দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য না দিতে কাদেরের পরামর্শ

বক্তব্যে আওয়ামী লীগ এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের সংযত হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার দুপুরে ধানমণ্ডিস্থ ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে স্বেচ্ছাসেবক লীগের শোক দিবসের আলোচনা সভায় এ পরামর্শ দেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সময়টা ভালো নয়। আমি আমাদের নেতৃবৃন্দের কাছে, আমার সহকর্মীদের কাছে বিনীত অনুরোধ করবো যার যার সীমানা পেরিয়ে দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্য দিবেন না। সরকারকে বিব্রত করে এমন বক্তব্য কেউ দিবেন না। দল বা সরকার বিব্রত হয় এমন কোন কথা দয়া করে কেউ বলবেন না। হোমওয়ার্ক করে কথা বলবেন, পলিসির ব্যপারে নেত্রীর সঙ্গে কথা বলে কথা বলবেন, ফ্রিস্টাইল কথা বলা যাবে না। 

পোষ্টার, ব্যনার বা ফেস্টুনে ছবি দিয়ে মনোনয়ন পাওয়া যাবে না উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বঙ্গবন্ধুর ছবির পাশে নিজের ছবি দিয়ে আত্মপ্রচার বন্ধ করতে হবে। বঙ্গবন্ধুকে ব্যবহার করে আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনাকে ব্যবহার করে আত্মপ্রচারে যারা নিমগ্ন তাদের রাজনীতির কমিটমেন্ট নিয়ে প্রশ্ন আছে। 

তিনি বলেন, এইসব ছবি প্রদর্শন করে নমিনেশন পাওয়া যাবে না, নমিনেশন পাওয়া যাবে জনগনের সেবা করে জনগনের মনজয় করে নিজের নম্বর যতপ্লাস হবে। এইসব করে শেখ হাসিনার কাছে নমিনেশন পাওয়া যাবে না, এটা আমি পরিস্কারভাবে বলে দিতে চাই।

অতি দ্রুত দেশেরে রাজনৈতিক চিত্র বদল হবে বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদের এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, কিভাবে বদল হবে? কেন বদল হবে? কি কারণে বদল হবে? মওদুদ সাহেবের কি ম্যাজিক আছে, যে ম্যাজিক দিয়ে রাজনীতি বদল করবেন। নির্বাচনে দেশের জনগণের রায়ের মাধ্যমে সরকার বদল হতে পারে। এ ছাড়া অন্যকোন উপায়ে বদল করার যে খোয়াব দেখছেন, তা অচিরেই কার্পুরের মতো হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের সময় শেষ। কি করছেন আবার? রাতের অন্ধকারে কি গোপন বৈঠক করলেন? কাদের সঙ্গে পরামর্শ করলেন? সরকার কে বদলাবে? জনগণ। জনগণ কি আপনাদের চায়? নয় বছরে জনগণ আপনাদের ডাকে সাড়া দেয় নাই, তারপরও বোঝেন নাই। আজকে বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতির দিন শেষ। আর সুযোগ নাই। দেশের জনগণকে ধোকা দিয়ে বোকা বানানোর সুযোগ নাই আর।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সকল আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছে। এখন দেখছি নালিশ আর নালিশ। আবার গোপন বৈঠক। আমরা জানি কোথায় কারা কারা বৈঠক করছেন। টেমস নদীর পাড়ে কখন কার সঙ্গে বৈঠক হচ্ছে। ব্যাংকক, দুবাইতে বসে কারা কোন গডফাদারের সঙ্গে বৈঠক করছেন। দেশেও রাতের অন্ধকারে বসে কোন বৈঠক হচ্ছে সব আমাদের নলেজে আছে । সময় মতো ধৈয্য ধরে আছি। মনিটর করছি আরও খোঁজ খবর নিচ্ছি। সময়মতো ব্যবস্থা নিবো।

বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা মোহাম্মদ আবু কাওছারের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক পংকজ দেবনাথের সঞ্চালনায় সভায় আরো বক্তব্যূ রাথেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম প্রমুখ।


আত্মসমর্পণের আহ্বানে ‌‘সাড়া দিচ্ছে না
নরসিংদীর মাধবদী পৌরসভার ছোট গদাইরচর গাঙপাড় এলাকার আফজাল হাজির ‘নিলুফা
বিস্তারিত
উন্নয়ন মেলা শেষে নকলায় পুরষ্কার
সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড জনগণের কাছে তুলে ধরতে সারা দেশের
বিস্তারিত
আত্মতুষ্টি মানেই পতন: প্রধানমন্ত্রী শেখ
আত্মতুষ্টিতে না ভুগে নেতা-কর্মীদের সদা সর্তক থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
বিস্তারিত
জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদান শেষে দেশে
জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
বিস্তারিত
দুর্নীতিবাজরা এক হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যুক্তফ্রন্টের নামে দুর্নীতিবাজরা এক হয়েছে। তবে
বিস্তারিত
১ম ও ২য় শ্রেণির চাকরিতে
প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির (৯ম থেকে ১৩তম গ্রেডে চাকরির ক্ষেত্রে)
বিস্তারিত