প্রযুক্তি ভীতির কারণেই বিএনপির ইভিএম বিরোধিতা: হাছান

বিএনপি প্রযুক্তিকে ভয় পায় বলেই ইভিএম বিরোধিতা করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক এবং দলের অন্যতম মুখপাত্র ড. হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার (৩০ আগস্ট) ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউতে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব স্মরণে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. ইব্রাহিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা সঞ্চালনা করেন ঢাকা মহানগর উত্তরের সাধারণ সম্পাদক সাঈদুর রহমান হৃদয় ও দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক জোবায়ের আহমেদ। 

হাছান মাহমুদ বলেন, নির্বাচন কমিশন সিমীত আকারে ইভিএম ব্যবহারের ঘোষণা দেয়ায় বিএনপির যে গাত্রদাহ তাতে মনে হচ্ছে তারা(বিএনপি) প্রযুক্তিকে ভয় পায়। ১৯৯২, ৯৩ সালে বেগম খালেদা জিয়াকে বিনামূল্যে সাবমেরিন ক্যাবল সরবরাহের প্রস্তাব করলে তিনি তার বিরোধীতা করে বলেছিলেন এতে দেশের গোপনীয়তা ভঙ্গ হবে। পরবর্তীতে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে কয়েকশত কোটি টাকা খরচ করতে হয়েছে। এতে দেশের অনেক আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। অর্থাৎ বেগম জিয়ার প্রযুক্তি জ্ঞান ছিলো না। আজকে যখন ইভিএমের কথা বলা হচ্ছে তখন বেগম জিয়ার দলের নেতারা বলছে ইভিএম ব্যাবহার করা যাবে না। অর্থাৎ বিএনপি এবং তাদের দলের নেতারা প্রযুক্তিকে ভয় পায়।

ছাত্রলীগের প্রত্যেক ইউনিটে আইটি সেল গঠনের অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, আজকে সাত থেকে অাট কোটি মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয়। তাই গুজব সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয় হয়ে যদি জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের বার্তা জনগনের কাছে পৌছে দিতে পারি তাহলে যাদের চোখ, কান, বিবেক এবং বুদ্ধি আছে তারা নৌকা ব্যতীত অন্য কোথাও ভোট দিবেনা।

সভাপতির বক্তব্যে মো. ইব্রাহিম নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে আবারো বিজয়ী করতে মহানগর উত্তর ছাত্রলীগ সার্বক্ষণিক মাঠে থাকবে। একই সাথে আন্দোলনের নামে রাজধানীতে যদি কোন গোষ্ঠী বিশৃঙ্খলার পরিবেশ সৃষ্টি করতে চায় তবে তাদের প্রতিহত করা হবে।

নেতাকর্মীদের ব্যবহৃত যানবাহনে ছাত্রলীগের স্টিকার ব্যাবহার না করার অনুরোধ করে বলেন, সংগঠনের ক্ষতি করার জন্য অনেকে ছাত্রলীগের স্টিকার ব্যবহার করে অপকর্ম করে। তাই সকলকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। রাস্তা-ঘাটে কোন যানবাহনে ছাত্রলীগের স্টিকার ব্যবহার করা যাবে না। 

এ সময় ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার অন্যতম আসামী তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে এনে তার বিচারের দাবি জানান মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের এই সভাপতি।  

আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে অালম মুরাদ, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী, ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি মেহেদী হাসান প্রমুখ।


প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে, রুখে
বিচার ও ইনসাফ না থাকায় দেশে মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা, ধর্ষণের
বিস্তারিত
আওয়ামী লীগের নজর বিএনপির শপথে
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ছয়টি আসনে বিএনপি থেকে বিজয়ী সংসদ
বিস্তারিত
ময়মনসিংহের নগর পিতা হলেন টিটু
কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশন (মসিক) নির্বাচনে আওয়ামী
বিস্তারিত
গ্যাটকো মামলায় খালেদার বিরুদ্ধে অভিযোগ
গ্যাটকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াসহ অপর আসামিদের
বিস্তারিত
ছাত্রলীগের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করলেন
দলের এবং সরকারের ভাবমূর্তি বিনষ্টকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক এবং প্রশাসনিক
বিস্তারিত
আমি প্যারোলে মুক্তি নেবো কেন?
প্যারোলে মুক্তি চান না বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তার আশা,
বিস্তারিত