ট্রাম্পের সঙ্গে ঐতিহাসিক বৈঠক

নিরাপত্তার বিনিময়ে পরমাণু অস্ত্র ত্যাগ করবেন কিম

উত্তর কোরিয়াকে লক্ষ্য করে সামরিক মহড়া বন্ধ করবেন ট্রাম্প

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার নিরাপত্তার গ্যারান্টির বিনিময়ে কিম জং উন পরমাণু অস্ত্র ত্যাগ করার অঙ্গীকার করেছেন। তিনি বলেন, আমরা নতুন ইতিহাস শুরু করতে এবং দু’দেশের মধ্যে নতুন অধ্যায়ের সূচনা করতে প্রস্তুত। মঙ্গলবার সিঙ্গাপুরের অবকাশ দ্বীপ সেন্তোসার বিলাসবহুল ক্যাপেলা হোটেলে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে এক ঐতিহাসিক শীর্ষ বৈঠক এবং যৌথ ঘোষণা স্বাক্ষরের পর তিনি এ কথা বলেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্প এ বৈঠক সম্পর্কে বলেছেন, তাদের মধ্যে ‘বেশ ভালো’ আলোচনা হয়েছে। তিনি  বলেন, এটি ‘খুব গুরুত্বপূর্ণ’ এবং ‘বেশ ব্যাপক’ এবং তিনি ও ‘চেয়ারম্যান কিম’ এটি স্বাক্ষর করে ‘দুজনেই খুব সম্মানিতবোধ করছেন’।

কিম বলেছেন, ‘আমরা একটি ঐতিহাসিক বৈঠকে মিলিত হয়েছি এবং অতীতকে পেছনে ফেলে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ ‘এ বৈঠক হওয়ার জন্য’ ট্রাম্পকে তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

দুই নেতার স্বাক্ষরিত যৌথ ঘোষণায় কিম কোরিয়া উপদ্বীপকে পরমাণু অস্ত্র মুক্ত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তবে এর পর এক নজিরবিহীন সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বেশ কিছু খুঁটিনাটি বিষয় প্রকাশ করেন- কাগজপত্রে যার উল্লেখ নেই।

সিঙ্গাপুরে ঐতিহাসিক একান্ত বৈঠকের পর ট্রাম্প বলেন, উত্তর কোরিয়ার নেতা ‘একটি বড় ক্ষেপণাস্ত্র ইঞ্জিন পরীক্ষা ক্ষেত্র’ ধ্বংস করতে রাজি হয়েছেন এবং এর বিনিময়ে যুক্তরাষ্ট্র উত্তর কোরিয়াকে লক্ষ্য করে সামরিক মহড়া চালানো বন্ধ করবে। তিনি এসব যুদ্ধের মহড়াকে ‘ব্যয়বহুল এবং উসকানিমূলক’ বলেও বর্ণনা করেন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, কিম একমত হতে পারেন এমন একটি নথির খসড়া তৈরিতে তিনি দিন-রাত কাজ করেছেন। যাতে উত্তর কোরিয়া এর অতীত কর্মকা- থেকে সরে আসে। ট্রাম্প বলেন, ২৫ ঘণ্টা আমি ঘুমাইনি। তবে আমার মনে হয়েছে, এ কাজটা (নথির খসড়া তৈরি) অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘদিন ধরে উত্তর কোরিয়ার উপর আরোপিত অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা শিথিলের কোনো প্রতিশ্রুতি ট্রাম্প কিমকে দেননি। তবে তিনি বলেন, কিম যদি তার প্রতিশ্রুতি মোতাবেক কাজ করেন তাহলে তিনি (ট্রাম্প) অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়টি বিবেচনা করবেন। খুব শিগগিরই তিনি উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে দূত বিনিময়ের বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। একই সঙ্গে তিনি বলেন, কিমকে তিনি হোয়াইট হাউজে আমন্ত্রণ জানাবেন এবং একটা সময়ে তিনিও নিজে পিয়ংইয়ং সফর করবেন। ট্রাম্প আশা প্রকাশ করেন, উত্তর এবং দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে বৈরিতা অচিরেই অবসান ঘটবে। অতীতের নিরিখে কখনও ভবিষ্যৎকে নির্ধারণ করা উচিত হবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, যুদ্ধ যে কেউ বাধাতে পারে। তবে কেবল অসীম সাহসীরাই শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে পারেন। দুই রাষ্ট্রের বর্তমান পরিস্থিতি এভাবে আজীবন ধরে চলতে পারে না।     

