চিতার আগুনে

বিস্তীর্ণ ঘুমের অন্দরে

নিয়তির নিষ্ঠুর খেলার ছলে
এই প্রান্তরের ধূলিমাখা মেঠোপথে
লতা-পাতা-ঘাস-সবুজ গাছপালা
ভোরের আলোর সাথে করে খেলা
ধূমল ধূসর পূজার গন্ধ
সবই রয়ে যাবেÑ
দিগন্তময় নিশ্বাসে প্রশ্বাসে।

আমার এ চিরচেনা শহর-বন্দর-মাঠ
আঙিনার কামরাঙা গাছ
বিকেলের বন্ধু আর কোলাহল খেলার মাঠ
শিশুর তুলতুলে গালে চুমুমাখা পরশ
রবে কি তারা শব্দের প্লাবনে?

আমি কীÑ
হেমন্তের রিক্ত মাঠে পড়ে রবো
নিরন্ন পথের কিনারে
পাথরের মতোÑ
জোনাকির মিটিমিটি আলো-আঁধারে
রাতের শিশিরের সাথে মিশে
জীর্ণ ঝরাপাতার মতো
ঊষা রাঙা ভোরের প্রহরে
চিরকাল জ্বলে জ্বলে ছাইভষ্ম হব
চন্দন কাঠের চিতার আগুনে?


আরব ছোটগল্পের রাজকুমারী
সামিরা আজ্জম ১৯২৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর ফিলিস্তিনের আর্কে একটি গোঁড়া
বিস্তারিত
অমায়ার আনবেশে
সাদা মুখোশে থাকতে গেলে ছুড়ে দেওয়া কালি  হয়ে যায় সার্কাসের রংমুখ, 
বিস্তারিত
শারদীয় বিকেল
ঝিরিঝিরি বাতাসের অবিরাম দোলায় মননের মুকুরে ফুটে ওঠে মুঠো মুঠো শেফালিকা
বিস্তারিত
গল্পের পটভূমি ইতিহাস ও বর্তমানের
গল্পের বই ‘দশজন দিগম্বর একজন সাধক’। লেখক শাহাব আহমেদ। বইয়ে
বিস্তারিত
ধোঁয়াশার তামাটে রঙ
দীর্ঘ অবহেলায় যদি ক্লান্ত হয়ে উঠি বিষণœ সন্ধ্যায়Ñ মনে রেখো
বিস্তারিত
নজরুলকে দেখা
আমাদের পরম সৌভাগ্য, এই উন্নত-মস্তকটি অনেক দেরিতে হলেও পৃথিবীর নজরে
বিস্তারিত