ক্যারিয়ার গড়তে পারেন কম্পিউটার সায়েন্সে

কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) তথ্যপ্রযুক্তির এ যুগে জনপ্রিয় বিষয়। আজকাল অনেকেই উচ্চশিক্ষায় বেছে নিচ্ছে সিএসই। সারা বিশ্বের পাশাপাশি আমাদের দেশও তথ্যপ্রযুক্তিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তাই ক্যারিয়ার গড়ার জন্য কম্পিউটার সায়েন্স বিষয়টি বেশ ভালো সিদ্ধান্ত হতে পারে। এ বিষয় পড়াশোনায় শিক্ষার্থীরা সর্বত্রই প্রযুক্তির ছোঁয়ায় থাকে বলে শিক্ষাকে শুধু পড়াশোনার চাপ হিসেবে না নিয়ে আনন্দ ও বিনোদনের অংশ খুঁজে পায়। অন্যদিকে গড়ে উঠতে থাকে চাকরির ক্যারিয়ারও। দিন দিন এ কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং সাবজেক্টের চাহিদা যেমন বাড়ছে তেমনি পাল্লা দিয়ে বাড়ছে কর্মসংস্থানের সুযোগ। বাংলাদেশের অনেক সিএসই ইঞ্জিনিয়ারই বিশ্বের নামকরা প্রতিষ্ঠানে সাফল্যের সঙ্গে চাকরি করছেন। তবে শুধু চাকরিই নয়, যারা ৯টা-৫টা অফিস করতে চান না তাদের জন্য রয়েছে ঘরে বসেই ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ করে আয়ের সুযোগ। সিএসই বিষয়টি প্রধান কর্মক্ষেত্র হচ্ছে শিক্ষকতা, গবেষণা ও প্রোগ্রামিং। এসব সেক্টরের পাশাপাশি সুযোগ থাকছে ব্যাংক, করপোরেট হাউজ, মিডিয়াসহ প্রায় সব জায়গায়। বর্তমান সরকারের পরিকল্পনা অনুযায়ী ডিজিটাল বাংলাদেশ তৈরিতে সবচেয়ে বড় সহযোগী হতে পারে দেশের সিএসই পড়–য়া শিক্ষার্থীরা।

কম্পিউটার সায়েন্স বিষয়ে ক্যারিয়ার গড়তে হলে তাত্ত্বিক বিষয়ের পাশাপাশি প্রায়োগিক বিষয়েও ভালো ধারণা থাকতে হবে। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে এখন অত্যাধুনিক কম্পিউটার রয়েছে; দ্রুতগতির ইন্টারনেট এছাড়াও রয়েছে নানাবিধ সুযোগ-সুবিধা। এর ফলে শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই পাচ্ছে পড়াশোনার প্রয়োজনীয় সব তথ্য।
বিষয়গুলো : চার বছর মেয়াদি আন্ডার গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রামগুলোর মধ্যে রয়েছেÑ বিএসসি (অনার্স) ইন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই), ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ), বিএসসি (অনার্স) ইন ইলেক্ট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইসিই)। এক বছর মেয়াদি পোস্ট গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রামগুলো হলোÑ এমএসসি ইন কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (এমসিএসসি), মাস্টার্স অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এমবিএ)। এ ছাড়া রয়েছে বাংলাদেশ টেকনিক্যাল এডুকেশন বোর্ডের (বিটিইবি) অধীনে চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং (কম্পিউপার, টেলিকমিউনিকেশন, সিভিল, ইলেক্ট্রিক্যাল)। 
কোথায় পড়বেন : জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি (আইএসটি)। প্রতি বছর আইএসটির স্নাতক ডিগ্রিধারী শিক্ষার্থীরা চাকরি ক্ষেত্রে দেশের খ্যাতনামা সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে যোগদান করছেন। দেশের গ-ি পেরিয়ে সাফল্য ছড়িয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া স্টেটের লস অ্যাঞ্জেলেসে। যেখানে টম অ্যান্ড জেরির ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি ওয়ার্নার ব্রস এন্টারটেইনমেন্টে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে চাকরিরত রয়েছেন আইএসটির প্রথম ব্যাচের ছাত্র আবু হায়াত মোহাম্মদ বিন কাশেম। বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে এই প্রতিষ্ঠানটির ইন্ডাস্ট্রিলিয়াল সম্পর্ক বিদ্যমান। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলোÑ ডিভাইন আইটি লিমিটেড, লিডস করপোরেশন, ডাটাসফট, কনা সফটওয়্যার, বাংলাদেশ ইন্টারনেট প্রেস লিমিডেট, ব্র্যাক ব্যাংক, সাউথ ইস্ট ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, রূপালী ব্যাংক, গ্রামীণ ব্যাংক, বাংলালিংক, রবি আজিয়াটা লিমিটেড প্রভৃতি।
যোগাযোগ : বাড়ি ৫৪, রোড ১৫/এ (পুরাতন-২৬) (শংকর বাসস্ট্যান্ডের পূর্ব পাশে), ধানমন্ডি, ঢাকা। 
টিউশন ফি : চার বছরের টিউশন ফি-সিএসই এবং ইসিই : ১ লাখ ৭৪ হাজার টাকা এবং বিবিএ : ১ লাখ ৮৫ হাজার টাকা। মেধাবীদের জন্য আছে বৃত্তি এবং ওয়েভারের ব্যবস্থা। দরিদ্র মেধাবীদের জন্য রয়েছে এসআর ফান্ড এবং এতিম মেধাবী ছাত্রীদের জন্য রয়েছে আরএইচ ফান্ড।
ক্যারিয়ার : দেশে-বিদেশে সব জায়গাতেই রয়েছে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের চাহিদা। মোবাইল কোম্পানি, ব্যাংক-বীমা, আইটি ফার্ম, সফটওয়্যার কোম্পানিসহ প্রায় প্রতিটি কোম্পানিতেই রয়েছে কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারদের চাহিদা।


আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ পেলেন ৯০ প্রাণী
পোলট্র্রির বিজ্ঞানসম্মত স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা, সঠিকভাবে রোগবালাই নির্ণয়, চিকিৎসা এবং রোগ
বিস্তারিত
সবার উপরে বাবা-মা
যে-কোনো মানুষের গায়ে হাত তোলাই অপরাধ। আর সন্তান হয়ে বাবা-মায়ের
বিস্তারিত
স্মৃতির মানসপটে যুক্তরাজ্য সফর
বিদেশে যাওয়ার অভিজ্ঞতা হয়তো অনেকেরই হয়ে থাকে। তবে কলেজের প্রতিনিধি,
বিস্তারিত
ব্যবসার ধারণা : গড়তে চাইলে
নিজের পায়ে দাঁড়াতে হলে আপনাকে উদ্যোগী হতে হবে। আর উদ্যোক্তা
বিস্তারিত
৭৫ শতাংশ বৃত্তিতে আইটি ও
বিভিন্ন কারণে যারা আইটিতে দক্ষতা উন্নয়নের সুযোগ থেকে বঞ্চিত তাদের
বিস্তারিত
লক্ষ্য যখন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার বিপরীতে ক্রমাগত উর্বরা জমির পরিমাণ কমছে। জনসংখ্যার এ
বিস্তারিত