প্রশ্নবিদ্ধ উন্নয়ন: বালিয়াকান্দি শহরের রাস্তা-ঘাটের বেহালদশা

দীর্ঘদিন সংস্কার না করার কারণে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দির শহরের গুরুত্বপূর্ণ ও ব্যস্ততম প্রধান প্রধান সবগুলো সড়ক দিয়েই যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বর্তমান সরকারের আমলে বালিয়াকান্দিতে যে উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে তা পুরোটাই প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়েছে শুধুমাত্র এই সড়কগুলোর বেহালদশার কারণে।

উপজেলা প্রশাসনের নাকের ডগায় সড়কগুলোর এমন বেহালদশা হলেও নজর নেই সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষের। যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরণের কোন দূর্ঘটনা।

আসন্ন ঈদে সড়কের বেহালদশার প্রভাব পড়বে ব্যবসায় এমনটি মনে করছেন বাজার ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, দ্রুত মেরামত না করা হলে তারা মারাত্বক অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখিন হবেন।

তাছাড়া জরুরিভিত্তিতে রাস্তাগুলো সংস্কার করা না হলে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনেও ব্যাপক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন স্থানীয় রাজনীতিবিদরা।

তবে কর্তৃপক্ষ বলছে খুব দ্রুতই জরুরিভিত্তিতে সড়কগুলো সংস্কার করা হবে।

সরেজমিনে বালিয়াকান্দি শহরের সড়কগুলোতে গিয়ে দেখা যায়, বালিয়াকান্দি হাসপাতাল থেকে চৌরাস্তা হয়ে বাজারের মধ্যে দিয়ে যাওয়া সোনাপুর সড়কটি ভাল থাকলেও মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি কমপ্লেক্স থেকে সাধু মোল্যার মোড়, সাধু মোল্যার মোড় থেকে ওয়াপদা মোড়, ওয়াপদা মোড় থেকে তালপট্টি, চৌরাস্তা থেকে ওয়াপদা মোড়, বালিয়াকান্দি থানা গেইট থেকে চন্দনা ব্রিজ ও চৌরাস্তা ভায়া সোনাপুর সংযোগ সড়ক থেকে থানা গেইট পর্যন্ত সড়কের অধিকাংশই জায়গারই করুণ দশা।

সড়কের মাঝে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। একটু বৃষ্টি হলেই সেখানেই হাঁটু পানি জমে থাকে দীর্ঘদিন। ফলে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতার। তাছাড়া পথচারিদের সাবধান করার জন্য তালপট্টিতে মাদ্রাসা সংযোগ সড়কের মাঝখানে পুতে রাখা হয়েছে লাল পতাকা।

অন্যদিকে বালিয়াকান্দি-নারুয়া-পাংশা সড়কের ৭ কিলোমিটার রাস্তা এখন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সমস্ত রাস্তায় ছোট ছোট গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিদিনই ঘটছে দূর্ঘটনা। বালিয়াকান্দির চৌরাস্তার মোড় থেকে ওয়াপদা পর্যন্ত ৭-৮শ' গজ রাস্তাটির মাঝে  মাঝে বিশাল আকৃতির গর্ত হয়েছে। বৃষ্টির কারণে রাস্তার মাঝে গর্তের ভেতর হাঁটু পানি জমেছে। অথচ এই সড়কটি দিয়েই প্রতিদিন প্রায় ছোট বড় সহস্রাধিক যানবাহন চলাচল করে।

মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি কমপ্লেক্স থেকে সাধুর মোড় পর্যন্ত সড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি এই সড়কটি দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করছে শতবর্ষী বালিয়াকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শতবর্ষী বালিয়াকান্দি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, বালিয়াকান্দি পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, মনি মুকুর কিন্ডার গার্টেনের কয়েক শত শিক্ষার্থী। অথচ এই সড়কটি এখন শিক্ষার্থীদের মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। এতো গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রধান সড়ক দীর্ঘদিন ধরে চলাচলের অনুপযোগী থাকায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।


চৌরাস্তাতে গিয়ে দেখা যায়, অধিকাংশ দোকানের সামনেই কাদা ও পানি বেঁধে রয়েছে। ফলে সড়কে চলাচলরত যানবাহন ও পথচারীদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। সড়কগুলো দিয়ে কোনো যানবাহন গেলে পাশে থাকা পথচারীদের গায়ে কাদা-পানি লেগে হতে হচ্ছে নাজেহাল।

কয়েকজন যানবাহন চালক জানান, বালিয়াকান্দি সদরের চারপাশের সড়কগুলোতে ছোট বড় গর্তের পরিমাণ বেড়ে গেছে। যা সামান্য বৃষ্টি হলেই পানি ও কাদায় যানবাহন চলাচলে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। সড়কের মাঝে গর্ত হওয়ায় প্রতিনিয়তই আমাদের যানবাহন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। নষ্ট হয়ে যাচ্ছে দামি যন্ত্রাংশ। তাছাড়া প্রায়ই ছোট ছোট দুর্ঘটনার স্বীকার হতে হচ্ছে আমাদের।

ব্যাটারিচালিত অটো গাড়ির স্টার্টার আব্দুর রাজ্জাক জানান, বালিয়াকান্দি চৌরাস্তা থেকে ঘিকমলা পর্যন্ত প্রায় ৮ কিলোমিটার সড়ক দীর্ঘদিন ধরে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এতো গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়ক কিভাবে দীর্ঘদিন মেরামত করার প্রয়োজন মনে করছে না কর্তৃপক্ষ তা আমরা বুঝতে পারছি না।

