বৃষ্টিময় হাতগুলো দিয়ে

জড়িয়ে ধরো, দেখবে কয়েক ফোঁটা বৃষ্টি ছুঁবে তোমাকে

কাছে যাওÑ দেখবে আঁচড় লাগা চিত্রকর্মটির গায়ে
লেগে আছে তোমার ছায়ামেঘ। উড়ে গিয়েছে যে বাষ্পÑ
সে’ও রেখে গেছে রেশ-রেণু-রঙ, আর ভালোবাসার ঘর।

সেই ছাউনিতে দাঁড়াও। দেখবে ঠিক তোমার দিকেই
ছুটে আসছে একটি ঢেউ। তাকে আঁচলে আঁকড়ে রাখো।
এই যে জমিয়ে রাখাÑ তার নামই বেঁচে থাকা, তার
নামই সংসার। যেখানে আলোর খেলা। যেখানে আঁধারই 
আরাধ্য হয়ে যায় যমুনায়; খেলে পাশা ঘোরে-মোহনায়।


রুদ্রর কবিতা উচ্চারণ থেকে কথনে
রুদ্রর বহির্মুখী চেতনারাশির ওপর তার ভাবকল্প ও সংরাগবহুলতার তোড় আছড়ে
বিস্তারিত
আলো জেলে রাখি কবিতার খাতায়
কী নীরব রাত! একা একা বসে লিখছি। লেখার মাঝে দুঃখগুলো
বিস্তারিত
কতিপয় বিচ্ছিন্ন মুহূর্তের টীকা
  ১. নিরন্তর শুষ্কতার বশে আমি এক মরুকাঠ; অথচ ঠান্ডাজলপূর্ণ কিছু
বিস্তারিত
রৈখিক রক্তে হিজলফুল
বৃষ্টি হৃদয় উঠোন ভিজিয়ে যায় বিপ্রতীপ বিভাবন আঁধারের ক্লান্তিলগ্নে চোখের
বিস্তারিত
অপারগতা
না তুষার ঝড় না মাইনাস ফোর্টি শীতের রাত তো, বুড়োটা কিছুক্ষণ
বিস্তারিত
যন্ত্রণার দীর্ঘশ্বাস
  অলীক স্বপ্ন, অসীম দহন, সমুখের হিসাব নিকাশ প্রদীপের শিখা ছিল
বিস্তারিত