পেঁপেতে নতুন স্বপ্ন

স্বল্প পুঁজিতে রেড লেডি জাতের পেঁপে চাষ করে সফলতার নতুন স্বপ্ন দেখছেন ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের চরসোনাপুর গ্রামের আবু ইউছুপ স্বপন। তার বাগানে উৎপাদিত পেঁপে সোনাগাজী উপজেলা ও ফেনী জেলার চাহিদা মিটিয়ে চট্টগ্রামেও বিক্রি করা হচ্ছে। নিজে সফল হওয়ার পাশাপাশি অন্যদেরও পেঁপে চাষে উদ্বুদ্ধ করছেন তিনি।

শুধু পেঁপে নয়, সোনাগাজীর মহুরী সেচ প্রকল্প এলাকার থাকখোয়াজের লামছি মৌজায় পরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষ করেও সফলতা অর্জন করেন স্বপন। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে স্বপন সবার বড়। বাবার মৃত্যুর পর পুরো পরিবারের দায়িত্ব তার কাঁধে। পরিবারের বড় ছেলে হিসেবে সংসারের হাল ধরেন তিনি।

স্বপনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাবার মালিকীয় ২৩ একর জমিতে ২০ বছর ধরে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ চাষ করে আসছেন তিনি। ছয় মাস আগে মৎস্য খামারের পাড়ে একটি নার্সারি গড়ে তোলেন। তার নিজস্ব এ নার্সারি থেকে উৎপাদিত রেড লেডি হাইব্রিড নামে পেঁপের চারা দিয়ে পেঁপে চাষ শুরু করেন। প্রায় ১৪ একর পুকুর পাড়ে তিনি পেঁপে গাছ লাগিয়েছেন। চারা বপনের দেড় মাস বয়স থেকে ফলন শুরু হয়েছে। দুই মাস বয়স থেকে পাকা শুরু হয়েছে এ ফল। এ ফল দেখতে যেমন সুন্দর, খেতেও মধুর মতো মিষ্টি। পুষ্টিকর ও সুস্বাদু এ ফলের চাহিদা রয়েছে দেশব্যাপী। দুই মাস বয়সি একটি গাছে এরই মধ্যে ৫০ থেকে ৬০ কেজি পেঁপে ধরেছে। প্রতি কেজি পাকা পেঁপে ৮০ থেকে ১০০ টাকা দরে বিক্রি করা হচ্ছে। প্রতিটি পেঁপে ২ থেকে ৫ কেজি ওজনের।

কীটনাশকমুক্ত পদ্ধতিতে চাষকৃত এ পেঁপের ক্রেতাদের কাছে চাহিদাও রয়েছে অনেক। বাগানে এসে পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা এ ফল কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। সোনাগাজী উপজেলা ও ফেনী জেলার চাহিদা মিটিয়ে স্বপনের পেঁপে চট্টগ্রামেও বিক্রি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি। উচ্চফলনশীল এ পেঁপে চাষ করে বিপুল পরিমাণ লাভের আশা করছেন স্বপন। তার দাবি, বর্তমানে ৫০০ গাছে প্রায় ১১ থেকে ১২ টন পেঁপে ধরেছে। স্বল্প পুঁজিতে ব্যাপক অর্থলাভের স্বপ্ন দেখছেন তিনি।

স্বপন দাবি করেন, শুধু পাকা পেঁপে বিক্রি করলে যে তিনি লাভবান হবেন তা নয়, কাচা পেঁপে সবজি হিসেবে বিক্রি করলেও বিপুল পরিমাণ লাভ হবে। তাছাড়া তার নার্সারিতে রেড লেডি প্রজাতির একটি পেঁপের চারা ৫০ টাকা দরে বিক্রি করছেন। তিনি আশা করছেন, আবহওয়া ভালো থাকলে একটি গাছ থেকে আড়াই বছর পর্যন্ত ফলন পাবেন।

সরকারি কোনো পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়াই তিনি মাটিতে সোনা ফলিয়ে যাচ্ছেন। তবে সরকারি বা কৃষি বিভাগের পৃষ্ঠপোষকতা পেলে তিনি পেঁপে চাষের মাধ্যমে কৃষি খাতে বিপ্লব ঘটাতে পারবেন বলে জানিয়েছেন।


জীবনযুদ্ধে থেমে নেই জয় মালা
নাম জয়মালা বেগম স্বামী মৃত হালু মিয়া। সংসারে চার মেয়ে
বিস্তারিত
সফল উদ্যোক্তা আলিয়াহ ফেরদৌসি
চেনা গণ্ডির সীমানা ভেঙে বেরিয়ে আসছেন নারীরা। কৃষিকাজ থেকে শুরু
বিস্তারিত
রংপুর তাজহাট জমিদার বাড়ি ইতিহাস-ঐতিহ্যের
রংপুর মহানগরীর  দক্ষিণ পূর্বে অবস্থিত তাজহাট জমিদার বাড়ি। রংপুর মূল
বিস্তারিত
ডায়াবেটিক প্রতিরোধে স্টেভিয়া: চিনির চেয়ে
বিরল উদ্ভিদ স্টেভিয়া এখন বাংলাদেশে পাওয়া যাচ্ছে। দেশের বিভিন্ন এলাকায়
বিস্তারিত
কাউনিয়ায় বালু জমিতে বস্তায় বিষ
বালু জমিতে বস্তায় বিষ মুক্ত লাউ চাষ করে এলাকাবাসীকে তাক
বিস্তারিত
গফরগাঁওয়ে কেঁচো সার উৎপাদনে ভাগ্য
ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের সাবেক মেম্বার আবুল হাশেম নিজেই কেঁচো সার (ভার্মি
বিস্তারিত