প্রচ-


 

ভোজালি ঢুকে ভাবছি, শরীর বেঁচে আছে তো! যদি আঁচ পেতাম, হাতপালা পৃথিবী নাড়াচ্ছে, কখনও আমাকেও। ফলাচ্ছে পাথর। তবু ঠান্ডা ব্যবহারে বুঝি, মানুষ আমাকে নিয়ে পার্কে চলে গেল। খুব ঘেঁষে এলোমেলো করে দিল দেহের গামা, বিটা। শুধু দেখা যায় বিচিত্রবাহু ছুটছে। হাতসমস্ত যেন কার অধিকার ছিন্ন হয়ে তারা তারা আকাশে আমাদের ইশারা করছে। প্রবর মাংসে স্রোত যেহেতু ঘাপটি করে আছে। আমি শিরিশিরি কাঁপছি। অপর শরীরের বেলকনিতে এসো, আঙুর ছুড়ে দাও। আমাদের রক্তের যা কিছু তুচ্ছ সব উগ্রতপাকে দিই। হোক অমূল্য, হোক বজ্রতূর্য, হোক সিপাহি-গৌরব।


এ এ এম জাকারিয়া মিলনের
মেলায় এসেছে এ এ এম জাকারিয়া মিলনের আত্মজীবনী ‘পথ চলেছি
বিস্তারিত
এক কিশোরের বিপরীত স্রোতে চলা
বের হয়েছে আনোয়ার রশীদ সাগরের কিশোর উপন্যাস ‘স্রোতের কালো চোখ’।
বিস্তারিত
শামিম আরা স্মৃতির দুটি বই
  মেলায় এসেছে শামিম আরা স্মৃতির দুটি বই ‘ইচ্ছে ঘুড়ি’ এবং
বিস্তারিত
চেনাজানা জগতের আখ্যান
গ্রন্থমেলায় বের হয়েছে গল্পের বই ‘ভাঁজ খোলার আনন্দ’। লেখক এনাম
বিস্তারিত
মুক্তিযুদ্ধের গল্প কথা
প্রজন্মের ভাবনায় গল্পে ৭১। সম্পাদনা ফখরুল হাসান। প্রকাশ করেছে বাবুই
বিস্তারিত
বেদনার নীল সুখ
বেদনার নীল সুখ। লেখক তাসলিমা কবীর রিংকি। প্রকাশ করেছে পায়রা
বিস্তারিত