ঢাবিতে বক্তারা

নৈতিক চেতনার মাধ্যমে বিশ্বব্যবস্থা পরিবর্তন সম্ভব

মানুষের মধ্যে বৈষম্য বাড়ছে। শক্তিশালী রাষ্ট্রের মধ্যে দুর্বল রাষ্ট্রের বৈষম্য বাড়ছে। অল্প কিছু রাষ্ট্র দুনিয়াব্যাপী দুর্বল রাষ্ট্রের সাধারণ মানুষকে উন্নত হতে দিচ্ছে না। বাংলাদেশেও এই ব্যবস্থা প্রবাল আকার ধারণ করেছে। দুর্বলরা তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পারছে না। এজন্য জনগণের সংগ্রাম ও নৈতিক চেতনার মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিশ্বব্যবস্থা পরিবর্তন করতে হবে। 

বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ‘ইমেজিং সাউথ এশিয়ান কালচার ইন নন-ইংলিশ: রিকনস্ট্রাকিং পপুলার টেক্সুয়াল এন্ড ভিজুয়াল রিপ্রেসেন্টেশনস’বিষয়ক গবেষণা প্রবন্ধের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন বক্তারা। বিশ্ববিদ্যালয়ের লেকচার থিয়েটার ভবনে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আবু রায়হান বিরুনী ফাউন্ডেশন।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ফিলো রয়েল সোসাইটি এন্ড আর্টসের (এফআরএসএ) প্রধান সম্পাদক তাসলীম সাকুর। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ইরানের ওয়াজদ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও ঢাবির ভিজিটিং অধ্যাপক কাজেম খাঁদুয়ী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাবির বাংলা বিভাগের প্রাক্তন অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক, আবু রায়হান বিরুনী ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও ঢাবির ফার্সি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আবু মুসা মুহাম্মদ আরিফ বিল্লাহ।

অধ্যাপক কাজেম খাঁদুয়ী বলেন, ইরানের ঐতিহ্যের সাথে বাংলাদেশের একটা ঐক্য আছে। সাংস্কৃতিক দিক থেকে একটা মিল আছে। এই মিল অক্ষুণ্ন রাখতে সবাইকে কাজ করতে হবে। তিনি বলেন, আমাদের তৃতীয় বিশ্বের লোক বলা হয়। এটা একটা অপমান। আমরা প্রথম বিশ্বে যেতে চাই। এজন্য আমাদের নৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক পরিবর্তন দরকার।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক বলেন, বিজ্ঞানের কল্যাণে মানুষ ভালভাবে বসবাস করতে পারছে। কিন্তু টেকনোলজি ব্যবহারের মাধ্যমে মানুষকে একটা গণ্ডির মধ্যে আবদ্ধ করে রাখা হচ্ছে। পৃথিবীর শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে জার্মানি, রাশিয়া, ব্রিটেন, আমেরিকার সাথে দুর্বল রাষ্ট্রের মধ্যে বৈষম্য সৃষ্টি হচ্ছে। তারা বিভিন্নভাবে দুর্বল রাষ্ট্রকে উন্নত হতে দিচ্ছে না। এর ফলে দুর্বলরা তাদের অধিকার আদায় করতে পারছে না। এজন্য তাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে অধিকার আদায় করতে হবে।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট উল্লেখ্য করে এই শিক্ষাবিদ বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে দুর্বল করে রাখা হয়েছে। বলা হচ্ছে- সার্টিফিকেট নাও। কিন্তু জ্ঞান নিতে পারবে না। তারা সার্টিফিকেটের মাধ্যমে জ্ঞানটাকে সীমাবদ্ধ করে রেখেছে। 

তিনি বলেন, ইংরেজরা এই দেশ শাসন করেছে আবার তারা আমাদের অনেক কিছু অনুকরণ করেছে। কিন্তু এখন শিক্ষাব্যবস্থা অত্যন্ত খারাপ। এটা শুধু বাংলাদেশের না সমস্ত দুর্বল দেশের। এজন্য সংগ্রাম ও নৈতিক চেতনার মাধ্যমে রাষ্ট্রব্যবস্থা পরিবর্তন করতে হবে।


‘দুর্নীতি দমনে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন বলেছেন, দুর্নীতি দমনে সামাজিক আন্দোলনের
বিস্তারিত
চাকরিতে মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক, পরিপত্র
সরকারি চাকরিতে ডোপ টেস্ট বা মাদক পরীক্ষা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
বিস্তারিত
ভিকারুননিসার শিক্ষিকা হাসনা হেনার জামিন
নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় প্ররোচণার অভিযোগে আটক 
বিস্তারিত
‘আমরা চাই আমাদের নারীরা সুশিক্ষিত
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাতা-পিতাকে বিশেষ করে মায়েদের তাদের সন্তানকে বেগম
বিস্তারিত
মেয়েদের অধিকার আদায়ে পারিবারিক ঝামেলা
মেয়েদের সব ক্ষেত্রে সুযোগ দিতে হবে। তারা যেন আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী
বিস্তারিত
পৌর মেয়র পদে থেকেই সংসদ
পৌর মেয়র পদে থেকেই জাতীয় সংসদ নির্বাচন করা যাবে বলে
বিস্তারিত