগুলো
বিস্তারিত