কবিতা

ধোঁয়াশার তামাটে রঙ

দীর্ঘ অবহেলায় যদি ক্লান্ত হয়ে উঠি বিষণœ সন্ধ্যায়Ñ
মনে রেখো এই পথ, আবাদি জমিন, সবুজ অরণ্য সুতীব্র বন্ধ্যায়,
ভুগে ভুগে ক্ষয়ে যাবে চাঁদ; অনন্তের মায়াহীন প্রবল ছায়াÑ
ঢালবে আঁধার, থামাবে সুখ : ছড়াবে দীঘল কায়া।
তখন পাখিরা খোয়াবে ডানা; পৃথিবী পড়বে ভীষণ রকম মন্দায়!

হিজলের মতো এত মুগ্ধতা ছড়ায় কে, রুক্ষ আঁধারে?
রাতদিন তন্নতন্ন খুঁজে সৌরভ কিংবা গৌরব বনবাদাড়েÑ
কে ছেড়েছে পশুর স্বভাব, কার হাতে বাজে সম্প্রীতির বীণা-বাঁশি?
কণ্ঠ নামেনি কারো, রুদ্ধ হলো না যুদ্ধ-হিংস্রতায়ভরা হাসিÑ
স্তব্ধ হয়নি চিরতরে : কালো চোখ কেন বারবার খোঁজে শাদারে!


আরব ছোটগল্পের রাজকুমারী
সামিরা আজ্জম ১৯২৬ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর ফিলিস্তিনের আর্কে একটি গোঁড়া
বিস্তারিত
অমায়ার আনবেশে
সাদা মুখোশে থাকতে গেলে ছুড়ে দেওয়া কালি  হয়ে যায় সার্কাসের রংমুখ, 
বিস্তারিত
শারদীয় বিকেল
ঝিরিঝিরি বাতাসের অবিরাম দোলায় মননের মুকুরে ফুটে ওঠে মুঠো মুঠো শেফালিকা
বিস্তারিত
গল্পের পটভূমি ইতিহাস ও বর্তমানের
গল্পের বই ‘দশজন দিগম্বর একজন সাধক’। লেখক শাহাব আহমেদ। বইয়ে
বিস্তারিত
নজরুলকে দেখা
আমাদের পরম সৌভাগ্য, এই উন্নত-মস্তকটি অনেক দেরিতে হলেও পৃথিবীর নজরে
বিস্তারিত
পর্বতের দেশে পর্বতের জাদুঘরে
পর্বতের জাদুঘরে ঢুকেই একটু অন্যরকম অনুভূতি হলো। মনে হচ্ছে জাদুঘরের
বিস্তারিত