নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে তাৎক্ষণিক সহায়তা পেতে জয় অ্যাপ

রোববার বাংলাদেশ শিশু একাডেমি অডিটরিয়ামে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে তাৎক্ষণিক সহায়তা পেতে মোবাইল অ্যাপ জয়ের উদ্বোধন করেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকি, এমপি Ñআলোকিত বাংলাদেশ

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগের একসেস টু  ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে মাল্টিসেক্টরাল প্রোগ্রামের যৌথ আয়োজনে রোববার বাংলাদেশ শিশু একাডেমির অডিটরিয়ামে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে তাৎক্ষণিক সহায়তা পেতে মোবাইল অ্যাপ জয়ের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকি, এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব জুয়েনা আজিজ, মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী রওশন আক্তার, পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি রৌশন আরা বেগম, পিপিএম, এনডিসি, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কৃষ্ণপদ রায়, বিপিএম, পিপিএম ও বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. মোস্তফা কামাল। অনুষ্ঠানটিতে সভাপতিত্ব করেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম, এনডিসি।

জয় মোবাইল অ্যাপস হলো তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের অধীন এটুআই প্রোগ্রামের অর্থায়নে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে মাল্টিসেক্টরাল প্রোগ্রামের উদ্ভাবিত একটি অ্যাপলিকেশন সফটওয়ার। অ্যাপসটি নির্যাতনের শিকার বা নির্যাতনের আশঙ্কা রয়েছে এমন নারী ও শিশুকে তাৎক্ষণিক সহায়তা প্রদান করার প্রয়াসে উদ্ভাবিত। যে কোনো অ্যানড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম সম্পন্ন ফোন থেকে গুগল অ্যাপস্টোরের সার্চ অপশনে গিয়ে ‘জয় ১০৯’ লিখে সার্চ করে অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে। ওই অ্যাপের মাধ্যমে নারী ও শিশুর প্রতি নির্যাতনের জরুরি মুহূর্তে তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ সুপার, মেট্রো এলাকার উপ-পুলিশ কমিশনার, নির্দিষ্ট ৩টি এফএনএফ নম্বর এবং নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে ন্যাশনাল হেল্পলাইন সেন্টার (১০৯)-এ এসএমএস আসবে। এছাড়াও, নির্যাতন ও সহিংসতার মুহূর্তে মোবাইলে নির্দিষ্ট ইমার্জেন্সি বাটন চেপে ভিকটিমের জিপিএস লোকেশন, ছবি এবং অডিও রেকর্ডিং মোবাইল মেসেজের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে জানানো যাবে। প্রাপ্ত অভিযোগের ভিত্তিতে জয় অ্যাপস সেন্টার থেকে সরাসরি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। লিখিত অভিযোগ পাঠানোর জন্য অ্যাপসটির অভিযোগ করুন অপশনে গিয়ে অভিযোগের ধরন বাছাই করে বিবরণসহ অভিযোগ করা যাবে। এছাড়াও ‘সংযুক্ত করুন’ অপশনে ছবি এবং অডিও সংযুক্ত করে প্রেরণ করা যাবে। অ্যাপস থেকে ধারণকৃত ছবি ও অডিও শুধু বাস্তবায়নকারী সংস্থা অর্থাৎ জয় অ্যাপস সেন্টার থেকে দেখা যাবে। সে ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ তথ্য গোপন রাখা হবে। সিস্টেম আপডেটের সঙ্গে সঙ্গে অ্যাপসটি স্বংয়ক্রিয়ভাবে আপডেট হবে। ভিকটিমের তাৎক্ষণিক প্রতিকার প্রদান এবং অপরাধী শনাক্ত করার নিমিত্ত বর্ণিত অ্যাপসটি একটি কার্যকরী পদক্ষেপ হিসেবে গণ্য হবে। 
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই জনগণের দোরগোড়ায় সেবা সহজীকরণ ও সেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে আসছে। এছাড়া উদ্ভাবনী সংস্কৃতির মূলধারার সঙ্গে নারীর সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি এবং নারীর ক্ষমতায়ন, অধিকার ও নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে আসছে।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ড. আবুল হোসেন প্রকল্প পরিচালক, নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে মাল্টিসেক্টরাল প্রোগ্রাম। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিল মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তর, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, পুলিশ সদর দপ্তর, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন, এটুআই প্রোগ্রাম, বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।


প্রাপকের চ্যাটবক্স থেকেও
মেসেঞ্জারে চালু হচ্ছে পাঠানো বার্তা মুছে ফেলার সুযোগ। বর্তমানে মেসেঞ্জারে
বিস্তারিত
স্মার্টকে নিয়ে ক্যাসপারস্কির বড় পরিকল্পনার
বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এসবিটিএলের সহযোগিতায় সংবাদ সম্মেলনে ব্যবসা
বিস্তারিত
ই-ক্যাবের উদ্যোগে ‘বিজনেস টু ই-বিজনেস’
বাংলাদেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের ডিজিটাল কমার্সের আওতায় আনতে ই-কমার্স
বিস্তারিত
আন্তর্জাতিক পাঁচটি পুরস্কার পেল
প্রতি বছরের মতো এবারও ভারতের তাজ হোটেল মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত হলো
বিস্তারিত
জিপির ফেইসবুক পেইজ ফ্যান ১
ডিজিটাল সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোনের ফেইসবুক ফ্যান বা ভক্তের সংখ্যা
বিস্তারিত
ভার্চুয়ালি দেখা যাবে পছন্দের প্রপার্টি
বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো ঘরে বসে সুবিধাজনক উপায়ে পছন্দের প্রপার্টি দেখার
বিস্তারিত