সমুদ্র সম্ভোগ

তোমার বোঝাই সিন্ধুযান আমাদের কোন পারে ফেলে আসে
একতাল মাটি নেই, বানানীর হলুদ পাখিরা 
এমনকি নেই  কোন  ঝিঁঝিঁরাগ
ভুলে আছি বহুদিনÑ নৃত্যপর রমণীয় রাত
গোপন ঝিরিপথ, শৈলসোঁতার কাছে আমাদের কত ঋণ...

হে মাস্তুলের অগ্রচারণ, ধ্বনি দাও
বরং সিন্ধু-খনকের খোঁজে কোনো  লুপ্ত ঐকতান হতে পারে 
আমাদের প্রথম শরণ 

বীর্যবান হাওয়া এসে তুলে গেছে লোভ-লাজ
মীনচারী ঘুমের স্বভাব
এতো যে বজ্রনাদ, নিশিরাগ, আদিম-প্রমাদ
এতো যে লীলারাস, তৃষামরু, ক্ষয়-ক্ষুরধার...

সমুদ্র সঙ্গম শেষে ভাসব যেদিন নূহের নৌকাতে
পাশে কী পাহাড় রবেÑ
তবে একটা চারণভূমি থাক অন্ততÑ সবুজ খাবো হামাগুড়ি দিয়ে

ঝিকিমিকি রোদ-রং জ¦লে জল স্বপ্নকাটা ভোরের মতন
অন্তনাশা দিক যেন ঘুমাতীত স্বপ্ন সমান 
আমার অজানা মন তেতে আছে তীরজুড়ে
এবার নাচো নন্দি অধিঅঙ্গ নাদে...

আমিও অস্ত যাই একবার দুইবার করে বারবার
ব্যস্ত ছিল সমূহ-সময় 
আরো তার রবিলাল আদিম হাপর...


আত্মজীবনী লিখলে ঘরে ও বাইরে
ঢাকায় বাতিঘর আয়োজন করে ‘আমার জীবন আমার রচনা’ শীর্ষক আলাপচারিতা।
বিস্তারিত
যে নদীর মন বোঝে
পদ্মা মেঘনার মতো দুই ভাগ হয়ে গেছে মানুষ চলে পাশাপাশি তবুও
বিস্তারিত
সেই তুমুল অঘ্রানলোকে
সবকিছু উগরে দিয়েছে ওরা  প্রীতি ও বিচ্ছেদ, সুর ও সুরভী, রতি
বিস্তারিত
চোরাচালানি
কুয়াশায় আচ্ছন্ন প্রতিদিনের সন্ধ্যা গভীর রাতে শিয়ালের কান্না শীতের আগমনী
বিস্তারিত
অভিশাপ
অভিশাপে কপালের আধখান শেষ। ভাগ্যরা আর পাশে নেই। উড়ে গেছে
বিস্তারিত
যে বৃক্ষে বাতাস জমেনি
আমাদের দুই জোড়া হাতে যে বৃক্ষটি রোপণ করেছি। সেটি যেদিন
বিস্তারিত