কেউ কেউ অবশ্য এই মহড়া বন্ধের অঙ্গীকারকে ‘যুক্তরাষ্ট্র ছাড় দিয়েছে’ বলে উল্লেখ করতে চাইছেন। তবে এই প্রথম ক্ষমতাসীন অবস্থায় কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্ট এবং উত্তর কোরিয়ার নেতার বৈঠক হলো, যারা কিছুকাল আগেও পরস্পরের উদ্দেশে অপমানকর ব্যঙ্গবিদ্রুপ ছুড়ে দিচ্ছিলেন।

বিবিসি জানিয়েছে, ট্রাম্প-কিম যৌথ ঘোষণার প্রধান চারটি বিষয় হলো :

যুক্তরাষ্ট্র ও গণপ্রজাতন্ত্রী কোরিয়া নতুনভাবে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক স্থাপনে উদ্যোগী হবে, যাতে দুই দেশের মানুষের দীর্ঘমেয়াদি শান্তি ও উন্নতির বিষয়টি প্রতিফলিত হবে। কোরিয়া উপদ্বীপে স্থিতিশীল ও শান্তিপূর্ণ শাসনব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে যৌথভাবে কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র ও গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রী কোরিয়া।

২৭ এপ্রিল ২০১৮ এর পানমুনজাম বিবৃতি অনুযায়ী কোরিয়া উপদ্বীপকে সম্পূর্ণ পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের অঙ্গীকার রক্ষা করবে উত্তর কোরিয়া।

যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়া যুদ্ধবন্দিদের নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে ভূমিকা রাখবে এবং এরই মধ্যে যেসব যুদ্ধবন্দি  চিহ্নিত হয়েছেন তাদের প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া অতিসত্বর শুরু করবে।

এ যৌথ ঘোষণায় দুই নেতা স্বাক্ষর করার পর ট্রাম্প এক প্রতিক্রিয়ায় একে ‘ব্যাপক’ বলে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, ‘আজকে যা হলো তার জন্য আমরা অত্যন্ত গর্বিত। আমরা দুজনেই চাই কিছু করতে, আমরা দুজনেই কিছু করতে যাচ্ছি।’

কিম কোরিয়ান উপদ্বীপকে সম্পূর্ণরূপে পরমাণু অস্ত্রমুক্ত করার জন্য তার অবিচল এবং দৃঢ় অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন। কীভাবে এটা করা হবে তা স্পষ্ট করা হয়নি বলে কোনো কোনো বিশ্লেষক মত দিয়েছেন। তারা বলছেন, মাত্র দেড় পৃষ্ঠার এই দলিলটি অস্পষ্ট এবং ‘এর ভেতরে কিছু নেই।’

তবে পরে সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন, পরমাণু অস্ত্র ত্যাগের ব্যাপারটি যেন যাচাই করে দেখা যায়, তাতে কিম রাজি হয়েছেন। ট্রাম্প বলেন, উত্তর কোরিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আপাতত বলবৎ থাকবে। তবে কিম অঙ্গীকারবদ্ধ থাকলে পরে তা তুলে নেওয়া হতে পারে।

এ বৈঠকের পর দক্ষিণ কোরিয়া বলেছে, এর মধ্য দিয়ে শীতল যুদ্ধের যুগের শেষ সংঘাতের অবসান হলো।

