মধ্যরাত থেকে চালু হচ্ছে মোবাইল ফোনের নতুন কলরেট

মোবাইল ফোনে অননেট এবং অফনেটে আলাদা কলরেটের নিয়ম বাতিলের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। একই সঙ্গে সব মোবাইল অপারেটরের জন্য প্রতি মিনিট সর্বোচ্চ ২ টাকা এবং সর্বনিম্ন ৪৫ পয়সা ট্যারিফও নির্ধারণ করে দিয়েছে সংস্থাটি।

২৪ ঘণ্টার মধ্যে এই রেট চালু করতে সবগুলো মোবাইল টেলিফোন অপারেটরকে নির্দেশনা পাঠিয়েছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেশন কমিশন (বিটিআরসি)।

সোমবার (১৩ আগস্ট) অপারেটরগুলোকে পাঠানো এক চিঠিতে বিটিআরসি এই নির্দেশনা দেয়। দেশের যে কোনো টেলিফোন থেকে কল করলে এখন থেকে মিনিটে ৪৫ পয়সা কার্যকর করতে বলা হয়েছে। নিজস্ব গ্রাহকদের মধ্যে কল রেটে আগের তারতম্য এখন আর থাকছে না।

সরকারের এই সিদ্ধান্ত দেশের প্রায় ১৪ কোটি গ্রাহকের ওপর সরাসরি প্রভাব পড়বে বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। গ্রাহকরা সুবিধা ভোগ করলেও এতে চাপে থাকবে অপারেটরগুলো।

গ্রামীণফোনের প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা সৈয়দ তালাত কামাল বিটিআরসির পক্ষ থেকে চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, বিটিআরসির পক্ষ থেকে সব অপরেটরে একই কলরেট রাখতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ফলে নতুন নিয়মে জিপি থেকে জিপি এবং অন্য সব অপরেটরের কলরেটে একই হবে।

গ্রাহক সংখ্যায় দেশের বৃহত্তম এই মোবাইল অপারেটরের কর্মকর্তা মনে করছেন, নতুন সিদ্ধান্তে টেলিকম কোম্পানিগুলো কঠিন প্রতিযোগিতায় পড়বে। এ ক্ষেত্রে শুধু কলরেট দিয়ে গ্রাহক আকৃষ্ট করা যাবে না। নেটওয়ার্ক ও অন্য সব সেবার মান উন্নত করতে হবে।

বরি আজিয়াটার মুখোপাত্র ইকরাম কবীর বলেন, অফনেট-অননেটে কলের খরচ এক হয়ে যাচ্ছে। আমরা সরকারের নির্দেশনা মেনে কার্যক্রম শুরু করছি। এতে কোম্পানি বা গ্রাহক পর্যায়ে কী প্রভাব পড়তে পারে, এখনই বলা যাচ্ছে না।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) সাবেক চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বলেন, ‘পৃথিবীর বহু দেশে একই কলরেট চালু আছে। ভিন্ন কলরেট থাকার কারণে ছোট অপারেটররা অনেক সময় আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছে। অফনেট কলেই তাদের আয়ের অনেক টাকা চলে যেত। নতুন এই সিদ্ধান্তে ছোট অপারেটরদের দাবির প্রতিফলন ঘটেছে।’

সব অপারেটরে এক কলরেটে গ্রাহকের ওপর কী ধরনের প্রভাব পড়তে পারে— এমর এক প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ মোবাইল ফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দীন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, দেশের ৮০ শতাংশ গ্রাহক সাধারণ বা নিম্নবিত্ত শ্রেণির। অর্থাৎ প্রায় ১২ কোটি গ্রাহকের খরচ যদি বাড়ে, তাহলে তা স্বাভাবিকভাবেই জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়াবে। গ্রাহক পর্যায়ে এর একটি নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

নতুন এই সিদ্ধান্তকে অযৌক্তিক আখ্যা দিয়ে গ্রাহকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা মহিউদ্দীন আরও বলেন, ‘বিটিআরসি কখনই গ্রাহকের স্বার্থের কথা চিন্তা করে না। কারও সঙ্গে আলোচনা না করে এ ধরনের সিদ্ধান্তের আগে বিটিআরসির উচিত ছিল গণশুনানি করা। বিদ্যুৎ ও গ্যাসের দাম বাড়ানোর আগে কিন্তু গণশুনানি হয়। এ ক্ষেত্রেও একই পদ্ধতি অনুসরণ করা উচিত বলে আমরা মনে করি।’

বর্তমানে বিটিআরসির নির্ধারণ করে দেয়া সর্বনিম্ন অননেট চার্জ প্রতি মিনিট ২৫ পয়সা ও অফনেট ৬০ পয়সা। সর্বোচ্চ চার্জ প্রতি মিনিটে ২ টাকা।


গার্মেন্টস ও মৎস্যশিল্প কর্মীদের সেবায়
গার্মেন্টস কর্মীদের নিকট সহজে, দ্রুত ও স্বল্প ব্যয়ে সরকারি-বেসরকারি সেবা
বিস্তারিত
সোশ্যাল মিডিয়ার ‘আপত্তিকর কন্টেন্ট’ বিশ্লেষণে
তথ্য প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছেন, ‘ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে
বিস্তারিত
ব্লু হোয়েলের পর এবার মৃত্যুখেলা
নেটে ব্লু হোয়েলের আতঙ্ক কাটতে না কাটতেই হাজির হলো ব্লু
বিস্তারিত
দূষণ ঠেকাবে প্লাস্টিকের পুনর্ব্যবহার
খাবার থেকে শুরু করে ওষুধ, প্রসাধনী অথবা প্রযুক্তিপণ্য- প্রতিটি ক্ষেত্রে
বিস্তারিত
গোপনে তথ্য পাঠাচ্ছে স্মার্টফোনের অ্যাপ!
স্মার্টফোনে ‘জনপ্রিয়’ কিছু অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ ব্যবহারকারীর কথা শুনে গোপনে ডিভাইসে
বিস্তারিত
স্মার্টফোনে ৯ লেন্স!
চীনের প্রযুক্তিপণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে এরই মধ্যে তাদের পি ২০
বিস্তারিত