মাদক ছেড়ে সুপথে ফেরা


যারা মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত, সে যে-ই হোক না কেন, তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। ইসলাম পবিত্র ও শান্তির ধর্ম। ইসলাম মানুষকে সহমর্মিতা ও আলোর পথ দেখায়। যারা ইসলামের নামে মানুষ হত্যা করে জঙ্গিবাদ বিশ্বাস করে তারা কোনোদিন ইসলামের পথের হতে পারে না
 

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশের প্রতি মমত্ববোধ নিয়ে মাদক, জঙ্গিবাদ, যৌন হয়রানি, বাল্যবিয়ে, সন্ত্রাসী কর্মকা-ের বিরুদ্ধে তারুণ্যকে এগিয়ে আসতে হবে। তারুণ্যের শক্তি ও সম্ভাবনা দেশের উন্নয়নে অপরিসীম ভূমিকা পালন করে, তাদের শক্তি ও সাহসের কাছে যে কোনো অপশক্তি পরাজয় মানতে বাধ্য। সম্প্রতি ডিএমপির লালবাগ বিভাগের উদ্যোগে মাদকসেবীদের আলোর পথ দেখানোর প্রচেষ্টায় মাদক ছেড়ে সুপথে ফেরা শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডিএমপির পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বিপিএম (বার) পিপিএম এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, সমাজের সব শ্রেণির মানুষের সহযোগিতা নিয়ে সুন্দর ও নিরাপদ দেশ গঠনে সেবক হয়ে বাংলাদেশ পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে। মাদক দেশ ও জাতির শত্রু। সমাজ ও মানবতা ধ্বংসের হাতিয়ার। দেশ, জাতি ও সমাজকে রক্ষায় বন্ধুত্বের মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাদকের বিরুদ্ধে এগিয়ে আসতে হবে। মাদক ব্যবসায়ীকে যে কোনো মূল্যে বিচারের সম্মুখীন হতে হবে। যারা মাদকের সঙ্গে সম্পৃক্ত, সে যে-ই হোক না কেন, তাকে ছাড় দেওয়া হবে না। তিনি আরও বলেন,  ইসলাম পবিত্র ও শান্তির ধর্ম। ইসলাম মানুষকে সহমর্মিতা ও আলোর পথ দেখায়। যারা ইসলামের নামে মানুষ হত্যা করে, জঙ্গিবাদ বিশ্বাস করেন তারা কোনোদিন ইসলামের পথের হতে পারে না। তিনি বলেন, মহানবী (সা.), সাহাবি, তাবে-তাবেঈন এবং আমাদের বজুর্গদের ব্যবহারে অন্য ধর্মের মানুষও ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। মহান এই ধর্মের নামে যারা অপরাধ করে তাদের কোনো ধরনের ছাড় দেওয়া হবে না। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অ্যাডমিন) কৃষ্ণপদ রায় বিপিএম, পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) দেবদাস ভট্টাচার্য্য, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। সভায় সভাপতিত্ব করেন লালবাগ বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ ইব্রাহীম খান। অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, ‘এই  প্রথম পুলিশ মাদকসেবীদের আসামি হিসেবে দেখছে না, বরং সহানুভূতির চোখে দেখছে।’ তিনি বলেন, ‘এমন সামাজিক প্রচেষ্টার জন্য পুলিশ বাহিনীকে ধন্যবাদ জানাই। পেশাদারিত্বের বাইরে এমন সামাজিক উদ্যোগ আসলেই প্রশংসনীয়।
জাফর ইকবাল আরও বলেন, ‘পুলিশই জানে, এলাকার কোন বাড়িতে কে মাদকসেবী। সুতরাং, তারা যদি চায় মাদকসেবীদের অপরাধী হিসেবে না দেখে সামাজিক উদ্যোগে স্বাভাবিক জীবনদান করতে পারে। পুলিশ একা পারবে না। সে জন্য লালবাগের মতো এলাকাবাসীকেও এগিয়ে আসতে হবে। তাহলেই একটি এলাকা সম্পূর্ণ মাদকমুক্ত হবে। আয়োজিত সভায় ১৩৮ মাদকসেবী সুপথে ফিরে আসায় লালবাগ বিভাগের সব অফিসার ইনচার্জ তাদের সবাইকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান।


বগুড়ায় ফুলেল শুভেচ্ছা বিনিময়
আলোকিত বাংলাদেশের লেখক-পাঠক-শুভানুধ্যায়ীদের সংগঠন আলোকিত বন্ধু ফোরাম বগুড়া জেলা শাখার
বিস্তারিত
বন্ধুত্বের বন্ধনে আলোর পথে এগিয়ে
বন্ধুত্বের বন্ধনের মাধ্যমে আলোর পথে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন
বিস্তারিত
মানুষের কল্যাণে সবাইকে কাজ করতে
মানুষের কল্যাণে সবাইকে কাজ করতে হবে। নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান
বিস্তারিত
শেরপুরে বন্ধু ফোরামের কর্মসূচি নিয়ে
সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সামাজিক ও মানবিক উন্নয়নে স্বেচ্ছাসেবী কর্মকা-ের
বিস্তারিত
নবারুণ স্কুল অ্যান্ড কলেজে পুরস্কার
বন্ধুদের শক্তি ও সম্ভাবনা দেশের উন্নয়নে অপরিসীম ভূমিকা পালন করে।
বিস্তারিত
পলাশপুরে নলেজ আইডিয়াল হাইস্কুলে বন্ধুদের
নলেজ আইডিয়াল হাইস্কুলে আলোচনা সভা ও দোয়ার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
বিস্তারিত