একে আরও স্বাগত জানিয়েছেন রাশিয়া এবং চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরাও। চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই বলেছেন, এখন উত্তর কোরিয়ার ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞাগুলো শিথিল করা যেতে পারে। তবে ইরান বলেছে, এমনও হতে পারে যে, ট্রাম্প দেশে ফিরে যাওয়ার আগেই এ ঘোষণা বাতিল করে দিতে পারেন।

সকালে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে কিম বলেন, তার বিশ্বাস এই বৈঠক শান্তির পথে বিশাল অগ্রগতি। তার সঙ্গে একমত পোষণ করে ট্রাম্প বলেন, ‘অবশ্যই পথ অনেক কঠিন হবে। তবে আজ থেকে একটা ভালো দিন শুরু হলো।’

যৌথ ঘোষণা স্বাক্ষরের আগে দুই নেতা কাপেলা হোটেলের লাইব্রেরিতে একান্তে ৪৫ মিনিট বৈঠক করেন। তাদের সঙ্গে তখন কেবল দোভাষী ছিলেন। এরপর তারা বেরিয়ে এসে বারান্দা থেকে সাংবাদিকদের উদ্দেশে হাসিমুখে হাত নাড়েন।

কিমের প্রশংসায় ট্রাম্প : কিমের প্রশংসা করে ট্রাম্প বলেছেন, পরিবর্তন আসলেই সম্ভব। তিনি আরও বলেন, কিমের সঙ্গে আমার বৈঠক ছিল আন্তরিক, গঠনমূলক আর খোলামেলা। এক প্রশ্নের উত্তরে ট্রাম্প বলেন, কিম ‘খুবই প্রতিভাবান’। তিনি খুব কম বয়সে একটি দেশের ক্ষমতা নিয়েছেন ও ‘কঠোরভাবে’ দেশটি পরিচালনা করছেন।

এ বৈঠকে মার্কিন প্রতিনিধি দলে ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও, চিফ অব স্টাফস জন কেলি ও ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাডভাইজার জন বল্টন। হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি সারাহ স্যান্ডার্স, ফিলিপাইনে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত সুং কিম ও ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের এশিয়াবিষয়ক সিনিয়র পরিচালক ম্যাট পটিংগার। উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধি দলে ছিলেন ক্ষমতাসীন দল কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান কিম ইয়ং চল, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের পরিচালক রি সু ইয়ং, পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং হো ও উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী চো সন হুই। সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, ডেইলি মেইল


ফিলিস্তিনীদের রক্ষায় জাতিসংঘের চার প্রস্তাব
জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস ইসরাইল অধিকৃত এলাকায় ফিলিস্তিনীদের রক্ষায় শুক্রবার
বিস্তারিত
ট্রাম্পের প্রতি নিন্দায় বিবৃতি সাবেক
আমেরিকার সেন্ট্রাল ইনটেলিজেন্স এজেন্সি’র (সিআইয়ের) কয়েকজন সাবেক পরিচালক এবং দেশটির
বিস্তারিত
২২তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ইমরান খানের
পাকিস্তান তেহরিকে ইনসাফ দলের সভাপতি ও সাবেক ক্রিকেট অধিনায়ক ইমরান
বিস্তারিত
কফি আনান আর নেই
জাতিসংঘের প্রাক্তন মহাসচিব কফি আনান (৮০) আর নেই। শনিবার (১৮
বিস্তারিত
ইমরানই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী
তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)'র চেয়ারম্যান ও সাবেক ক্রিকেট তারকা ইমরান খান পাকিস্তানের
বিস্তারিত
১৫৭ যাত্রীসহ ছিটকে পড়লো প্লেন,
হঠাৎ চাকা আটকে গিয়ে ফিলিপাইনের মেনিলা বিমানবন্দরের রানওয়ে থেকে ছিটকে
বিস্তারিত