ঘরের মাঠে ইউনাইটেডকে উড়িয়ে দিল টটেনহাম

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে শতভাগ জয়ের ধারা ধরে রেখেছে টটেনহাম হটস্পার। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডকে তাদের মাঠেই ৩-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে মরিসিও পচেত্তিনোর দল।

টটেনহাম জিতল তাদের প্রথম তিন ম্যাচেই। ইংল্যান্ডের শীর্ষ লিগে যা তাদের মাত্র পঞ্চমবার, ২০০৯-১০ মৌসুমের পর প্রথম।অন্যদিকে ইউনাইটেড জয়ে শুরুর পর হারল টানা দুই ম্যাচ।১৯৯২-৯৩ মৌসুমের পর লিগে এটাই তাদের সবচেয়ে বাজে শুরু।

এমন বাজে শুরুর পর ইউনাইটেডের কোচ হোসে মরিনহোর চাকরি নিয়েও এখন টানাটানি উঠে গেছে। হোম ম্যাচে কোচিং ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় পরাজয়ের স্বাদটাও গতকালই পেলেন তিনি। লিগে প্রথম তিন ম্যাচের দুটিতে হারের ঘটনাও তার ক্যারিয়ারে এটাই প্রথম।

আর টটেনহাম কোচ পচেত্তিনো এই প্রথম ইউনাইটেডের মাঠে জয় পেলেন। প্রিমিয়ার লিগে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ২৭ ম্যাচে টটেনহামের মাত্র তৃতীয় জয় এটি, তিনটিই ভিন্ন কোচের অধীনে। ২০১২ সালে আন্দ্রে ভিয়াস-বোয়াসের অধীনে ও ২০১৪ সালে টিম শেরউডের অধীনে ইউনাইটেডের মাঠে জিতেছিল স্পার্সরা।

ঘরের মাঠে ইউনাইটেডের শুরুটা অবশ্য ভালোই হয়েছিল। প্রথমার্ধে টটেনহামের চেয়ে স্বাগতিকরাই সুযোগ তৈরি করেছিল বেশি। কিন্তু ফ্রেড, রোমেলু লুকাকুরা সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারেননি।

প্রথমার্ধে কোনো গোল হয়নি। তবে দ্বিতীয়ার্ধে মাত্র তিন মিনিটের মধ্যে দুবার ইউনাইটেডের জালে বল জড়িয়ে জয়ের অর্ধেক কাজটা সেরে ফেলে টটেনহাম।

৫০ মিনিটে দারুণ এক হেডে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে নিজের প্রথম গোল করেন ইংলিশ ফরোয়ার্ড হ্যারি কেন। ৫২ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন লুকাস মোরা। নির্ধারিত সময়ের ছয় মিনিট বাকি থাকতে স্কোরলাইন ৩-০ করে টটেনহামের জয়টাও নিশ্চিত করেন এই ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার।


১৭ বছর পর শ্রীলঙ্কায় টেস্ট
দীর্ঘ ১৭ বছর পর শ্রীলঙ্কার মাটিতে সিরিজ জয়ের স্বাদ পেলো
বিস্তারিত
পাল্লেকেলেতে স্পিনারদের নতুন রেকর্ড
পাল্লেকেলেতে এক টেস্টে সর্বাধিক উইকেট শিকারের নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করল
বিস্তারিত
ওমরাহ করতে সৌদি আরবে তামিম
আঙুলের চোট থেকে সেরে উঠেছিলেন। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ সামনে রেখে
বিস্তারিত
ইতালির সঙ্গে ড্র করেও গ্রুপ
ম্যাচ জুড়েই চাপ ধরে রাখলেও পর্তুগালের রক্ষণ ভাঙতে পারেনি ইতালি।
বিস্তারিত
বিজিবি’র ঘরে জাতীয় হ্যান্ডবলের শিরোপা
‘এক্সিমব্যাংক ২৮তম জাতীয় পুরুষ হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতার শিরোপা জিতেছে বর্ডার গার্ড
বিস্তারিত
আইসিসি’র প্যানেলে আরও দুই বাংলাদেশি
২০০০ সালে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) পুর্ণাঙ্গ সদস্য পদ লাভ
বিস্তারিত