জনগণের রায় নিতে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিন: বিএনপির প্রতি নাসিম

শর্ত আরোপ না করে জনগণের রায় পেতে আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেন, ‘আজ অনেকে বড় বড় কথা বলছে, নির্বাচনের সময়ে তারা ঠিকই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। তাই বিএনপিকে বলি, শর্ত আরোপ না করে জনগণের রায় নিতে আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করুন।’

মোহাম্মদ নাসিম মঙ্গলবার (২৮ আগস্ট) টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন। শোকের মাস উপলক্ষে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে এই শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আগামী ডিসেম্বর মাসে জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আশা করি সেই নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করবে। নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে। ইউরোপ, আমেরিকা ও ভারতের মতো বাংলাদেশেও সংবিধান অনুযায়ী সেই নির্বাচন হবে। সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। অনেকে মুখে অনেক কথা বললেও নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে অনেক রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করবে। কিন্তু কোনো দল যদি শর্ত আরোপ করে নির্বাচনে না আসে তাহলে আমাদের কিছু করার নেই। সংবিধান থেকে আমরা একচুলও নড়ব না।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সংবিধানের বাইরে আমরা যাব না, এটা নিয়ে কথা বলে লাভ নেই। এর জন্য অহেতুক মাঠ গরম করবেন না। ১০ বছর আগে যা হয়েছে এখন আর তা হবে না।

বিএনপিকে আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার বা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে আন্দোলন করে কোনো লাভ নেই। জনগণের প্রতি বিশ্বাস রাখুন। জনগণ যাদের যোগ্য মনে করবে তাদের ভোট দিয়ে বিজয়ী করবে। আমরা যদি ভোটে হেরে যাই মেনে নেব।

এ সময় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) সভাপতি এবং তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হাসানুল হক ইনু বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর '৭১-এর মাইনাস হওয়া শক্তিকে বিএনপি রাজনীতিতে ফিরিয়ে নিয়ে আসে। আগামী নির্বাচন রাজাকার, জঙ্গি ও বেগম খালেদা জিয়াকে চূড়ান্তভাবে মাইনাস করার নির্বাচন। এই নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তাদের পরাজিত করতে হবে।

তিনি বলেন, যারা আপোসের কথা বলে তারা আসলে রাজাকার ও খালেদা জিয়াকে হালাল করার কথা বলেন। কিন্তু রাজকার, জঙ্গি লালনকারীদের সাথে কোনো আপোস হবে না। তাদের এই নির্বাচনের মাধ্যমে চিরতরে মাইনাস করতে হবে। তবেই আমরা উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে পারব।

এর আগে ১৪ দলের মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিমের নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময়ে বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টের সব শহীদের আত্মার মাগফিতার কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়াও স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, তথ্য মন্ত্রণালয়, জাসদ, বাংলাদেশে ওয়ার্কার্স পার্টি পৃথক পৃথকভাবে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।


ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিলেন এএমএস কিবরিয়ার
আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক অর্থমন্ত্রী মরহুম শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে
বিস্তারিত
দুই আসন থেকে লড়বেন বঙ্গবীর
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি
বিস্তারিত
প্রধানমন্ত্রীকে এরশাদের চিঠি
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসন বণ্টন নিয়ে কথা বলার জন্য
বিস্তারিত
‘রাষ্ট্রপতি হওয়ার লোভে বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে
জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেন রাষ্ট্রপতি পদের লোভে সন্ত্রাসী
বিস্তারিত
‘খালেদা জিয়াকে সাজা দেয়া হয়েছে
সরকারি চাপে নতিস্বীকার করে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে সাজা
বিস্তারিত
নির্বাচন বয়কট-টয়কট কিছু আমরা করব
জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন,
বিস্তারিত