বালিয়াকান্দি বাজারের নারুয়া রোডের ব্যবসায়ীরা জানান, দোকানের সামনের সড়কে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে প্রায় বছর দুয়েক। কিন্তু মেরামত করার কোনো লক্ষণ দেখছি না। সড়কের বেহালদশার কারণে কোনো ক্রেতা আমাদের এদিকে আসতে চায় না। তাই আমরা ব্যক্তি উদ্যোগে নিজেরা চাঁদা তুলে কিছু ইট কিনে এনে আপাতত সড়কের মাঝের গর্তগুলো ভরাট করেছি। বৃষ্টি কিংবা রোদ সব অবস্থাতেই আমাদের দুর্ভোগের সীমা থাকছে না। সামনে ঈদ। দোকানের সামনে যদি পানি আর কাদা জমে থাকে তাহলে এবারো আমরা ব্যবসায় ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হবো। যত দ্রুত সম্ভব সড়কগুলো মেরামতের দাবি জানাচ্ছি।

এদিকে থানা রোডের অবস্থা আরো শোচনীয়। বাজারের পানি বের হওয়ার জন্য ড্রেনেজের কোন ব্যবস্থা না থাকার কারণে সেখানে প্রায় বারো মাসই হাঁটু পানি জমে থাকে। থানা কর্তৃপক্ষ বারবার রাস্তাটি সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবগত করেও কোন প্রতিকার পাননি।   

বালিয়াকান্দি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হাসিনা বেগম জানান, আমি এখানে যোগদান করার পর থেকেই দেখে আসছি থানায় ঢোকার রাস্তাটির অবস্থা একেবারেই শোচনীয়। সামান্য বৃষ্টিতেই পানি জমে থাকে। বিশেষ করে হাটবারের দিনগুলোতে সাধারণ দিনের চেয়ে দুর্ভোগ কয়েকগুণ বেড়ে যায়। পায়ে হাটার মতোও কোন উপায় থাকে না।

ওসি হাসিনা বেগম আক্ষেপ করে বলেন, থানার মতো এতো গুরুত্বপূর্ণ একটি সরকারি অফিসে যাওয়ার সড়কটি এতো নিম্নমানের থাকবে তা ভাবাও যায় না। অনেক ভিআইপি লোকজন এই রাস্তাটি দিয়ে থানায় আসেন। রাস্তাটির সার্বিক অবস্থা তুলে ধরে আমি বিষয়টি সমাধানের জন্য উপজেলা আইনশৃঙ্খলা সভাসহ উপজেলা পরিষদের সভায় উত্থাপন করেছি। কিন্তু অত্যন্ত দুংখের বিষয়, এখন পর্যন্তও সড়কটি দিয়ে চলাচলের উপযোগী করার কোনো ব্যবস্থা আমার চোখে পড়েনি।

বালিয়াকান্দি কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক মো. সাইফুল ইসলাম জানান, বালিয়াকান্দি সদর কেন্দ্রীক রাস্তাঘাটের যে অবস্থা, এটি দেখে মনে হয় এটি একটি প্রাচীনতম  গ্রাম। বর্তমান সরকারে উন্নয়নমূলক যত কর্ম রয়েছে তা এই সড়কগুলোর জন্য মলিন হয়ে যাচ্ছে। এতে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। যত দ্রুত সম্ভব শহরের রাস্তাগুলো মেরামত করার জোড় দাবি রাখছি।

উপজেলা প্রকৌশলী কর্মকর্তা সজল কুমার দত্ত জানান, ইতোমধ্যে আমরা শহরের ভিতরে খারাপ হয়ে যাওয়া সড়কগুলো চি‎হ্নিত করেছি। এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান মহোদয়ের সাথেও আলাপ করা হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব পর্যায়ক্রমে সকল সড়ক প্রশস্তকরণসহ মেরামত করা হবে।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আবুল কালাম আজাদ জানান, শহর ও বাজারের মধ্যে খারাপ সড়কগুলো সংস্কার করাসহ ড্রেনেজ ব্যবস্থার জন্য দ্রুত উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। আশা করছি খুব দ্রুত কাজ শুরু করা সম্ভব হবে। কাজ সম্পন্ন হলে উপজেলার পরিবেশ ফিরে আসবে।


চেয়ারম্যানকে ধরলেন ওসি, ‘নৌকার মাঝি’
মোজাহার হোসেন ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান। আওয়ামী লীগের নেতা। তিনি
বিস্তারিত
'শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজ
কিশোরগঞ্জ-৫ (বাজিতপুর-নিকলী) আসনের সংসদ সদস্য আফজাল হোসেন বলেছেন, একাত্তরে বঙ্গবন্ধুর
বিস্তারিত
বরিশালে ইউপি চেয়ারম্যানকে গুলি করে
বরিশালের উজিরপুর উপজেলার জল্লা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও একই
বিস্তারিত
তৃণমূলে নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করতে
জাতীয় সংসেদর স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি বলেছেন, বর্তমান
বিস্তারিত
নোয়াখালীর কবিরহাটে অটোরিকশার চাপায় শিশু
নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার সুন্দলপুর ইউনিয়নে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার চাপায় মো. জিহাদ
বিস্তারিত
শিবপুরে ২৪ হাজার পিস ইয়াবাসহ
নরসিংদীর শিবপুর থেকে ২৪ হাজার পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে
বিস্তারিত